প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মনে হচ্ছে ব্রাজিল ভালোভাবেই জিতবে

স্পোর্টস ডেস্ক : প্রতিবারের মতো এবারের বিশ্বকাপেও ব্রাজিল দারুণ দল। আশা করি তারাই জিতবে। তারা ড্র করলেও উঠে যাবে। আমার মনে হয় দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠাটাই জরুরি। বিশ্বকাপ ইতোমধ্যে জমে উঠেছে। আবার ভালো ভালো দলগুলোও দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠে যাচ্ছে। আমার প্রত্যাশা আজকের ম্যাচে সার্বিয়ার বিপক্ষে ভালোভাবেই জিতবে ব্রাজিল। না জিতলেও যেন ড্র করে আরামে উঠে যায়।

আমার মনে হয় না সার্বিয়া পেরে উঠবে। তারা একটি ম্যাচ জিতেছে, ঠিক আছে। কিন্তু যত যাই হোক, এমন ম্যাচে ব্রাজিলের বিপক্ষে জেতা খুব কঠিন। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ব্রাজিল আরও ভালো খেলবে বলে আমার ধারণা। যত ম্যাচ যাবে, ব্রাজিল তত কঠিন প্রতিপক্ষ হয়ে উঠবে। ব্রাজিল দলটাই এমন। শেষ ম্যাচ জিতে সেই পথেই আছে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা। সেদিক থেকে সার্বিয়ার জন্য খুবই কঠিন হবে ম্যাচটি। এই ম্যাচে আমার কাছে ব্রাজিলই ফেবারিট।

এই পথে নেইমারকে দায়িত্ব নিতে হবে। সে দলের সেরা খেলোয়াড়। কিন্তু সত্যি বলতে প্রথম দুই ম্যাচে তাকে আমার সেভাবে চোখে পড়েনি, যা করার কোটিনহো একাই করেছে। কোটিনহো যেভাবে খেলছে, সঙ্গে যদি নেইমারকে পায়, তাহলে এই ব্রাজিল মুহূর্তেই অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠবে। কারণ ডিফেন্স, মিডফিল্ড, অ্যাটাক; সবকিছুই দারুণ ব্রাজিল দলের। দরকার বোঝাপড়াটা। সেটাই হলেই চেনা চেহারায় দেখা যাবে পেলের দেশকে।

সার্বিয়ারও সুযোগ আছে নকআউট পর্বে যাওয়ার। ব্রাজিলকে হারাতে পারলে তারা উঠে যাবে শেষ ষোলোয়। এ দিকটা বিবেচনা করলে নিজেদের শেষটা দিয়েই খেলবে তারা। টিকে থাকতে হলে জয়ের জন্যই খেলতে হবে তাদের। আগের দুই ম্যাচের মতো রক্ষণাত্মক খেলার সুযোগ নেই সার্বিয়ার। আর তারা আক্রমণাত্মক খেললে এটা আবার ব্রাজিলের জন্য সুবিধার হবে বলে মনে হচ্ছে। সব মিলিয়ে ব্রাজিলের পক্ষেই আমার বাজি।

এই গ্রুপ থেকে ব্রাজিলের মতো সুইজারল্যান্ডেরও চার পয়েন্ট। তাদের চোখও শেষ ষোলোয়। এমন অবস্থায় তাদের মুখোমুখি হতে হচ্ছে কোস্টারিকার, যারা কি না ব্রাজিলের বিপক্ষে দারুণ লড়াই করেছে। বিদায় নিশ্চিত হয়ে যাওয়ায় তাদের হারানোর কিছু নেই। স্পেনের বিপক্ষে মরক্কোর হারানোর কিছু ছিল না। তারা কিন্তু স্প্যানিশদের রুখে দিয়েছে। এমন কিছু হলে সুইজারল্যান্ডের জন্য ম্যাচটি সহজ হবে না।

পরীক্ষার সামনে জার্মানিও। দক্ষিণ কোরিয়াকে হারিয়েই দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠতে হবে তাদের। এই ম্যাচে আমি জার্মানিকে এগিয়ে রাখতে চাই। শেষ ম্যাচে জয় পাওয়ায় তারা কিছুটা ছন্দ ফিরে পেয়েছে। এ ছাড়া বিশ্বকাপের ইতিহাস বলে, খালি হাতে বাড়ি ফিরছে না তারা। যদিও এই গ্রুপটায় জটিল সমীকরণ আছে।

কারণ মেক্সিকোর বিপক্ষে সুইডেন জিতে গেলে তাদের পয়েন্ট হবে ৬। দক্ষিণ কোরিয়াকে হারাতে পারলে জার্মানির পয়েন্টও হবে ৬। তখন মেক্সিকো, সুইডেন ও জার্মানি; তিন দলের পয়েন্টই হয়ে যাবে ৬। এ ক্ষেত্রে মেক্সিকো-সুইডেন ম্যাচটির ওপর অনেক কিছু নির্ভর করছে। এই ম্যাচে আমি মেক্সিকোকে এগিয়ে রাখব কিছুটা। প্রথম দুই ম্যাচ জেতায় মানসিকভাবে কিছুটা এগিয়ে থাকবে তারা। কিন্তু এটাও মাথায় রাখতে হবে, শেষ ষোলোর টিকেট কাটতে সম্ভাব্য সব চেষ্টায় করবে সুইডেন।

গত রাতে আর্জেন্টিনার ম্যাচটি দারুণ ছিল। আমি নিশ্চিত, মেসির কাছ থেকে এমন পারফরম্যান্সই আশা করে আর্জেন্টাইনরা। কারণ লিডারশিপের একটা ব্যাপার থাকে, যেটা দেখতাম ম্যারাডোনার মধ্যে। ম্যারাডোনা মাঠের বাইরে থাকলেও খেলোয়াড়রা উজ্জীবিত হতো। আমরা দর্শক, তারপরও উজ্জীবিত হই। তার মধ্যে আলাদা একটা ব্যাপার ছিল। এখন যে তিনি গ্যালারিতে বসে খেলা দেখেন, আমার ধারণা, এতেও অনুপ্রেরণা পায় বর্তমান আর্জেন্টিনা দল।

আর্জেন্টিনার যেসব সমর্থক আছে বা আমরা যারা আর্জেন্টিনার না হয়েও এই দলটির সমর্থক, তারাও চাই, ম্যারাডোনার মতো কিছু একটা করুক মেসি। মাঠে যখন পুরো দলকে নিয়ে মেসি খেলে, তখন আর্জেন্টিনা অসাধারণ দলে পরিণত হয়। এটাই দরকার তাদের জন্য। গত ম্যাচে দল হিসেবে খেলেছে তারা। এ কারণেই নাইজেরিয়ার বিপক্ষে জেতা সম্ভব হয়েছে।

মেসিকেও অন্যরকম মনে হয়েছে। লিডারশিপের ব্যাপারটি তার মধ্যে দেখা গেছে। খেলোয়াড়দের অনুপ্রেরণা দিতে মাঠে নেমে সবার সঙ্গে কথা বলেছে সে। মেসি নাকি বলেছে, সে গোল দেবেই। সবাই যেন প্রাণপণে লড়ে। এই ব্যাপারটাই দরকার ছিল আর্জেন্টিনা দলের জন্য। মেসি তার খেলাটা খেলে ফেললে জয় পাওয়া সহজ হয়ে যায়। কিন্তু মাসচেরানো, বানেগা ও রোহো অসাধারণ খেলেছে। বিশেষ করে মাসচেরানো দুর্বার ছিল। এই তিনজন জ্বলে না উঠলে ম্যাচ জেতা কঠিন হতো আর্জেন্টিনার জন্য। প্রিয়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত