প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

সরকার সংলাপে আসতে বাধ্য হবে : বিএনপি

ডেস্ক রিপোর্ট: নির্বাচন নিয়ে সংলাপে আসতে সরকার বাধ্য হবে বলে মনে করছে বিএনপি। রোববার পৃথক অনুষ্ঠানে ক্ষমতাসীনদের উদ্দেশে দলের নেতারা বলেছেন, সংলাপের প্রয়োজন আপনারা বোধ করবেন। সময় এলে অবশ্যই সংলাপে আসতে সরকার বাধ্য হবে। এটা এখন সময়ের ব্যাপার। এটা এখন বলা যাবে না। শুক্রবার সকালে সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির সঙ্গে এখন সংলাপের কোনো প্রয়োজন নেই।

নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের জবাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, তিনি বলেছেন, নির্বাচনকালীন সরকারে বিএনপির থাকার সুযোগ নেই। আমি কি বলেছি, আমরা কী দরখাস্ত করেছি। এসব অবান্তর কথা কেন বলেন? কোনো প্রয়োজন নেই এসব কথা বলার। যখন আন্দোলনের মুখে, যখন যেই পরিস্থিতিতে যেই অবস্থা সৃষ্টি হবে সেই অবস্থার প্রেক্ষাপটেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সেখানে সংলাপ হতে পারে, সংলাপ ছাড়াও সমস্যার সমাধান হতে পারে। এটা নির্ভর করবে পরিস্থিতির ওপর।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে আলোচনা সভায় দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মওদুদ বলেন, আমাদের সামনে আজ বড় চ্যালেঞ্জ গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে তারই নেতৃত্বে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার আন্দোলন সফল করতে হবে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ৬ মাস বাকি উল্লেখ করে সাবেক আইনমন্ত্রী বলেন, যদি আমরা গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে চাই, সত্যিকার অর্থে একটি নির্বাচন করতে চাই তাহলে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। এটা হবে অন্যতম শর্ত।

তিনি বলেন, গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে সব রাজনৈতিক দলের ঐক্য দরকার। একদিকে থাকবে আওয়ামী লীগ অন্যদিকে থাকবে সব রাজনৈতিক দল-মত, বুদ্ধিজীবী-পেশাজীবীসহ সব সংগঠন। তিনি বলেন, নির্বাচনের ৯০ দিন আগে সংসদ ভেঙে দিতে হবে। সংসদ রেখে নির্বাচন করাটা হবে একটা নিরর্থক প্রচেষ্টা এবং গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা সম্ভবপর হবে না। ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দিয়ে নির্বাচনের সময়ে সেনা মোতায়েন করতে হবে এবং আমাদের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে হাজার হাজার মামলা আছে রাজনৈতিক কারণে সেগুলো প্রত্যাহার করতে হবে।

আদর্শ নাগরিক আন্দোলনের উদ্যোগে ২০ দলীয় জোটের শরিক জাগপার প্রয়াত সভাপতি শফিউল আলম প্রধান ও ইসলামিক পার্টির প্রয়াত চেয়ারম্যান আবদুল মোবিনের স্মরণে এ আলোচনা সভা হয়। সংগঠনের সভাপতি মুহাম্মদ মাহমুদুল হাসানের সভাপতিত্বে সভায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, জাগপার সাধারণ সম্পাদক খোন্দকার লুৎফর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আসাদুর রহমান খান, স্বাধীনতা ফোরামের সভাপতি আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুলল্লাহ, নাগরিক ফোরামের চেয়ারম্যান আবদুল্লাহহিল মাসুদ প্রমুখ বক্তব্য দেন।

এদিকে সকালে নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, আওয়ামী লীগ চায় ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে আজীবন ক্ষমতায় থাকতে। আর সে জন্য তারা আবারও ৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন করতে চায়। আমরা বারবার সংলাপ করে সমাধানের কথা বললেও তারা সাড়া দিচ্ছে না। বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে রিজভী বলেন, দিনের পর দিন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসাসেবা না পাওয়ায় খালেদা জিয়ার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ বা পূর্ণাঙ্গ স্ট্রোকের ঝুঁকি তৈরি হয়েছে বলে বলছেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এফএম সিদ্দিকী। বৃহস্পতিবার এ নিয়ে বিবিসিতে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

গাজীপুরে সরকার ‘খুলনা স্টাইলে’ ভোটের পাঁয়তারা করছে এমন অভিযোগ করে রিজভী বলেন, গাজীপুরেও খুলনা স্টাইলে নির্বাচনের জন্য পুলিশ দিয়ে ধানের শীষের সমর্থক-ভোটারদের এলাকাছাড়া করে সিটি কর্পোরেশন এলাকাকে শ্মশানে পরিণত করা হচ্ছে। যাতে ভোটারবিহীন নির্বাচন সুচারুভাবে সম্পন্ন করা যায়। আওয়ামী লীগের বিজয় নিশান নিশ্চিত হয় ভোট ডাকাতি, ভোট সন্ত্রাস, জাল ভোট, ভোট কেন্দ্র দখল ও অবৈধ অস্ত্রের আস্ফালনের মাধ্যমে। আর এগুলোর দিকে চোখ করে দায়িত্বহীন নির্বাচন কমিশন হাওয়া খেয়ে বেড়াচ্ছে। রিজভী বলেন, নিশ্চিত ভরাডুবির ভয়ে গাজীপুরে আওয়ামী লীগ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বিএনপি ও বিরোধী দলের নির্বাচন সংশ্লিষ্ট নেতাকর্মীদের গণগ্রেফতার ও বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি-ধমকি দিচ্ছে।

রিজভী বলেন, সরকারের বিদায়ঘণ্টা বেজে গেছে। জনগণ স্বৈরাচার সরকারকে লাল কার্ড দেখাতে বদ্ধপরিকর। তাদের মদগর্ব আস্ফালন উপেক্ষা করেই মানুষ রাস্তায় নামতে শুরু করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট শামসুল হক, আবদুল হাই শিকদার, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, প্রচার সম্পাদক শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, কেন্দ্রীয় নেতা হাবিবুল ইসলাম হাবিব, আসাদুল করীম শাহিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সূত্র: যুগান্তর

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত