প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

‘গ্রামের সবাই বলছে, আমি খুবই ভাগ্যবতী’

নিজস্ব প্রতিবেদক : ছুটিতে বাবার বাড়িতে এসেছেন সুবর্ণা ইয়াসমিন। বাড়িতে ফ্রিজ নেই। ব্যস্ততার কারণে ভাই ফ্রিজ কিনতে যেতে পারছেন না। তাই সুবর্ণাকে টাকা দিয়ে ফ্রিজ কিনতে পাঠালেন। দ্বিতীয় চিন্তা না করে ওয়ালটন প্লাজায় ছুটলেন তিনি। সেখান থেকে পছন্দ করে ফ্রিজ কিনলেন সুবর্ণা। এরপর ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন করে পেয়ে গেলেন এলইডি টিভি ফ্রি।

ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে এলইডি টিভি ফ্রি পাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় সুবর্ণা ইয়াসমিন বলেন, ‘জীবনে প্রথম কোনো পুরস্কার পেলাম। বাড়িতে এসে এমন একটি উপহার পাব তা কখনো ভাবিনি। পুরস্কারটি পাওয়ার পর গ্রামের সবাই বলছে, আমি খুবই ভাগ্যবতী। সবার মুখে এমন মন্তব্য শুনে সত্যিই খুব আনন্দ লাগছে। এজন্য ওয়ালটন কোম্পানির কাছে আমি কৃতজ্ঞতা স্বীকার করছি।’

সুবর্ণা ইয়াসমিন জানান, পাবনার ফরিদপুর উপজেলার সোনাহারা গ্রামের বাসিন্দা তিনি। বাবা-মা, এক ভাই ও এক বোন নিয়ে তাদের ছোট্ট সুখের পরিবার। কলেজে পড়াকালীন তার বিয়ে হয়। তারপরও পড়াশোনা ছাড়েননি। বর্তমানে অনার্স দ্বিতীয় বর্ষে পড়ছেন তিনি। খবর রাইজিংবিডি’র।

তিনি বলেন, ‘স্বামী চাকরির সুবাদে ঢাকায় থাকে। আমি শ্বশুর বাড়ি থেকে বাবার বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলাম। বাড়িতে আসতেই ভাইয়া আমার হাতে টাকা দিয়ে বলল, যাও, বাড়ির জন্য একটি ফ্রিজ কিনে নিয়ে আসো। আমি তখন সিদ্ধান্ত নিলাম ওয়ালটন ফ্রিজ কিনব। একটি নসিমন নিয়ে চলে যাই ফরিদপুরের ওয়ালটন প্লাজায়। সেখান থেকে ২৩ হাজার টাকা দিয়ে কিনে ফেলি ওয়ালটনের ১৩ সিএফটির একটি ফ্রিজ।’

সুবর্ণা জানান, ওয়ালটনের টিভি-ফ্রিজ-এসিতে ডিজিটাল ক্যাম্পেইন এবং অফারের বিষয়ে তার জানা ছিল না। ফ্রিজ কিনতে গেলে প্লাজার ম্যানেজারই তাকে বিষয়টি জানান। আগ্রহ নিয়ে তিনি রেজিস্ট্রেশন করেন। এরপর ফ্রিজ নিয়ে বাড়ি চলে আসেন তিনি।

সুবর্ণা বলেন, ‘ফ্রিজটি নিয়ে বাড়িতে ঢুকতেই মোবাইল ফোনে একটি ম্যাসেজ আসে। আমি ম্যাসেজের শব্দ শোনামাত্রই চমকে উঠি। না জানি কি আছে আমার ভাগ্যে! কিন্তু ম্যাসেজটা দেখামাত্রই আমার মনটা আনন্দে ভরে যায়। দেখি, আমি উপহার স্বরূপ একটি ওয়ালটনের ২০ ইঞ্চি এলইডি টিভি পেয়েছি। এটা দেখে আমি দৌঁড়ে গিয়ে ভাইকে জড়িয়ে ধরি। টিভি পাওয়ার কথা জেনে সে এবং মা-বাবা আর বোনও খুবই খুশি হয়।’

তিনি বলেন, ‘উপহার পাওয়া টিভিটি  দিয়েআমি নিজে ভাইয়ের ঘরে সাজিয়ে দিয়েছি যেন সে এবারের ফুটবল বিশ্বকাপ ভালো করে দেখতে পারে। যাতে রাত করে অন্য কোথায়ও দেখতে না যায়।’

ওয়ালটন ফ্রিজ কেনার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি আমার শ্বশুরবাড়িতে একটা মেয়েকে পড়াই। তাদের বাসায় আমি ওয়ালটনের সব ধরনের পণ্য ব্যবহার করতে দেখেছি। ওনারা আমাকে বলতেন, বিদেশি অন্য সব ইলেকট্রনিক্স পণ্যের থেকে ওয়ালটন কোম্পানির পণ্য সবদিক থেকেই সবার শীর্ষে। তাছাড়া আমার গ্রামের বেশিরভাগ মানুষই ওয়ালটনের পণ্য ব্যবহার করে। সকলের মুখের প্রশংসা আর নিজের দেশের তৈরি পণ্যের প্রতি ভালোবাসার টানেই ওয়ালটন কোম্পানির ফ্রিজটি কিনলাম।’

ওয়ালটন কর্মকর্তারা জানান, বিক্রয়োত্তর সেবা কার্যক্রম অনলাইনের আওতায় আনতে গত ১ এপ্রিল থেকে দেশব্যাপী দ্বিতীয় বারের মতো ডিজিটাল ক্যাম্পেইন শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। ক্যাম্পেইনের আওতায় ক্রেতারা ওয়ালটনের ফ্রিজ, টিভি কিংবা এসি কিনে তা রেজিস্ট্রেশন করলেই পাচ্ছেন আমেরিকা কিংবা রাশিয়ার বিমান টিকিট বা ওয়ালটনের আরেকটি ফ্রিজ, টিভি কিংবা এসি সম্পূর্ণ ফ্রি। তবে এসব সুযোগ না পেলেও ক্রেতার জন্য রয়েছে সর্বোচ্চ ২ হাজার টাকা পর্যন্ত নিশ্চিত নগদ ছাড়।

ডিজিটাল ক্যাম্পেইনের আওতায় গ্রীষ্মকালের জন্য ওয়ালটন ফ্রিজ ও এসিতে এবং বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষে ওয়ালটন টিভিতে এসব সুবিধা থাকবে ৩০ জুন, ২০১৮ পর্যন্ত।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত