প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বৃষ্টি হওয়া ও বৃষ্টি বন্ধ হওয়ার দোআ

সাইদুর রহমান : অনেক সময় বৃষ্টি খুবই দরকার আবার অনেক সময় বৃষ্টি মানুষের জন্য দূর্ভোগ হয়ে উঠে। এজন্য প্রয়োজনের সময় এ দোআগুলো আল্লাহর রাসূল করেছেন। বর্ণিত হাদীসে বৃষ্টি হওয়ার জন্য একবার দোআর করা হয়েছে আবার অতিবৃষ্টি বন্ধ হওয়ার দোআও এসেছে। হযরত আনাস রা. বলেন, একদা জুমার দিন রাসুলুল্লাহ সা. খুতবা দেয়া অবস্থায় জনৈক সাহাবি মসজিদে প্রবেশ করে আরজ করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! জীবজন্তু মৃত্যুমুখে পতিত হয়েছে, পথ রুদ্ধ হয়ে গেছে, আল্লাহ তায়ালার কাছে আমাদের জন্য বৃষ্টি প্রার্থনা করুন।

তৎক্ষণাৎ রাসুলুল্লাহ সা. দুই হাত সম্প্রসারিত করে দোয়া করলেন, ‘আল্লাহুম্মা হাওয়ালাইনা ওয়ালা আলাইনা। আল্লাহুম্মা আলাইকা বিল আকাম ওয়াজজিরাব ওয়া বুতুনিল আওদিয়া ওয়া মানাবিতিশশাজার’।

অর্থাৎ হে আল্লাহ! আমাদের বৃষ্টি দান করো! হে আল্লাহ! আমাদের বৃষ্টি দান করো! হে আল্লাহ! আমাদের বৃষ্টি দান করো! আনাস [রা.] বলেন, আল্লাহর শপথ! তখন আকাশে বিন্দুমাত্র মেঘের ছোঁয়াও ছিল না, রাসুলুল্লাহ সা. এর দোয়ার পর দিগন্তে মেঘের উদ্ভাস হয়, কিছুক্ষণের মধ্যে পুরো আকাশ ছেয়ে ফেলে, অতঃপর মুষলধারে বৃষ্টি আরম্ভ হয়।

আনাস রা. বলেন, আল্লাহর শপথ! পরবর্তী ছয় দিন যাবৎ আমরা সূর্য দেখিনি। সপ্তাহান্তে পরবর্তী জুমায় পুনরায় ওই ব্যক্তি যখন মসজিদে প্রবেশ করে তখন রাসুলুল্লাহ সা. খুতবারত অবস্থায়, ওই ব্যক্তি আরজ করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! ধনসম্পদ সব নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, পানিতে পথ রুদ্ধ হয়ে গেছে, আল্লাহ তায়ালার কাছে বৃষ্টি বন্ধ হওয়ার প্রার্থনা করুন।

আনাস রা. বলেন, রাসুলুল্লাহ সা. দুই হাত উঁচিয়ে দোয়া করলেন, ‘হে আল্লাহ! আমাদের ওপর থেকে আশপাশের অঞ্চলে সরিয়ে দাও, পাহাড়-মরু, খাল-বিল ও বনাঞ্চলের দিকে সরিয়ে নাও! বর্ণনাকারী বলেন, তখনই বৃষ্টি বন্ধ হয়ে যায়, অতঃপর আমরা নামাজান্তে রোদের মধ্যে বের হই।’ (বোখারি : ১০১৩; মুসলিম : ৮৯৭)

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত