প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘দেখিয়ে দেওয়ার’ দিন আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক : রংপুর সিটি নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ায় অনেকের আস্থা অর্জন করেছিল নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তবে সদ্যসমাপ্ত খুলনা সিটি নির্বাচনে সহিংসতার ঘটনা না ঘটলেও ভোট কারচুপির অভিযোগ তোলে বিএনপি। কয়েকটি গণমাধ্যমও অনিয়মের খবর প্রকাশ করে। তাই তিন সিটি ও জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে গাজীপুর সিটিতে সুষ্ঠু ভোটগ্রহণের মাধ্যমে নিজেদের সক্ষমতা দেখিয়ে দেওয়ার সুযোগ বলে মনে করছেন অনেকে। সুষ্ঠু ভোটগ্রহণে নিজেদের প্রস্তুতির কথাও জানিয়েছে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি।

বিএনপি শুরু থেকেই গাজীপুরে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে আসছে। তবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতারা বরাবরই তা নাকচ করেছেন। এমনকি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও গাজীপুরে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে নির্দেশ দিয়েছেন। এ পর্যায়ে আজকে শতভাগ সুষ্ঠু একটি নির্বাচন হবে বলে সব মহল আশা করছে।  খবর দৈনিক আমাদের সময়’র।

নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম বলেছেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশন সব ধরনের ব্যবস্থাই নিয়েছে। আমাদের চেষ্টার ত্রুটি থাকবে না। আমরা আইনমাফিক নির্বাচন করব।

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা রকিব উদ্দিন মণ্ডল ভোটের আগের দিন সাংবাদিকদের বলেন, যদি কেউ নির্বাচনে অন্যায়-অনিয়ম করে তাদের বিরুদ্ধে আমাদের কড়া মেসেজ দেওয়া হয়েছে। নির্বাচনের কাজে যদি কেউ বিঘ্ন সৃষ্টি করে, সে প্রার্থী হতে পারে বা সমর্থক হতে পারে বা কোনো অফিসিয়াল হতে পারে, তাদের বিরুদ্ধে কড়া আইনানুগ ব্যবস্থা নেব। তিনি আরও বলেন, আমরা স্পষ্ট বলে দিয়েছি প্রশাসন বা কোনো কর্তৃপক্ষ যদি নির্বাচনে বাধার সৃষ্টি করে, প্রত্যক্ষভাবে হোক বা পরোক্ষভাবে হোক, কাউকে ছাড় দেব না। আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।

আগামী ৩০ জুলাই বরিশাল, রাজশাহী ও সিলেট সিটি করপোরেশনে নির্বাচন। চলতি বছরের ডিসেম্বরে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। তাই সরকার নির্ধারণের এই নির্বাচনের বছরে রাজধানীর নিকটবর্তী সিটির নির্বাচন সব দলের কাছে বেশ গুরুত্বপূর্ণ। এ নির্বাচনকে গুরুত্বসহকারে পর্যবেক্ষণ করছেন বিদেশিরাও। বেশ কয়েকটি দেশের রাষ্ট্রদূতরাও গাজীপুরে গিয়ে মেয়রপ্রার্থীদের সঙ্গে সাক্ষাৎও করেছেন। সুষ্ঠু ভোটগ্রহণের বিষয়ে তাদের পর্যবেক্ষণ থাকবে বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন। এসব বিবেচনায় গাজীপুর সিটি নির্বাচন সবার কাছে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন অনেকে।

ইসি কর্মকর্তারা বলেন, খুলনা সিটি নির্বাচন নিয়ে কারচুপির অভিযোগ আছে। সামনে জাতীয় সংসদ নির্বাচন, তাই সবার নজর এখন গাজীপুরে। সুষ্ঠু ভোটগ্রহণে ইসির ভূমিকার দিকেও দৃষ্টি থাকবে অনেকের। তাই এ নির্বাচন নিজেদের সক্ষমতা প্রমাণের একটি সুযোগ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত