প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিএবি’র অ্যাক্রেডিটেশন সনদ পেয়েছে ৫৯টি প্রতিষ্ঠান

স্বপ্না চক্রবর্তী : প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধির ফলে বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন বোর্ড (বিএবি) ইতোমধ্যে ৫৯টি দেশি-বিদেশি ল্যাবরেটরি ও প্রতিষ্ঠানকে অ্যাক্রেডিটেশন সনদ প্রদানে সক্ষম হয়েছে। এর মধ্যে ৪৭টি টেস্টিং ল্যাবরেটরি, ৬টি ক্যালিব্রেশন ল্যাবরেটরি, ২টি মেডিক্যাল ল্যাবরেটরি, ২টি ইন্সপেকশন সংস্থা ও ২টি সনদ প্রদানকারী সংস্থা রয়েছে। বর্তমান সরকারের নীতি সহায়তা ও পৃষ্ঠপোষকতার ফলে বিএবি’র পরিচিতি দেশের গণ্ডি পেরিয়ে এশিয়া অঞ্চলসহ আন্তর্জাতিক পরিম-লে ছড়িয়ে পড়েছে।

বুধবার বিশ্ব অ্যাক্রেডিটেশন দিবস ২০১৮ উদ্যাপন উপলক্ষে বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন বোর্ড (বিএবি) আয়োজিত আলোচনায় সভায় এ তথ্য জানানো হয়। শিল্প মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শিল্প সচিব ও বিএবি’র পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ্।

বিএবি’র মহাপরিচালক মো. মনোয়ারুল ইসলামের সভাতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে বিএসটিআই’র মহাপরিচালক সরদার আবুল কালাম, বিএবি’র বোর্ড সদস্য ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জীব বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. এম. ইমদাদুল হক, বাংলাদেশ আণবিক শক্তি কমিশনের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শমশদ কোরোয়াসী, প্রাণআরএফএল গ্রুপের মান নিয়ন্ত্রণ বিভাগের প্রধান মারুফ কবির এবং আন্তর্জাতিক ল্যাবরেটরি এসজিএস বাংলাদেশ লিমিটেডের প্রতিনিধি মোস্তাক পারভেজ বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বিশ্বায়নের প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে, বাংলাদেশে উৎপাদিত পণ্যের গুণগতমান আন্তর্জাতিক পর্যায়ে উন্নীত হতে হবে। এ লক্ষ্যে অ্যাক্রেডিটেশন সনদ অর্জন একটি গুরুত্বপূর্ণ হাতিয়ার। এটি অর্জন করা গেলে, আন্তর্জাতিক বাজারে কোনো ধরনের প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই দেশিয় পণ্য প্রবেশে সক্ষম হবে। বিএবি প্রতিষ্ঠার ফলে ব্যবসায়ী ও শিল্প উদ্যোক্তাদের জন্য অ্যাক্রেডিটেশন সনদ অর্জনের পথ সুগম হয়েছে। প্রতিবেশি দেশ ভারতসহ আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে ইতোমধ্যে বাংলাদেশ এর সুফল পেতে শুরু করেছে। তারা বিএবি’র সেবাদান কার্যক্রম শক্তিশালী করতে এর কারিগরি জনবল বৃদ্ধি ও প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা জোরদারের সুপারিশ করেন। একই সাথে তারা দেশি-বিদেশি শিল্প উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে বিএবি’র পরিচিতি বাড়ানোর তাগিদ দেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পসচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ্ বলেন, বিএবি’র কার্যক্রম জোরদারের ফলে বাংলাদেশি পণ্য ও সেবার গুণগত মানোন্নয়ন সম্ভব হয়েছে। বাংলাদেশি পণ্য ধীরে ধীরে উন্নত দেশগুলোর বাজারে প্রবেশ করছে। এর ফলে বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিংয়ের সুযোগ বাড়ছে এবং বিশ^বাণিজ্যে বাংলাদেশের অবস্থান শক্তিশালী হচ্ছে। এর ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে বিএবি’র প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা ও জনবল বৃদ্ধির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

শিল্পসচিব সেবাদানের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করতে বিএবি’র কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নির্দেশনা দেন। তিনি শিল্পসমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত রূপকল্প-২০২১ ও ২০৪১ এবং এসডিজি-২০৩০ এর সফল বাস্তবায়নে সময়, অর্থ ও পরিদর্শন সাশ্রয়ের নীতির ভিত্তিতে সেবাদান প্রক্রিয়া জোরদারের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত