প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

দুর্গাপূজায় ৩ দিনের সরকারি ছুটি দাবি

ফাহিম ফয়সাল : শারদীয় দুর্গাপূজায় এক দিনের পরিবর্তে তিন দিনের সরকারি ছুটি ঘোষণা, দেশের প্রতিটি জেলায় একটি করে মডেল মন্দির নির্মাণ এবং সারা দেশের সংখ্যালঘু নির্যাতনের প্রতিবাদ জানিয়েছে শারদীয় দুর্গা পূজায় তিন দিনের সরকারি ছুটি বাস্তবায়ন জাতীয় কমিটি।

শুক্রবার জাতীয় প্রেস কাবের সামনে এক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশে তারা এ দাবি জানান।

এ সময় বক্তারা বলেন, শারদীয় দুর্গোৎসব শুধু হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় অনুষ্ঠান নয়, এই উৎসব সমগ্র বাঙালি জাতির ঐক্যের ও মিলনের মহোৎসব। সনাতনী ভক্তবৃন্দকে পাঁচদিনব্যাপী ধর্মীয় রীতিনীতি মেনেই দুর্গাপূজা করতে হয়। দুর্গাপূজার মূল তিনটি দিন সপ্তমী, অষ্টমী ও নবমী উপলক্ষে দিনরাত পূজার কাজে ব্যস্ত থেকে ধর্মীয় অনুশাসন মেনে সার্থকভাবে পূজা সম্প্রদান করতে হয়। পিতা-মাতা, সন্তান, আত্মীয়সহ সবাই এই সময় এক সঙ্গে মিলিত হবার আশা করে থাকে। কিন্তু পূজায় একদিন ছুটি থাকার কারণে হিন্দু সমাজের বহু আকাঙিক্ষত এই দিনগুলি আনন্দের পরিবর্তে বেদনায় পরিনত হয়। আমরা আশা করি সরকার এবার আমাদের প্রাণের দাবি দুর্গাপূজায় তিন দিনের সরকারি ছুটি ঘোষণা করবে।

বক্তারা আরও বলেন, কিশোরগঞ্জে মা মেয়েকে ধর্ষণ, রাজবাড়িতে কিশোরিকে জোড় করে তুলে নেওয়া, কুষ্টিয়ার দেবদত্তকে অপহরণ ও হত্যা, বিভিন্ন জায়গায় মন্দিরের জায়গা দখল করা সহ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতন প্রতিদিন কোথাও না কোথাও হচ্ছে। এতে আমরা শঙ্কিত। যার কারণে এ দেশের হিন্দুরা প্রতিনিয়ত রাজনৈতিক ও সাম্প্রদায়িক সহিংসতার শিকার হচ্ছে।

হিন্দু মহাজোটের সভাপতি ড. প্রভাস চন্দ্র রায়ের সভাপতিত্বে এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের নির্বাহী মহাসচিব ও মুখপাত্র পলাশ কান্তি দে, বাংলাদেশে হিন্দু পরিষদের সভাপতি দীপঙ্কর শিকদার দিপু, সাধারণ সম্পাদক সাজন মিশ্র, জাতীয় হিন্দু সমাজ সংস্কার সমিতির সভাপতি অধ্যাপক নীরেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, সরদাঞ্জলি ফোরামের ঢাকা মহানগরের সভাপতি রতন চন্দ্র পাল প্রমুখ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত