প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ব্যবসা সরিয়ে নিতে চাওয়ায় হার্লের সমালোচনা ট্রাম্পের

আসিফুজ্জামান পৃথিল : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন হার্লে ডেভিডসন কখনই বিদেশে তৈরী হওয়া উচিৎ নয়। তিনি কোম্পানিটির ব্যবসা ইউরোপে সরিয়ে নেবার কঠোর সমালোচনা করেন তিনি।

ট্রাম্প বলেছেন কোম্পানিটির নতুন থাই প্ল্যান্ট এক রকমের আত্ম সমার্পন এবং শেষের শুরু। গত সপ্তাহে মার্কিন পণ্যের উপর শুলক আরোপ করে ইউরোপিয় ইউনিয়ন। এর মধ্যে রয়েছে কমলার রস, বুঁর্বোঁ এবং মটর সাইকেল। হার্লে ডেভিডসন জানিয়েছে এই শুল্কের ফলে তাদের খরচ বেড়ে যাবে। স্টিল এবং অ্যালুমেনিয়ামের উপর মার্কিন শুল্কের প্রতিশোধমূলক ব্যবস্থা হিসেবে এই শুল্কারোপ করে ইউরোপ।

এদিকে সোমবার হেির্ল জানিয়েছিলো, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে আমদানিকৃত পণ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাড়তি শুল্ক এড়াতে যুক্তরাষ্ট্র থেকে বেশকিছু উৎপাদন কেন্দ্র স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা। এসময় তারা জানায়, ইউরোপীয় ইউনিয়নের আরোপিত শুল্কের ফলে কোম্পানিটিকে বাৎসরিক ৯০ মিলিয়ন থেকে ১০০ মিলিয়ন অতিরিক্ত বাণিজ্য শুল্ক দিতে হবে।

হার্লে ডেভিডসন জানায়, এই বাড়তি শুল্ক তাদের পণ্যের দাম বৃদ্ধি করবে এবং প্রতিযোগীদের কাছে তাদের বাজার হারানোর সম্ভবনা সৃষ্টি করবে। এই সমস্ত চিন্তা মাথায় রেখেই তারা যুক্তরাষ্ট্র থেকে তাদের বেশ কিছু উৎপাদন কেন্দ্র তাদের আন্তর্জাতিক কারখানাগুলোতে সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করেছেন।

রয়টার্স জানায়, হার্লে ডেভিডসনের মতো কোম্পানির এমন সিদ্ধান্ত মূলত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বাণিজ্য নীতির পাল্টা বুমেরাং হিসেবে দেখা হচ্ছে। ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রে কর্মসংস্থান বৃদ্ধির লক্ষ্যেই ইউরোপিয় ইউনিয়নের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেন ট্রাম্প। কিন্তু, ইউরোপের পাল্টা শুল্কারোপ হার্লে ডেভিডসনের মতো অনেক মার্কিন কোম্পানিকেই যুক্তরাষ্ট্রের বাহিরে তাদের কারখানা সরিয়ে নিতে প্রলুদ্ধ করবে। ফলে, যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য নীতির সুফলের চাইতে এতে কর্মসংস্থান কমে সামগ্রিক অর্থনীতির ক্ষতিগ্রস্থ হবার সম্ভাবনাই অনেক বেশী। -বিবিসি, রয়টার্স

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত