প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাজেট বরাদ্দকে উচ্চশিক্ষার জন্য একেবারেই অপ্রতুল বলছেন বিশেষজ্ঞ

হ্যাপী আক্তার : ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে এবার ৪০টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য বাজেটে বরাদ্দ ৪ হাজার ৬৪৩ কোটি টাকা। আর এবারও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নিজস্ব আয় বাড়াতে চাপ দিচ্ছে মঞ্জুরি কমিশন। এই বরাদ্দকে উচ্চশিক্ষার জন্য একেবারেই অপ্রতুল দাবি করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলছে এতে উচ্চশিক্ষায় কোন অগ্রগতি হবে না।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বাজেট-বরাদ্দের বড় অংশই খরচ হয় শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতায়। তাই শিক্ষার মৌলিক বিষয়েগুলোর মান উন্নয়নের তেমন সুযোগ থাকে না বলেও মত শিক্ষাবিদদের।

২০১৮-১৯ অর্থ বছরে বাজেটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য বরাদ্দ সাতশ ৪১ কোটি ১৩ লাখ টাকা। এর মধ্যে মঞ্জুরি কমিশন থেকে ছয়শ ২৮ কোটি ৩১ লাখ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব আয় থেকে নিতে হবে ৭১ কোটি ২৮ লাখ টাকা। অথচ গত অর্থ নিজস্ব আয়র লক্ষ্য ছিলো ৪২ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। কর্তৃপক্ষ বলছে, প্রতিবছরই নিজস্ব আয় বাড়াতে চাপ দিচ্ছে ইউজিসি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এস আখতারুজ্জামান বলেছেন, একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ভালো স্বপ্ন দেখতে হলে তার জন্য বিনিয়োগ ভারি হতে হয়। তাহলেই বিশ্ববিদ্যালয় ভালো ভালো পরিকল্পনা করে, তাৎক্ষণিক যে কোনো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে কাজ করা যায়।

আর বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান বলেছেন,নিজস্ব আয় মানে শুধু শিক্ষার্থীদের বেতন বাড়ানো নয়। নিজস্ব আয় মানে অপব্যয় বন্ধ করা। অপব্যয় বন্ধ করতে পারলে বিশ্ববিদ্যালয়ের কমে আসবে। এছাড়া পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আয়ের আরো কিছু উৎস আছে সেগুলোকেই উৎসাহিত করা হচ্ছে। তবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে আয়ের জন্য চাপ দেয়ায় কোনো যৌক্তিকতা দেখছেন না শিক্ষাবিদেরা।

শিক্ষাবিদ সৈয়দ মঞ্জুর ইসলাম বলেছে, আমি মনে করি ৪ গুণ থেকে ৫ গুণের বেশি খরচ এই মুহুর্তে প্রয়োজন। এর প্রয়োজন আরো বাড়বে,যদি আমরা দৃশ্যমানের শিক্ষা চাই। আর যদি আমরা ঠেলা ধাক্কা দিয়ে যে শিক্ষা ব্যবস্থা চলছে সেভাবে যদি আমরা চলতে চাই তাহলে যে বাজেট আছে সে দিয়ে আর কিছু করার নেই। সূত্র : ইন্ডিপেন্ডেট টিভি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত