প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রয়টার্সের প্রতিবেদন
রোহিঙ্গা নিধনে নেতৃত্ব দেয় সেনাবাহিনীর দুটি এলিট ডিভিশন (ভিডিও)

সাজিয়া আক্তার : রোহিঙ্গা উচ্ছেদে নেতৃত্ব দিয়েছে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ৩৩ ও ৯৯তম লাইট ইনফ্যানট্রি ডিভিশন। রয়টার্সের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, এমন তথ্য। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৭ সালের আগস্টে নিরাপত্তা বাহিনীর চৌকিতে সশস্ত্রগোষ্ঠী আরসার কথিত হামলার পাল্টা প্রতিক্রিয়া ছিল ওই নৃশংস অভিযান। পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা ও বার্মিজ সেনাদের সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে।

আগস্টের শুরুতে রাখাইনে ঘাঁটি গাড়েন, বার্মিজ সেনাবাহিনীর ৩৩ ও ৯৯ তম লাইট ইনফ্যানট্রি ডিভিশন শতশত সেনা। লক্ষ্য, রোহিঙ্গা বিরোধী অভিযান। ১০ আগস্ট বাঙালির মাংস খেতে চেয়ে ফেসবুক পোস্ট দেন তরুণ লেফটেন্যান্ট কিয়ে নিয়ান লিন। মন্তব্যে রোহিঙ্গা বিদ্বেষী প্রতিক্রিয়া জানান তার সহকর্মীরাও।

মিয়ানমার সেনাদের ফেসবুক স্ট্যাটাস বিশ্লেষণ করে এমন তথ্য দিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স। সংস্থাটি জানায়, খুব গোপনে এই বিশেষ দুই ডিভিশনের কার্যক্রম চললেও সামরিক কর্মকর্তাদের ফেসবুক স্ট্যাটাসে প্রকাশ পায় অনেক তথ্য। মিয়ানমারজুড়ে সংখ্যালঘু জাতিগোষ্ঠী দমনে কাজে লাগানো এই দুই পদাতিক ডিভিশনকে ডাকা হয় বার্মিজ সেনাবাহিনীর ‘টিপ অব দ্য স্পিয়ার’ বা ‘বর্ষার অগ্রভাগ’ নামে। যাদের সাথে ঘনিষ্ট যোগাযোগ রাখেন দেশটির সেনাপ্রধান।
এদিকে আইন সংশোধন করে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব প্রস্তাব প্রত্যাখান করেছে মিয়ানমার। মিয়ানমারকে পশ্চিমা কূটনীতিকদের সাথে বৈঠকে এই তথ্য জানান, মিয়ানমারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রী উইন মিয়াত আই।

মিয়ানমারের এমন অমানবিক আচরণের বিপরীতে মানবতার ঝান্ডা তুলে ধরেছে ইউএন চেম্বার মিউজিক সোসাইটি। রোহিঙ্গাদের সাহায্যে নিউ ইয়র্র্কে তারা আয়োজন করে কনসার্টের। যেখান থেকে পাওয়া টাকা বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের মাধ্যমে দেওয়া হবে বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের।

এ যখন অবস্থা মঙ্গলবার চীন সফর করেন মিয়ানমারের পার্লামেন্ট স্পিকার উইন খাইং থান। বৈঠক করেন চীনের ভাইস প্রেসিডেন্ট ওয়াং কিশানের সঙ্গে। পরে জানান, চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড কর্মসূচির আওতায় চীন-মিয়ানমার অর্থনৈতিক করিডোর গড়তে কাজ করে যাবে দুদেশ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত