প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

গানের রাজাকে মনে পড়ে

বিনোদন ডেস্ক : ‘পপ কিং’ মাইকেল জ্যাকসনের নবম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। কিংবদন্তি এ শিল্পী ২০০৯ সালের এ দিনে লসঅ্যাঞ্জেলেসে তার নিজ বাড়িতে রহস্যজনকভাবে মৃত্যুবরণ করেন। তার আকস্মিক মৃত্যু পুরো বিশ্বকে নাড়া দেয়। মাইকেল জ্যাকসন ১৯৫৮ সালের ২৯ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন। মাত্র ১১ বছর বয়সেই তিনি পেশাদার সংগীতশিল্পী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন।

‘জ্যাকসন ফাইভ’ নামের সংগীতগোষ্ঠীর সদস্য হিসেবে গান গাইতেন তিনি। অর্থকষ্টের বাধা ও পারিবারিক নির্যাতন ডিঙিয়ে অনেক ছোট বয়সে আফ্রো-আমেরিকান বংশোদ্ভূত জ্যাকসন গাইতে শুরু করেন। তার উত্থান যেন এক রূপকথার কাহিনি। ১৯৭১ সাল থেকে মাইকেল একক শিল্পী হিসেবে গান গাইতে শুরু করেন। পপ সম্রাট হিসেবে কোটি মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নেওয়া মাইকেলের গাওয়া পাঁচটি সংগীত অ্যালবাম বিশ্বের সর্বাধিক বিক্রীত রেকর্ডের মধ্যে রয়েছে। ১৯৭৯ সালে জ্যাকসনের প্রথম সলো অ্যালবাম ‘অব দ্য ওয়াল’ প্রকাশ হয়। যার ১০ মিলিয়ন কপি বিক্রি হয়। পরবর্তী সময়ে বের হওয়া সবকটি অ্যালবামই সুপারহিট হয়।

অ্যালবামগুলো হলোÑ থ্রিলার (১৯৮২), ব্যাড (১৯৮৭), ডেঞ্জারাস (১৯৯১) ও হিস্টোরি (১৯৯৫)। ১৯৮২ সালে বের হওয়া ‘থ্রিলার’ মাইকেল জ্যাকসনের সেরা অ্যালবাম। এ অ্যালবাম দিয়ে গোটা বিশ্বকে মাত করেন মাইকেল জ্যাকসন। মূলত তখন থেকেই তার মাথায় পপ সাম্রাজ্যের মুকুট। তার জীবনযাত্রাতেও ছিল বৈচিত্র্য। বারবার নিজেকে বদলেছেন। চুল, চেহারা, এমনকি চমৎকার রঙও। মাইকেল জ্যাকসন দুবার ‘রক অ্যান্ড রোল হল অব ফেম’ নির্বাচিত হন। গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস অনুসারে মাইকেল সর্বকালের সবচেয়ে সফল শিল্পী। তার ঝুড়িতে ১৩টি গ্র্যামি পুরস্কার, ১৩টি নাম্বার ওয়ান সিঙ্গেল এবং ৭৫ কোটি অ্যালবাম বিক্রির রেকর্ড রয়েছে। তিনি একাধারে ছিলেন গায়ক, গীতিকার, নৃত্যশিল্পী, অভিনেতা ও ব্যবসায়ী। নয় বছর আগে পৃথিবী ছেড়ে গেলেও তিনি বেঁচে আছেন অগণিত ভক্তের হৃদয়ে। সূত্র : আমাদের সময়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত