প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বদলে যাচ্ছে রাতের খুলনা!

নিজস্ব প্রতিবেদক : সাড়ে ২২ কোটি টাকা ব্যয়ে খুলনা সিটি করপোরেশনের ৫২ কিলোমিটার সড়কে সোলার এলইডি ও নন এলইডি সড়কবাতি স্থাপন করা হচ্ছে। কার্বন নিঃসরণ কমানো ও বিকল্প উৎসের ব্যবহার নিশ্চিত করতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ২০৬৮টি সাদা রঙের ল্যাম্পপোস্টে জ্বলবে সাদা আলো। এতে বিদ্যুৎ ব্যয় কমবে, বাড়বে রাতের সৌন্দর্য।

জানা গেছে, ‘সোলার স্ট্রিট লাইটিং প্রোগ্রাম ইন সিটি করপোরেশন’ প্রকল্পের আওতায় এসব সড়কবাতি স্থাপন করা হচ্ছে। এরই মধ্যে মহানগরীর ডাকবাংলা থেকে জোড়াগেট পর্যন্ত মিড আইল্যান্ড, কেডিএ এভিনিউ, মজিদ সরণি ও আউটার বাইপাসের ৩৬০টি ল্যাম্পপোস্টের বেজঢালাই দেওয়া হয়েছে। গতকাল থেকে সেখানে শুরু হয়েছে ল্যাম্পপোস্ট স্থাপনের কাজ। খবর বিডি প্রতিদিন’র।

বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির মহাসচিব শেখ আশরাফ-উজ্জামান জানান, উন্নত শহরের আদলে আধুনিক প্রযুক্তির এই সোলার সিস্টেম নগরবাসীর জীবনমান উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে। পাশাপাশি প্রতি ২৫ থেকে ৩০ মিটার পর পর সাদা রঙের ল্যাম্পপোস্টে সাদা ঝকঝকে আলোতে রাতের শহর আলাদা সৌন্দর্য পাবে।

তিনি বলেন, সোলার প্যানেলের লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি সূর্যালোকে চার্জের সুবিধা থাকায় তা হবে পরিবেশবান্ধব ও বিদ্যুৎসাশ্রয়ী। এ ছাড়া মধ্যরাতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আলোর তীব্রতা কমিয়ে স্বল্প আলোর লাইটে পরিণত করার ব্যবস্থা থাকবে। জানা যায়, এডিবির অর্থায়নে ঢাকা গ্লোরিয়া টেকনোলজি কোম্পানি লিমিটেড এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

ঠিকাদারের প্রতিনিধি এম এইচ জামান বলেন, এরই মধ্যে চীন থেকে ল্যাম্পপোস্ট, এলইডি লাইট, সৌরশক্তিচালিত ডিভাইস, কন্ট্রোল বোর্ড, ক্যাবল ও আয়তাকার সোলার প্যানেল আনা হয়েছে। কয়েকটি স্থানে সড়কে বেজঢালাইয়ের পর এখন সেখানে ল্যাম্পপোস্ট স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে। আগামী দুই মাসের মধ্যে ২০৬৮টি ল্যাম্পপোস্ট স্থাপনের কাজ শেষ হলে সোলার এলইডি সড়কবাতির কার্যক্রম চালু করা হবে।

খুলনা সিটি করপোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) জাহিদ হোসেন শেখ বলেন, সড়কে কোথাও অবৈধ সংযোগে বিদ্যুৎ চুরি হচ্ছে কিনা ওভারলোডিংয়ের মাধ্যমে তা জানা যাবে। এতে বিদ্যুৎ ব্যবহারের ব্যয় অনেকটা কমিয়ে আনা সম্ভব হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত