প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

গাজীপুরে প্রত্যাশিত ফলাফল: পুরস্কৃত হচ্ছেন এমপি রাসেল

আসাদুজ্জামান সম্রাট : গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রত্যাশিত ফলাফলে স্থানীয় সংসদ সদস্য, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি জাহিদ আহসান রাসেলের ভুমিকায় সন্তষ্ট দলের কেন্দ্রীয় কর্মকাণ্ড। আগের নির্বাচনে আজমত উল্লাহর পরাজয়ের জন্য তাকে যেমন দায়ী করা হচ্ছিলো তেমনি এবারের জয়ে তাকে তার অবদানের বিষয়টিও বেশ আলোচিত হচ্ছে। আসন্ন নির্বাচন ও আওয়ামী লীগের সরকার গঠনে তার এই ভূমিকা মূল্যায়ন করা হবে বলে আশা করছেন গাজীপুরবাসী।

সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্থানীয় সংসদ সদস্যদের প্রচারণা নিষিদ্ধ থাকলেও সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল কৌশলী প্রচারণা চালান। নির্বাচনের আগে পুরো একমাস রমজান থাকায় বিভিন্ন এলাকায় তিনি ইফতার পার্টি দিয়ে দলীয় নেতা-কর্মী ও স্থানীয় জনগণকে সংগঠিত করে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে উদ্ধুদ্ধ করেন। দ্রুত বর্ধিষ্ণু এলাকা হওয়ায় টঙ্গীতে স্থানীয় মানুষের চেয়ে বাইরের বেশি মানুষ এসে বসতি স্থাপন করেছে। ফলে স্থানীয় অধিবাসীদের চেয়ে বাইরের অধিবাসী ভোটারের সংখ্যা বেশি। এ কারনে নির্বাচনী এলাকায় প্রচারণায় সাফল্য পাওয়াটাও অনেক কঠিন ছিল।

জাহিদ আহসান রাসেল জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন চলমান থাকলেও তিনি তাতে অংশ না নিয়ে স্থানীয় নেতা-কর্মী ও ভোটারদের সংগঠিত করতে দিনরাত কাজ করেছেন। ঢাকা থেকে যাওয়া কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে সমন্বয় এবং স্থানীয়ভাবে প্রচার-প্রচারণা নিবিড়ভাবে মনিটরিং করেছেন তিনি। পুরো নির্বাচনী ব্যবস্থা সমন্বয় করার কারনেই প্রত্যাশিত ফলাফল এসেছে বলে মনে করা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, পিতা শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টারের জনপ্রিয়তা এবং নিজের কাজের মধ্য দিয়ে টঙ্গীবাসীর প্রাণের মানুষ হয়ে গেছেন জাহিদ আহসান রাসেল। ফলে তার আহ্বানকে ফেলতে পারেননি স্থানীয় জনগণ।

জাহিদ আহসান রাসেল এই এলাকা থেকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে তিন তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। গাজীপুর সিটি করপোরেশনের গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আজমত উল্লাহ বিপুল ভোটের ব্যবধানে সাবেক প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের কাছে পরাজিত হয়েছিলেন। সে সময়ে জাহিদ আহসান রাসেলের সক্রিয়তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছিল। এর জবাবে তিনি অবশ্য বলেছিলেন, নির্বাচনের আগে ব্যাপক বৃষ্টিপাত হওয়া এবং জাতীয় রাজনীতির প্রভাব পড়েছিল ওই নির্বাচনে। এবারের নির্বাচন নিয়ে যাতে কেউ দোষারোপ করতে না পারেন তার জন্য আগে থেকেই সতর্ক ছিলেন জাহিদ আহসান রাসেল। নিজের নির্বাচনের চেয়ে বেশিমাত্রা খেটেছেন এবারের প্রার্থী নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের জন্য।

২৬ জুন ভোটের দিনে নিজ বাড়ির কেন্দ্রে লাইনে দাড়িয়ে ভোট দিয়ে বাসায় বসেই পুরো নির্বাচনী কর্মকান্ড মনিটরিং করেছেন তিনি। ভোটের দিনে লাইনে দাড়িয়ে তার ভোট দেয়ার ছবিটিও ইন্টারনেটে ভাইরাল হয়েছে। ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছে। রাজধানীর উপকণ্ঠে গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রত্যাশিত ফলাফলে তার উপর খুশি কেন্দ্রীয় নেতারাও। ইতিমধ্যে মেয়রের চেয়ে তাকেই বেশি অভিনন্দন জানাচ্ছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। ভোটের পরের দিন সংসদে মন্ত্রী-সংসদ সদস্যরা তাকে অভিনন্দন জানাচ্ছিলেন।

এই নির্বাচনের ফলাফল আওয়ামী লীগের বিপক্ষে গেলে তা সারাদেশেই একটি বিরুপ প্রভাব পড়তো। তখন রাসেলের ভ’মিকা নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ হতো। আশা করা হচ্ছে, নির্বাচনের এই ফলাফল আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং পরবর্তী সরকার গঠনের সময়ে মূল্যায়ন করা হবে।

তিনবারের জাতীয় সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল প্রায় নবম ও দশম সংসদে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। পর পর দু’টি সংসদে একই মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটির দায়িত্ব পালনের ঘটনা বিরল হেেল ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে সরকার গঠনের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদীয় কমিটি গঠনের ক্ষেত্রেও তার প্রতি আস্থা রেখেছেন। ভবিষ্যতে আরো বড়ো পরিসরে কাজ করাও সুযোগ দিতে পারেন তিনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত