প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সাক্ষ্যৎকারে আফজাল হোসেন
তরুণ প্রজন্মকে নিয়েই স্বপ্ন দেখেন প্রধানমন্ত্রী

আহমেদ জাফর: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও আওয়ামী লীগের ইতিহাস ঐতিহ্য, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়ন এবং গঠনতন্ত্রেও যার ভূমিকা ছিল অটুট তিনি অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন। তৃতীয়বারের মত আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।

পটুয়াখালীর সন্তান আওয়ামী লীগের পরীক্ষিত ও ত্যাগি এই নেতা  আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণার কার্যক্রম, আগামী নির্বাচন, সমসাময়িক রাজনীতি বিষয়ে কথা বলেছেন।

প্রশ্ন: তথ্য ও গবেষণা সম্পাদকের দায়িত্ব পাওয়ার পর কি উন্নয়ন করেছেন এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?

আফজাল হোসেন: বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মতো একটি প্রাচীন রাজনৈতিক দলের পরপর তিনবার তথ্য ও গবেষণা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছি এবং এ জন্য প্রথমেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী প্রতিটি পদের জন্য নির্দিষ্ট কাজের নির্দেশনা দেয়া আছে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি মাসিক পত্রিকা আছে, ‘উত্তরণ’। এছাড়া বিভিন্ন সময় দলের যে প্রকাশনা হয়। গত তিন কাউন্সিলে সামগ্রিক প্রকাশনার কাজের সাথে তথ্য ও গবেষণা সেল জড়িত হওয়ায়, প্রকাশনা থেকে শুরু করে গঠনতন্ত্রসহ বেশ কিছু পরিবর্তন এসেছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং আওয়ামী লীগের ইতিহাস ঐতিহ্য নিয়ে আমার সম্পাদনায় বড় আকারে একটি গ্রন্থ প্রকাশ করেছি। ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর বিশ্ব ঐতিহ্যের ভাষণ প্রধানমন্ত্রীর উল্লেখযোগ্য ভাষণ পুস্তিকা আকারে প্রকাশ করেছি। বঙ্গবন্ধু সেটালাইট-১ সফল উৎক্ষেপণ ‘মহাকাশে বাংলাদেশ’ নামে পুস্তিকা বের করেছি।

প্রশ্ন: সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) সাথে আপনাদের কাজের সংযোগ আছে?
আফজাল হোসেন: সিআরআই’র কয়েকজন সদস্য আমাদের তথ্য ও গবেষণা উপকমিটিতে আছে। বিভিন্ন ভাবে তারা সহযোগিতা করে।

প্রশ্ন: আন্তর্জাতিক অঙ্গনে,অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে আওয়ামীলীগের জন্য কি চ্যালেঞ্জ আছে, বলে মনে করেন?
আফজাল হোসেন: শেখ হাসিনার কূটনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গির কারণে অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে আমাদের বন্ধুরাষ্ট্রের পরিধি এখন অনেক বেশি। আওয়ামী লীগ চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে এবং জয়ী হই। বিএনপি-জামাত জোটে বাংলাদেশকে জঙ্গিবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করতে চেয়েছিল। শেখ হাসিনা জীবন বাজি রেখে চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে এবং সফল হয়েছে। তরুণ প্রজন্মের জন্য তিনি স্বপ্ন দেখেন। তাদের একটি উন্নত দেশ উপহার দিতে এই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে বীরের মত এগিয়ে যাচ্ছেন।

প্রশ্ন: আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি হিসেবে চাইনিজ কমিউনিস্ট পার্টিসহ বিভিন্ন দেশের আমন্ত্রণে গিয়েছেন। বর্তমানে বাংলাদেশ সম্পর্কে চীন ও অন্যান্য দেশের মনোভাব কেমন?

আফজাল হোসেন: বাংলাদেশের ভাবমূর্তি অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে অনন্য উচ্চতায় অবস্থান করছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৫৩ ও ১৯৫৭ সালে কমিউনিস্ট পার্টির আমন্ত্রণ চীনে গিয়েছিলেন। চীনের সাথে আমাদের দীর্ঘদিনের সম্পর্ক আছে। চীনের পক্ষ থেকে আমরা যে কোনো বিষয় ইতিবাচক সাড়া পাই। চীন বাংলাদেশের উন্নয়ন অংশীদার এবং বাংলাদেশের ব্যাপারে আগ্রহ থাকবে এটাই স্বাভাবিক।

প্রশ্ন: বিএনপির কিছু দাবি আছে সেগুলো পূরণ না হলে নির্বাচনে আসবে না। এই বিষয়টাকে কিভাবে দেখছেন?
আফজাল হোসেন: বিএনপি সাধারণ মানুষ হত্যা করে রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের করতে চায়, বাংলাদেশে ইতিহাস খুব একটা নেই। বিএনপি স্বাভাবিক রাজনীতি থেকে সরে যাওয়ায় তাদের ভাবমূর্তি এখন শূন্যর কোটায়। আর্ন্তাজাতিক আদালতে পর্যন্ত বিএনপিকে সন্ত্রাসী দল হিসেবে আখ্যা দিয়েছে। বিএনপি যাই দাবি করুক না কেন? দেশের সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হবে।

প্রশ্ন: পটুয়াখালী-১ আওয়ামীলীগের এমপি নাই, জাতীয় পার্টির সাংসদ আছে, আপনার কাজ করার সুযোগ সংকুচিত হচ্ছে কিনা?
আফজাল হোসেন: ঐতিহ্যগতভাবে পটুয়াখালীর মানুষ নৌকা মার্কায় ভোট দিতে অভ্যস্ত। অন্য দলের সাংসদ থাকয় জনগণের চাওয়া পাওয়া ও সুযোগ সুবিধা না পাওয়ার কষ্ট আছে। প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণ অঞ্চলের মানুষের জন্য যা করেছেন অতীতের কোন সরকার করেনি।

প্রশ্ন: আপনার নির্বাচনী আসন পটুয়াখালী-১ নিয়ে ভাবনা, কর্মপরিকল্পনা কি? মনোনয়ন নিয়ে কতটা আশাবাদী?
আফজাল হোসেন: এই এলাকা নিয়ে আমার দীর্ঘ স্বপ্ন রয়েছে, আমি নেত্রীকে বলেছি। যেহেতু এলাকায় দলীয় এমপি নেই, মানুষের নানা অভিযোগ শুনে সেগুলো মেটানোর চেষ্টা করছি। আগামী নির্বাচনে মানুষ পরিবর্তন চায়। জনগণর সাথে কাজ করতে গিয়ে আমি সাহস সঞ্চয় করেছি, সমর্থন পেয়েছি। এই উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে নৌকা মার্কার আওয়ামীলীগের প্রার্থীকেই মনোনয়ন দিবে।

আমার স্বপ্ন যুবসমাজকে অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা, পর্যটন শিল্পকে উন্নত করে, সন্ত্রাস মাদক মুক্ত, শিক্ষিত, জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গড়ে তোলা।  মনোনয়ন পেলে ইনশাল্লাহ এ আসনটি আমি নেত্রীকে উপহার দিতে পারবো।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ