প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

হাসান সরকারের চেয়ে দেড় লাখ ভোটে এগিয়ে জাহাঙ্গীর

ডেস্ক রিপোর্ট : গাজীপুর থেকে: গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে প্রায় দেড় লাখ ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম। বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে, ৪২৫টি কেন্দ্রের মধ্যে ৩০৪ কেন্দ্রের ফলে নৌকা প্রতীকে জাহাঙ্গীর আলম পেয়েছেন ৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫২ ভোট; তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ প্রতীকে হাসান উদ্দিন সরকার পেয়েছেন ১ লাখ ৪৫ হাজার ৯৩৭ ভোট। দু’জনের ভোটের ব্যবধান ১ লাখ ৬৫ হাজার ৫১৫।

তবে এখন পর্যন্ত নগরীর বঙ্গতাজ অডিটোরিয়ামে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে বেসরকারিভাবে ৯১টি কেন্দ্রের ফল ঘোষণা করা হয়েছে। এতে নৌকা প্রতীকে জাহাঙ্গীর আলম পেয়েছেন ৭৭ হাজার ৭৩৩ ভোট, ধানের শীষে হাসান উদ্দিন সরকার পেয়েছেন ৪৪ হাজার ৭২১ ভোট। রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন মন্ডল এই ফল ঘোষণা করেন।
এই নির্বাচনে মেয়র পদে মোট সাত জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুই প্রার্থীর বাইরে বাকি পাঁচ প্রার্থী হলেন– ইসলামী ঐক্যজোটের ফজলুর রহমান (মিনার), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. নাসির উদ্দিন (হাতপাখা), বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মো. জালাল উদ্দিন (মোমবাতি), বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির কাজী মো. রুহুল আমিন (কাস্তে) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরিদ আহমদ (টেবিল ঘড়ি)। তবে জাহাঙ্গীর আলম ও হাসান উদ্দীন সরকার বাদে বাকি পাঁচ প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোট হাতেগোনা।

এর আগে, মঙ্গলবার (২৬ জুন) সকাল ৮টায় ৫৭টি ওয়ার্ডের ৪২৫টি ভোটকেন্দ্রের ২ হাজার ৭৬১টি কক্ষে একযোগে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। এই সিটির ১৯টি সংরক্ষিত নারী ও ৫৭টি সাধারণ ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ লাখ ৬৯ হাজার ৯৩৫ জন, নারী ভোটার ৫ লাখ ৬৭ হাজার ৮০১ জন।

দুয়েকটি বিক্ষিপ্ত ঘটনা ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে বলে দাবি করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, স্থগিত হওয়া ৯টি কেন্দ্র ছাড়া বাকি সব কেন্দ্রে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ এবং শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে ।প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) কে এম নুরুল হুদার নেতৃত্বে নির্বাচন কমিশন সারাদিন বিভিন্ন মাধ্যমে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করেছে। কোথাও কোনো অনিয়ম বরদাস্ত করা হয়নি।
সকাল ৯টা ১৪ মিনিটে নিজ গ্রাম কানাইয়া এলাকার কানাইয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম। আর সকাল ৮টা ১২ মিনিটে টঙ্গীর আউচপাড়ায় বশির উদ্দিন উদয়ন একাডেমিতে ভোট দেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার।

এই নির্বাচনে ছয়টি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোট নেওয়া হয়। কেন্দ্রগুলো হলো- চাপুলিয়া মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ( ভোটার সংখ্যা ২৪৮০), চাপুলিয়া মফিজউদ্দিন খান উচ্চ বিদ্যালয় (ভোটার সংখ্যা ২৫৫২), পশ্চিম জয়দেবপুরের মারিয়ালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র-১ (ভোটার সংখ্যা ২৫৬২), মারিয়ালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে-২ (ভোটার সংখ্যা ২৮২৭), রাণী বিলাসমণি সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র-১ (ভোটার সংখ্যা ১৯২৭) ও রাণী বিলাসমণি সরকারি বালক উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে-২ ( ভোটার সংখ্যা ২০৭৭)।

এদিকে বিশৃঙ্খলা অভিযোগে ৯টি কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন। স্থগিত হওয়া কেন্দ্রগুলো হলো— ভোগড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (কেন্দ্র নম্বর ৯৮, ভোটার সংখ্যা ৩২০১), মদিনাতুল উলুম সিনিয়র মাদ্রাসা (কেন্দ্র নম্বর ১৬৬, ভোটার সংখ্যা ২৫৫২), কুনিয়া হাজী আ. লতিফ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নারী ও পুরুষ কেন্দ্র (কেন্দ্র নম্বর ২৪৩ ও ২৪৪; ভোটার সংখ্যা ৩৩০২ ও ৩৩২৭), বিন্দান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (কেন্দ্র নম্বর ২৭৪, ভোটার সংখ্যা ১৮০৩), জাহান পাবলিক স্কুল (কেন্দ্র নম্বর ৩৪২, ভোটার সংখ্যা ২০০৩), খরতৈল মনসুর আলী আদর্শ বিদ্যালয়ের নারী ও পুরুষ কেন্দ্র (কেন্দ্র নম্বর ৩৭২ ও ৩৭৩; ভোটার সংখ্যা ২৬১৭ ও ২৭৫১), হাজী পিয়ার আলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (কেন্দ্র নম্বর ৩৮১, ভোটার সংখ্যা ২৪০৩)। স্থগিত হওয়া কেন্দ্রগুলোর মোট ভোটার সংখ্যা ২৩ হাজার ৯৫৯। সূত্র : সারা বাংলা

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত