প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘আমি এক গৃহযুদ্ধের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে গেছি’

ডেস্ক রিপোর্ট: উগান্ডার এক কবির কবিতা ‘আমি এক গৃহযুদ্ধের সামনে দাঁড়িয়ে গেছি’। দারুণ কবিতা। ঝরঝরে অনুবাদ করেছেন জাহেদ সরওয়ার। কবিতাটি আমাদেরসময়. কমের পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো।
……………….
।আমি এক গৃহযুদ্ধের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে গেছি।

আমি এক গৃহযুদ্ধের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে আছি।
সমুহ ক্ষতির ভয়ে হাতপা নাড়াচ্ছি না-

তুমি আমার খাদ্যে ঢেলে দিচ্ছ বিষ,
অথচ বলে বেড়াচ্ছ আমাকে খাওয়াচ্ছ মাগনা।

তুমি সব শিক্ষাদীক্ষা কেড়ে নিয়ে আমার
সন্তানদের ডাকাত-দস্যু, চোর-লুটেরা-
ছিনতাইকারী-ধর্ষক বানাচ্ছ, বলছ আমাকে শিক্ষা দিচ্ছ।

তুমি তোমার কমিশনের জন্য আমার ঘরবাড়ি,
চাষের জমি, মাছের নদী, লবনের মাঠ, বন
তুলে দিচ্ছো বিদেশি বহুজাতিক বেনিয়াদের হাতে।
আর এর গালভরা নাম দিয়েছ উন্নয়ন।

থানাকে তুমি পরিণত করেছ জল্লাদখানায়,
হাসপাতালগুলো ভরে গেছে কসাইয়ে
ক্রসফায়ার আর গুমে দেশটাকে বানিয়েছ বধ্যভূমি।

বিশ্ববিদ্যালয়ে আমার সন্তানদের শিক্ষার বদলে শেখাচ্ছ সন্ত্রাস।
খাতা-কলম-কী বোর্ডের বদলে তুমি হলের
আলমারিগুলোতে সাজিয়ে রেখেছ রাম দা আর পর্ণোগ্রাফি।

আর কোটি কোটি জনগণকে তুমি
দাঁড় করিয়ে দিয়েছো গৃহযুদ্ধের সামনে।
আমার সন্তানদের পিছনে লেলিয়ে দিয়েছ আমার সন্তানদের।
আমার সন্তানদের দিয়ে ধর্ষণ করাচ্ছ আমার মেয়েদের।
তুমি এর নাম দিয়েছো প্রতিরোধ?

ব্যাংক থেকে আমার হাজার কোটি টাকা
লোপাট হয়ে যায়, তুমি চুপ।
রিজার্ভ ব্যাংকের বিলিয়ন ডলার চুরি হয়ে যায়,
তুমি চুপ।
শেয়ার বাজারের ক্ষুদ্র জামানতকারীদের
কাগজগুলো খেয়ে ফেলে তোমার
গৃহপালিত উইপোকা, তুমি চুপ।
খাদ্য ও চিকিৎসার অভাবে ধুকছে জাতি
অথচ দেশ ভরে যাচ্ছে চকচকে কসাইখানায়
তুমি চুপ।
একটি গৃহযুদ্ধের মুখোমুখি দাঁড়িয়েও
আমিও চুপ হয়ে আছি, হাতপা নাড়াচ্ছি না-
সমুহ ক্ষতির ভয়ে। অথচ ক্ষতি যা হবার তা হয়েই যাচ্ছে হরদম।

তুমি চেপে ধরেছ আমার কণ্ঠনালী
তুমি কেড়ে নিয়েছ আমার ব্যানার
তুমি কেড়ে নিয়েছ আমার লিখার খাতা ও কলম।
আমার অব্যক্ত কথাগুলো বলার জন্য
তুমি আমাকে কোথাও দাঁড়াতেই দিচ্ছ না।
আমার সমস্ত কথা বলার, প্রতিবাদ জানানোর ভাষাকে
তুমি হত্যা করছ প্রতিদিন।
আর এর নাম দিয়েছ তুমি বাক-স্বাধীনতা।
আর ক্রমশ ঠেলতে ঠেলতে-
আমাকে দাঁড় করিয়ে দিয়েছ গৃহযুদ্ধের মুখোমুখি।

*উগান্ডার কবি টিমবকটুর লেখা কবিতা। ভাষান্তর: জাহেদ সরওয়ার।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ