প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এবার ইলিশ উৎপাদনে বিশ্বের তৃতীয় স্থান বাংলাদেশের

সাজিয়া আক্তার: জাটকা ও মা ইলিশ ধরা বন্ধ হওয়ায় বেড়েছে মাছ উৎপাদন। প্রাকৃতিক উৎস থেকে বছরে আসছে সাড়ে ১০ লাখ মেন্ট্রিকটন মাছ। জাতিসংঘে খাদ্য ও কৃষি বিষয়ক সংস্থা এফএও বলছে মাছ উৎপাদনে চীন ও ভারতের পরে বাংলাদেশের স্থান। আরো আশার খবর দিচ্ছে মৎস অধিপ্তর কৃত্তিম প্রজননের মাধ্যমে বিলুপ্ত প্রায় ২০ মাছের পোনা উৎপাদনে সাফল্যের কথা জানিয়েছে তারা।

ইলিশের এখন ভরা মৌসুম, পদ্মা, মেঘনা, তেতুলিয়া, আন্ধার মানিক নদীর মোহনায় ধরা পরছে ঝাকে ঝাকে রূপালি ইলিশ। জেলের জালে পরছে ৪ কেজি থেকে সাড়ে ৩ কেজি ওজনের মাছ।

গত বছরের উৎপাদন ৪ লাখ ৯৬ হাজার মেট্রিকটন হলেও এবার ইলিশ মিলবে প্রায় ৬ লাখ টন।

প্রাকৃতিক উৎস থেকে ২০১৭ সালে পাওয়া গেছে ১০ লাখ ৪৮ হাজর টন মাছ। এর অর্ধেকেই ইলিশ। ইলিশ ও জাটকা ধরা বন্ধে মাছ উৎপাদনে বিশ্বের তৃতীয় স্থানে উঠেছে বাংলাদেশ।

মৎস অধিদপ্তর মহাপরিচালক গোলজার হোসেন বলেন, মাছ উৎপাদনের প্রায় ৫০ শতাংশই এসেছে ইলিশ সম্পদ থেকে। তাছাড়া অভ্যন্তরীণ বিল,পুকুরসহ বিভিন্ন জলাশয় সেখানেও মাছের উৎপাদন বেড়েছে। প্রায় ৪৩২ টি অভয় আশ্রম রয়েছে আমাদের বিলে ও নদীতে। এই অভয় আশ্রম গুলো আমরা কমিনিটি দিয়ে ব্যবস্থাপনায় রাখি।

মোট উৎপাদনের ৬ লাখ টন আসে নদী হাওয় বিলসহ উন্মুক্ত জলাশয় থেকে। সঙ্গে যোগ হচ্ছে চাষের মাছ। যোগানে সংকট হবে না জানাচ্ছেন গবেষকেরা। এতে আমিষের চাহিদা মিটবে ৫৬ শতাংশ।

মাছের উৎপাদন বাড়াতে শীঘ্রই বরিশালের এজলাস থেকে মেহেন্দিগঞ্জ পর্যন্ত মেঘনা, লতা ও নয়াভাঙা নদীর ৬০ কিলোমিটার অংশে হচ্ছে ইলিশের ষষ্ঠ অভয় আশ্রম। এছাড়া নানা প্রজাতির বিলুপ্ত প্রায় দেশি মাছের পোনা চাষের আওতায় আনছে মৎস অধিদপ্তর।

সূত্র : ইন্ডিপেন্ডিন্ট টেলিভিশ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত