প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ছাত্র ইউনিয়ন, ছাত্র ফ্রন্ট ও যুব পরিষদের নিন্দা
কোটা সংস্কারকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা

রফিক আহমেদ : বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ও জাতীয় যুব পরিষদের নেতারা কোটা ব্যবস্থার সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্র অধিকার সংরক্ষণের নেতাদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। শনিবার পৃথক পৃথকভাবে বিবৃতিতে উল্লেখিত তিনটি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এ নিন্দা জানান।

ছাত্র নেতৃবৃন্দ বলেন, ছাত্র অধিকার সংরক্ষণের পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচির আগেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারে সামনে ছিল। এই কর্মসূচিতে শনিবার সকাল পৌনে ১১টায় এ হামলা করে ছাত্রলীগ। হামলায় ১৫-২০জন কর্মী আহত হয়।

বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি জিএম জিলানী শুভ ও সাধারণ সম্পাদক লিটন নন্দী ছাত্র অধিকার সংরক্ষণের নেতা এবং সাধারণ শিক্ষার্থীদের উপর ছাত্রলীগের ন্যাক্কারজনক হামলার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানান। তারা হামলার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান।

সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ইমরান হাবিব রুমন ও সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দিন প্রিন্স কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের বর্বর ও নৃশংস হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ জানিয়েছেন। নেতৃবৃন্দ বলেন, কোটা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীরা দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছেন। তাদের ওপর এর আগেও পুলিশ এবং ছাত্রলীগ হামলা করেছে। এতকিছুর পরেও ছাত্রদের ব্যাপক অংশগ্রহণ এবং দাবির যৌক্তিকতা অস্বীকার করতে না পেরে প্রধানমন্ত্রী দাবি মেনে নিতে একভাবে বাধ্য হয়েছেন। শিক্ষার্থীরা কোটা সংস্কারের দাবির কথা বললেও প্রধানমন্ত্রী সংসদে দাঁড়িয়ে কোটাব্যবস্থা বাতিলের কথা বলেন। কিন্তু সেই বক্তব্যেও পরেও অনেক সময় গড়িয়েছে সরকারের পক্ষ থেকেও বারবার নানা ধরণের আশ্বাস দেয়া হয়েছে কিন্তু এখন পর্যন্ত কোন সরকারি গেজেট প্রকাশ করা হয়নি। এর ফলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষুব্ধতা তৈরি হয়েছে এবং তারা আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করতে গতকাল ৩০ জুন সাংবাদিক সম্মেলন আহ্বান করে। কিন্তু সংবাদ সম্মেলন শুরুর আগেই আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা হামলা চালায়। হামলায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরাসহ বেশ কয়েকজন সাধারণ শিক্ষার্থীও গুরুতর আহত হোন।

শনিবার সকালে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে কোটা সংস্কার আন্দোলনের ছাত্র-ছাত্রীরা এক সংবাদ সম্মেলন করতে চাইলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা অতর্কিত হামলা চালায়। এতে অনেক ছাত্র-ছাত্রী আহত হয় এবং বেশ কয়েকজনকে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। জাতীয় যুব পরিষদের আহবায়ক এস এম সাছুল আলম নিক্সন ও যুগ্ম আহবায়ক মো: শফিকুল ইসলাম শফিক এক যৌথ বিবৃতিতে, কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী ছাত্র-ছাত্রীদের ওপর ছাত্রলীগের এই বর্বোরোচিত সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে দুষীদের যথাযথ শাস্তি দাবি করেছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত