প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিশ্বকাপ শেষ, জমছে প্রেক্ষাগৃহ

ডেস্ক রিপোর্ট : বিশ্বকাপ ফুটবল চলাকালে ঈদের ছবিগুলো এক প্রেক্ষাগৃহ থেকে আরেকটিতে ঘুরেছে। দর্শকেরা সেসব ছবি দেখে সন্তুষ্ট থেকেছে। বিশ্বকাপ শেষ হতে না হতেই ছবিপ্রেমী দর্শকদের জন্য বিরাট সুখবর আসছে। ২০ জুলাই একসঙ্গে চারটি ছবি মুক্তি পেতে যাচ্ছে, যা সাধারণত ঈদ উৎসবে দেখা গেছে। বিশ্বকাপ শেষে এটিকে ঈদের আনন্দ মনে করছেন।

শুক্রবার যেসব ছবির মুক্তির সম্ভাবনা রয়েছে, সেগুলোর মধ্যে আছে জয়দীপ মুখার্জির ‘ভাইজান এলো রে’, রাজা চন্দের ‘সুলতান: দ্য সেভিয়ার’, রাশান নুরের ‘বেঙ্গলি বিউটি’ ও তপন আহমেদের ‘ডিটেকটিভ’। চারটি ছবির মধ্যে ‘ভাইজান এলো রে’ ও ‘সুলতান: দ্য সেভিয়ার’ সাফটা চুক্তির আওতায় মুক্তি পেতে যাচ্ছে। বাকি দুটির মধ্যে ‘ডিটেকটিভ’ অ্যানিমেটেড চলচ্চিত্র।

ঈদের পর পাঁচ সপ্তাহ ধরেও নতুন কোনো ছবি মুক্তি পায়নি। দেশের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে এখনো চলছে ‘পোড়ামন ২’ ও ‘সুপারহিরো’ ছবিটি। খোঁজ নিয়ে দেখা গেল, ‘বেঙ্গলি বিউটি’, ‘ভাইজান এলো রে’ ও ‘সুলতান: দ্য সেভিয়ার’ ও ডিটেকটিভ—এই চারটি ছবিই ২০ তারিখে মুক্তি পাবে বলে নিশ্চিত করেছেন ছবির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

‘সুলতান: দ্য সেভিয়ার’ ছবিটি বাংলাদেশে আমদানি করছে জাজ মাল্টিমিডিয়া। আর ‘ডিটেকটিভ’ ছবির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানও জাজ মাল্টিমিাডিয়া। এই প্রতিষ্ঠানটির স্বত্বাধিকারী আবদুল আজিজ বলেন, ‘দেখা যাবে, এই সপ্তাহে পাঁচটা ছবি মুক্তি পাবে, পরের সপ্তাহে কোনো ছবি নেই! অথচ ছবি মুক্তির স্বাভাবিক চিত্র এমনটাই হওয়া উচিত। চলচ্চিত্রের পরিবেশ প্রযোজকবান্ধব হলে আরও অনেক প্রযোজকই নিয়মিত ছবি বানাতেন। প্রেক্ষাগৃহগুলোও থাকত জমজমাট।’

আবদুল আজিজ জানান, ‘সুলতান: দ্য সেভিয়ার’ ছবিটি দেশের শতাধিক প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দেওয়ার ইচ্ছে তাঁর। অ্যানিমেটেড ছবিটি শুরুতে কয়েকটা প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দেবন, দর্শক চাহিদার ওপর প্রেক্ষাগৃহের সংখ্যা বাড়ানো হবে। ছবি দুটিই এ সপ্তাহে মুক্তি দিচ্ছেন এটা নিশ্চিত।

বাংলাদেশে ‘ভাইজান এলো রে’ ছবিটি আমদানি করছে এন ইউ ট্রেডার্স। এ প্রতিষ্ঠান থেকে এর আগে ‘চালবাজ’ মুক্তি দেওয়া হয়েছিল। এন ইউ ট্রেডার্সের কর্ণধার ও প্রযোজক কামাল মোহাম্মদ কিবরিয়া এখন যুক্তরাষ্ট্রে। তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপের পরপরই দেশের দর্শক যাতে “ভাইজান এলো রে” আনন্দে মেতে উঠতে পারেন, সেই চেষ্টা আগে থেকে ছিল। সে হিসেবে আমাদের প্রস্তুতি ছিল ২০ জুলাই মুক্তি দেওয়ার। সেভাবে প্রস্তুতি নেওয়াও হয়েছে। ছাড়পত্র আরও আগে পেলে প্রচার চালাতে সুবিধা হতো।’

‘ভাইজান এলো রে’ ছবিতে অভিনয় করেছেন শাকিব খান। তাঁর বিপরীতে অভিনয় করেছেন ভারতের কলকাতার শ্রাবন্তী, পায়েল। ছবির অন্য অভিনয়শিল্পীরা হলেন বাংলাদেশের শাহেদ আলী, দীপা খন্দকার, মনিরা মিঠু এবং ভারতের রজতাভ দত্ত, সুপ্রিয় দত্ত, বিশ্বনাথ প্রমুখ। ছবিটি প্রযোজনা করেছে কলকাতার এসকে মুভিজ, পরিচালক জয়দীপ মুখার্জি।

‘ভাইজান এলো রে’ ছবির নায়ক শাকিব খান এখন ঢাকায় ‘ক্যাপ্টেন খান’ ছবির শুটিং করছেন। তারই ফাঁকে খবরটি মনে করিয়ে দিতেই শাকিব বললেন, ‘আমি একজন অভিনয়শিল্পী। শুটিংয়ের কারণে পরিবারের সবাইকে ছেড়ে দূরে থাকতে হয়। দেড় যুগ ধরে এ অভিনয়টাই করে যাওয়ার চেষ্টা করছি। কখনো খালি হাতে ফিরিনি। দেশের মানুষ আমাকে প্রাণ উজাড় করে ভালোবাসা দিয়েছে।

দেশের মানুষের ভালোবাসা আর দোয়ায় এখন আমাকে দেশের বাইরের ছবিতেও কাজ করতে হয়। চেষ্টা করি, দেশের সম্মান বাড়ে, তেমন কাজ করার। সব সময় চেষ্টা করব, আমার দেশ যেন আমার কাজের মধ্য দিয়ে আরও মাথা উঁচু করে দাঁড়ায়।’

‘বেঙ্গলি বিউটি’ ছবিটি পরিচালনার পাশাপাশি এটিতে অভিনয়ও করেছেন রাশান নূর। তিনি বলেন, ‘আগামী শুক্রবারেই মুক্তি পাবে বেঙ্গলি বিউটি’। ইচ্ছে ছিল গত ফেব্রুয়ারিতেই মুক্তি দেওয়ার। নানা কারণে ছবিটি মুক্তি দিতে দেরি হয়েছে। আমরা সব প্রস্তুতি সেরে নিয়েছি। পোস্টার, প্রিমিয়ার শো আয়োজন—সবই গুছিয়ে নিয়েছি। আমাদের চাওয়া, ছবিটি দর্শক দেখুক।’
সূত্র : প্রথম আলো