প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

হার্টের রোগীর সংখ্যা এবং প্রকোপ মারাত্মক বৃদ্ধি পেয়েছে

ডা. লুৎফর রহমান : বাংলাদেশে করোনারি আর্টারি ডিজিজ অর্থাৎ হৃদযন্ত্রের রক্তনালীতে ব্লক এ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা এবং এর প্রকোপ মারাত্মক বৃদ্ধি পেয়েছে। যার উল্লেখযোগ্য অংশ হচ্ছে অল্প বয়সী রোগী। অনেক সময় রোগী হৃদরোগের লক্ষণ বুঝতে না পেরে হঠাৎ মারাত্মক হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়। অল্প বয়সী রোগীদের ক্ষেত্রে এই হার্ট অ্যাটাক আরও বেশি ভয়ানক আকার ধারণ করতে পারে। এমনকি প্রাণ নাশেরও ঝুঁকি থাকে। অসিত চক্রবর্তী এমনি একজন রোগী যে মাত্র ৩৫ বছর বয়সে মারাত্মক হার্ট অ্যাটাক এর কারণে লাইফ সাপোর্ট-এ চলে যায়। ডায়াগনস্টিক টেস্ট এর মাধ্যমে জানা যায় তার হার্টের মূল আর্টারিতে ১০০% ব্লক এবং হার্ট অ্যাটাকের কারণে হার্টের কর্মক্ষমতা ৩০% এরও নিচে নেমে আসে।

এসব জটিলতার কারণে অনেক হাসপাতাল তাকে ফিরিয়ে দিলে এক পর্যায়ে ল্যাবএইড কার্ডিয়াক হাসপাতালের কার্ডিয়াক সার্জারি ডিপার্টমেন্টের শরণাপন্ন হলে আমরা সার্জারির সিদ্ধান্ত নেই। অপারেশন টেবিলে দেখা যায় শুধু ব্লকই নয় হার্টের একটা বড় অংশ প্রায় ৬০% এর উপরে সম্পূর্ণ ড্যামেজ হয়েগেছে। এমত অবস্থায় হার্টের ড্যামেজ অংশ রিপেয়ার করে অর্থাৎ বুকের রক্তনালী দিয়ে বাইপাস করে শতভাগ সফলতার সাথে সার্জারি সম্পন্ন করা হয়। চিকিৎসার পর সুস্থ অবস্থায় অসিত চক্রবর্তীর এই হাসি প্রমান করে হার্টের সার্জারিতে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে।

পরিচিতি : বিভাগীয় প্রধান, (কার্ডিয়াক বিভাগ) ল্যাবএইড হাসপাতাল / মতামত গ্রহণ : মো. এনামুল হক এনা / সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত