প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো রোটারি বিশ্ব সম্মেলনে পোলিও নির্মূলের আহ্বান জানালেন

মোহাম্মদ আলী বোখারী, টরন্টো থেকে : টরন্টোয় অনুষ্ঠিত রোটারি আন্তর্জাতিকের ১০৯তম বিশ্ব সম্মেলনে কানাডা সরকারের দৃঢ় অঙ্গীকারের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো পোলিও মুক্ত পৃথিবী গড়ার আহ্বান জানিয়েছেন। এতে গত ২৭ জুন ৫ দিনব্যাপী ওই সম্মেলনের সমাপনী দিনে ১৭৫টি দেশের ২৪ সহ¯্রাধিক অংশগ্রহণকারীর উপস্থিতিতে সংগঠনের আন্তর্জাতিক সভাপতি ইয়ান এইচ এস রাইসলি তাকে ‘পোলিও নির্মূল চ্যাম্পিয়ন’ পদকে ভূষিত করেন। তাতে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো পোলিও মুক্ত বিশ্ব গড়তে অঙ্গীকারাবদ্ধ এবং একইসঙ্গে আমরাও তা নির্মূলে সচেষ্ট’। পূর্বাহ্নে প্রধানমন্ত্রী ট্রুডো তার ভাষণে বলেন, কানাডা ১৯৯৬ সাল থেকেই পোলিও নির্মূলে চ্যাম্পিয়ন, যখন দেশটি টিকাদান কর্মসূচিতে আনুষ্ঠানিকভাবে অর্থায়ন জুগিয়েছে। পোলিও মুক্ত পৃথিবী গড়তে কানাডা এ পর্যন্ত ৭৫ কোটি ডলার (বাংলাদেশি টাকায় ৪,৮৭৫ কোটি টাকা) ব্যয় করেছে এবং একমাত্র ২০১৭ সালেই ১০ কোটি ডলার (৬৫ কোটি টাকা) দিয়েছে। এ মাসের শুরুতে জি-৭ শীর্ষ বৈঠকের স্বাগতিক দেশ হিসেবে অংশগ্রহণকারী নেতৃবৃন্দের সঙ্গেও ওই কর্মসূচিতে তার অঙ্গীকার অব্যাহত রেখেছেন। এছাড়া উল্লেখযোগ্যদের মাঝে বক্তা হিসেবে যোগ দেন নিউজিল্যান্ডের সাবেক প্রধানমন্ত্রী হেলেন ক্লার্ক, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ফার্স্ট লেডি লরা বুশ, যুক্তরাজ্যের প্রিন্সেস অ্যান, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক ড. টেডরস অ্যাডহ্যানম জেব্রিইসাস প্রমুখ।

অপরদিকে এ সপ্তাহান্তে যেসব দেশে এখনও পোলিও রোগের প্রকোপ বিদ্যমান, সেখানে রোটারি ক্লাবসমূহের এই আন্তর্জাতিক সংগঠন মোট ৫ কোটি ১২ লাখ ডলার অর্থাৎ বাংলাদেশি ৩২৫ কোটি ৭ লাখ ৮০ হাজার টাকা বরাদ্দ করবে। বিশ্বের সর্বত্র রোটারি ১৯৮৮ সাল থেকেই পলিও নির্মূলে সচেষ্ট রয়েছে এবং সেক্ষেত্রে ২ দশমিক ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ১৯ হাজার ৫৫০ কোটি টাকার পাশাপাশি ক্লাব সদস্যরা বেশুমার স্বেচ্ছাশ্রম দিয়ে যাচ্ছেন। এতে একাই আর্থিকভাবে কানাডার রোটারি সদস্যদের অনুদানের পরিমাণ ৬৬ দশমিক ৬ মিলিয়ন ডলার বা ৪৩২ কোটি ৯০ লাখ টাকা। বাস্তবে রোটারি ১৯৮৫ সাল থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে একীভূত হয়ে পোলিও নির্মূলে সম্পৃক্ত রয়েছে। তাতে পর্যায়ক্রমে যুক্ত হয়েছে বিশ্ব শিশু তহবিল বা ইউনিসেফ, যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিরাময় কেন্দ্র এবং বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা ফাউন্ডেশন। ফলশ্রুতিতে ১৯৮৮ সাল নাগাদ বিশ্বে সংখ্যাগত দিক বিবেচনায় ৩ লাখ ৫০ হাজার পোলিও রোগাক্রান্ত মানুষ ২০১৭ সালে এসে মাত্র ২২-এ দাঁড়িয়েছে, অর্থাৎ নির্মূল সার্থকতা ৯৯ দশমিক ৯ শতাংশ।
এই বিস্ময়কর সাফল্য অর্জনে বাংলাদেশের রোটারি ক্লাবের পাশাপাশি তাদের যুবসংগঠন রোটার‌্যাক্ট ক্লাবও পিছপা থাকেনি। সেক্ষেত্রে টরন্টোর বিশ্ব সম্মেলনে বাংলাদেশ থেকে আসা দুই শতাধিক অংশগ্রহণকারী প্রভূত উদ্দীপ্ত হন। কেননা ১৯৮৯ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর ইউনিসেফের ক্রীড়াদূত ও বিশ্ব ক্রিকেট তারকা ইমরান খানের উপস্থিতিতে ‘আপনার শিশুকে টিকা দিন’ প্রচারণায় রোটারি ও রোট্যার‌্যাক্ট যথোপযুক্ত ভূমিকা রাখে, যা মিডিয়ায় সবিশেষ গুরুত্ব পায়। এতে এই প্রতিবেদক সেসময় সারা বাংলাদেশের নির্বাচিত রোটার‌্যাক্ট প্রতিনিধি হিসেবে জাতীয় সংসদ ভবন থেকে পান্থপথ অবধি ‘রোটাস্পোর্টস এইড’ নামের একটি ম্যারাথনে তিন শতাধিক রোট্যার‌্যাক্ট সদস্যকে নেতৃত্ব দেন। এবার তারই স্মৃতিচারণ ঘটে যথাক্রমে বাংলাদেশের বর্তমান ও ভবিষ্যত রোটারি গভর্নর অধ্যাপক ড. তৈয়ব চৌধুরী, খায়রুল আলম ও মোহাম্মদ রুবাইয়াত হোসেনের নেতৃত্বে আসা রোটারিয়ানদের মাঝে। পাশাপাশি সাবেক গভর্নররাও প্রাণবন্ত থেকেছেন। সম্মেলনের ‘হাউজ অব ফ্রেন্ডশিপ’-এর প্রবেশদ্বারে বিশ্বে রোটার‌্যাক্টের সুবর্ণজয়ন্তীর ব্যানারে ঢাকা ও ইসলামাবাদ চট্টলার টিকাদান কর্মসূচির দুটি ছবিও প্রেরণার স্ফূরণ ঘটিয়েছে। তা সত্ত্বেও অনুপ্রেরণার অনুষঙ্গ ছিল চীন থেকে ইউরোপ অবধি ১০ হাজার মাইলের সচেতনতামূলক শতাধিক প্রাচীন শিল্পত্বের গাড়িবহরের ‘টু এন্ড পলিও রোড ট্রেক’ উদ্যোগ, ২০৩০ সাল নাগাদ ক্ষুধামুক্তির প্রচেষ্টায় তহবিল উত্তোলনমূলক ‘রাইজ অ্যাগেইনস্ট হাঙ্গার’, বহুজাতিক সমাজসেবা ও শান্তি প্রতিষ্ঠার নিদর্শনগাঁথা, মনোরঞ্জনপূর্ণ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং ২০১৯ সালে জার্মানির হামবুর্গে অনুষ্ঠেয় পরবর্তী বিশ্ব সম্মেলনের প্রচারণা। সবটাই হৃদয়গ্রাহী, তদুপরি টরন্টো সিটি হলের সম্মুখে নানা দেশে সেবার নিদর্শন সূচক সচিত্র ‘রোটারি পিপল অব অ্যাকশন’ প্রদর্শনিটি ছিল আগ্রহোদ্দীপক; যেমনটা সম্মেলনের মূলভাবে বলা হয়েছে: ‘ইন্সপ্রেশন অ্যারাউন্ড এভরি কর্নার’।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত