প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সার্বজনীন পেনশন কাঠামো চূড়ান্ত হয়নি

সাজিয়া আক্তার : বাজেটে ঘোষনা এলেও এখনো সবার জন্য পেনশন ব্যবস্থা কাঠামো চূড়ান্ত হয়নি। তবে ধাপে ধাপে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে পেনশন শুরুর পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। অর্থনৈতিক বিদরা বলছেন বিশাল এই কর্মযজ্ঞের আর্থিক চাহিদা এবং কাঠামোগত সক্ষমতা যাচাই করে নেয়া জরুরী।

সরকারি চাকরি করছেন প্রায় ১৫ লাখ মানুষ, যা কর্মক্ষম জনগোষ্ঠীর মাত্র ৫ ভাগ। এই গুটি কয়েক মানুষেই চাকরি শেষে পেনশনের সস্থি পাচ্ছেন। অথচ বেসরকারি চাকরিজীবীদের জন্য ২০১৪ সালে প্রাইভেট রেকর্ড কোম্পানি এবং প্রাইভেট ট্রাস্ট গঠনের কথা ছিল। অর্থ সহায়তা দিতে রাজি ছিল বিশ্ব ব্যাংকও। কিন্তু অর্থমন্ত্রণালয়ে ব্যাংকিং আর অর্থ বিভাগের জটিলতায় সে উদ্যোগ ভেস্তে যায়।

৪ বছর পর আবারো এসেছে সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থার ঘোষণা।

অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, প্রথম স্থরে আমরা সরকারিতে আসছি এবং পরে স্থরে বেসরকারি গেলাম, মাল্টিন্যাশনাল, এফ বি সিসি আই আরো অনেকের সাথে আলোচনা করেছি। এগ্রি বিজনেস, ফিশারি সেক্টরে, পোল্ট্রি,ব্যবসা করছে এমন আরো অনেক শ্রমিক আছে তাদের জন্য পেনশননের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এই কার্যক্রম শেষ করতে দেড়ি হবে না ৫ থেকে ৭ বছরের মধ্যেই ব্যবস্থা হবে।

একেবারে গোরার পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রস্তাবিত সার্বজনীন পেনশন তহবিল হবে অংশিদারিত্বের ভিত্তিতে। মূল বেতনের ১০ শতাংশ তহবিলে জমা দিবেন চাকরিজীবী, সম পরিমান টাকা দিবেন মালিক পক্ষও। তহবিল পরিচালনা করবে ন্যাশনাল পেনশন অথরিটি।

গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, বেসরকারি খাতের আকার অনেক বড়, এটি একটি বড় রকমের আর্থিক যোগ্য, বড় রকমের ব্যবস্থাপনা ইসু এবং এটিকে পূর্ণাঙ্গভাবে সূচালো বাস্তবায়ন করাটা অনেক বেশি জটিল। সেদিক থেকে সরকার ধাপে ধাপে বাস্তবায়নের কথাটি বিবেচনা করতে পারে।

রেজিস্টার অফ জয়েন্ট স্টক কোম্পানি এন্ড ফার্মসে বর্তমানে নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২ লাখ ১৬ হাজার ৬২৩টি। যার মধ্যে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২ লাখ ১ হাজার ৩৫৫টি।

সূত্র : ডিবিসি টেলিভিশন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত