প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

স্কুলমাঠে খেলতে মানা

ডেস্ক রিপোর্ট:  রাজধানীর তুরাগের একটি স্কুলের দীর্ঘদিনের খেলার মাঠে খেলাধুলায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছেন প্রধান শিক্ষিকা ও ম্যানেজিং কমিটি।

ফলে ছাত্রছাত্রী ও এলাকাবাসীর মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ মাঠে খেলতে আসা তরুণদের স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা হুমকি-ধমকি দিচ্ছে ও পুলিশ দিয়ে হয়রানি করারও অভিযোগ রয়েছে।

জানা গেছে, তুরাগের হরিরামপুর ইউনিয়নে ছোটবড় ৩৩টি গ্রাম রয়েছে। ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত হরিরামপুর ইউনিয়ন পরিষদ। এ ইউপিতে রয়েছে দুটি থানা। ইউনিয়নে খেলাধুলার জন্য কামারপাড়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও ধউর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি মাঠ রয়েছে। এর মধ্যে ধউর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠটিতে খেলাধুলায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

প্রাথমিক বিদ্যালয়টির ছাত্র কবির ও নয়ন বলেন, এক সময় স্কুলের টিফিনের সময় খেলাধুলা করতাম। মাঠে খেলার জন্য ছাত্রছাত্রীদের কাছ থেকে একটা অংশের টাকা দিয়েও খেলেছি।

গত রোজার আগে মাঠটিতে একটি লীগ খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এ খেলাকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে কিছু লোক আহত হয়। এ ঘটনার পর থেকে ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা এ মাঠে খেলা বন্ধ করে দেয়।

ছাত্রছাত্রীরা অভিযোগ করে বলেন, আগে স্কুলে আসার আগে ও পরে অনেক খেলাধুলা করতে পারতাম। লীগ খেলা নিয়ে সংঘর্ষের পর থেকে এ মাঠে প্রধান শিক্ষিকা নাসরিন সুলতানাসহ ম্যানেজিং কমিটি খেলতে দেয় না।

সরেজমিনে ধউর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, স্কুলের খেলার মাঠে ইট, বালু ও রড দিয়ে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করা হচ্ছে। স্কুল শিক্ষার্থী ছাড়া বাইরের কাউকে খেলতে না দিতে এ সীমানা প্রাচীর নির্মিত হচ্ছে।

কথা হয় স্থানীয় বাসিন্দা মো. আকাশের সঙ্গে। তিনি জানান, আগে এ মাঠে এলাকার ছেলেমেয়েরা খেলাধুলা করলেও এখন সীমানা প্রাচীর নির্মাণের কারণে খেলাধুলা বন্ধ রাখা হয়েছে। হঠাৎ করে খেলাধুলা বন্ধ হওয়ায় নিজের কাছে অনেক খারাপ লাগছে। স্কুল মাঠটি খেলাধুলার জন্য উন্মুক্তের দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসী।

ধউর এলাকার মো. আকরাম বলেন, বিকালে মাঠে খেলতে নামলে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দেয়। এ ভয়ে গত তিন মাস ধরে এ মাঠে খেলতে পারছি না।

ধউর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ ছাড়া আশপাশে অন্য কোনো মাঠ নেই। খেলাধুলা ছেড়ে দেয়ার পর থেকে অবসর সময় আর ভালো লাগছে না। মাঠ থাকা সত্ত্বেও খেলাধুলা করতে পারছি না।

এতে করে আমাদের মতো তরুণ প্রজন্ম মাদকসহ বিভিন্ন অপকর্মে জড়িয়ে পড়বে বলে মনে করছি। কামারপাড়া এলাকার মো. আবদুল হাকিম বলেন, তুরাগ জুড়ে দুটি খেলার মাঠের মধ্যে ধউর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে খেলাধুলা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এতে করে যুবসমাজ ধ্বংসের দিকে পতিত হবে।

কয়েক মাস ধরে খেলাধুলা করতে টঙ্গীর প্রত্যাশা’র মাঠে যেতে হচ্ছে। ব্যস্ততম ঢাকা-আশুলিয়া সড়ক পার হতে হয়। শনিবার আমার এক বন্ধু সড়ক পার হতে গিয়ে অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যায়।

তুরাগবাসীর দাবি দ্রুত ধউর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠটি সবার জন্য উন্মুক্ত করা হোক। এতে আমাদের যুবসমাজ মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড থেকে মুক্তি পাবে।

এ বিষয়ে ধউর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি উত্তম কুমার বিশ্বাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি যুগান্তরকে বলেন, স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি আলোচনা করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।

এ বিষয়ে ধউর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা নাসরিন সুলতানার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি যুগান্তরকে বলেন, স্কুলের মাঠে খেলাধুলা বন্ধ কেন এটা কোনো খবরের বিষয় না। এছাড়া স্কুলের চারদিকে সীমানা প্রাচীর নির্মিত হচ্ছে। ম্যানেজিং কমিটির অনুমতিসাপেক্ষে ছাত্রছাত্রীদের খেলাধুলার অনুমতি দেয়া হবে। তবে বহিরাগত কাউকে এ স্কুলমাঠে খেলতে দেয়া হবে না। সূত্র: যুগান্তর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত