প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

হালদায় ভয়াবহ দূষণ মরে ভেসে উঠছে মাছ

ডেস্ক রিপোর্ট: ভয়াবহ দূষণে মারাত্মক দূষণকবলিত হয়ে পড়েছে চট্টগ্রামের হালদা নদী। দেশের কার্প জাতীয় মাছের একমাত্র প্রজননস্থল এই নদীতে গত ক’দিনে প্রায় ১৫ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে মরে ভেসে উঠছে হাজার হাজার মাছ। পচে যাওয়া মরা মাছের দুর্গন্ধে দুই পাড়ের বাতাসও দূষিত হয়ে পড়ছে। গত ৩/৪ দিনে এই দূষণজনিত মড়কের শিকার হয়েছে ১৫/২০ কেজি ওজনের রুই কাতাল মাছসহ অন্য প্রজাতির মাছও। অন্য প্রজাতির মাছের মধ্যে রয়েছে গলদা চিংড়ি, ট্যাংরা, বাইম, আইড় প্রভৃতি। স্থানীয় জনসাধারণ ভেসে ওঠা মরা মাছ মাটি চাপা দিয়ে বাতাসের দূষণ ঠেকানোর চেষ্টা করছেন। ইতোমধ্যে হালদার ১০/১২টি পয়েন্ট থেকে পানির নমুনা সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা দূষণ সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েছেন।

বিশেষজ্ঞরা জানান, বিগত প্রায় দুই সপ্তাহের বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ি ঢলে ভাটি এলাকার কল-কারখানার দূষণ বিস্তারকারী পদার্থ হালদা নদীতে এসে পড়েছে। পানির রংও বিবর্ণ হয়ে গেছে। প্রতি ১ লিটার পানিতে অক্সিজেনের পরিমাণ ২ মিলিগ্রামেরও নীচে। অথচ নদীর পানিতে মাছ বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজন প্রতি লিটারে ৫ মিলিগ্রাম অক্সিজেন।

সম্প্রতি চট্টগ্রামে হালদা নদী রক্ষা কমিটির সভাপতি, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণী বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মঞ্জুরুল কিবরিয়া ইত্তেফাকের বলেছিলেন, শিল্প, আবাসিক এলাকা ও পাহাড় থেকে নেমে আসা বর্জ্য ও রাসায়নিকে হালদা দূষিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। মাত্র ক’মাসের মধ্যেই তার এ আশঙ্কা সত্যে পরিণত হলো।

অধ্যাপক ড. মঞ্জুরুল কিবরিয়া বলেন, হালদা নদীর সর্বশেষ যে অবস্থা দেখা যাচ্ছে তা ভয়াবহ। এবারের বর্ষণে চট্টগ্রাম মহানগরীর অক্সিজেন থেকে কুলগাঁও এলাকার আবাসিক বর্জ্য, ভাটি এলাকার পোল্ট্রি খামার, ট্যানারিসহ বিভিন্ন শিল্পের বর্জ্য ব্যাপকভাবে হালদায় মিশেছে। এছাড়াও হাটহাজারী সড়ক সংলগ্ন একটি কারখানার রাসায়নিক বর্জ্য ব্যাপকভাবে হালদায় মিশেছে। সকল বর্জ্য হাটহাজারির নিম্নাঞ্চলে গিয়ে জমা হয়ে হালদায় দূষণ ঘটিয়েছে। ফলে খন্দকিয়া, কাটাকালি ও মাদারিখাল নামের হালদা সংযুক্ত তিনটি খালে বড় বড় মা মাছসহ বিভিন্ন ধরনের মাছ মরে ভেসে উঠছে। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ, পরীক্ষা নিরীক্ষা করে হালদা নদী রক্ষা কমিটি, চবি হালদা গবেষণা ল্যাবরেটরি, স্থানীয় মত্স্য বিভাগের সমন্বয়ে ইতোমধ্যে গবেষণা প্রতিবেদন সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলে পাঠানো হয়েছে। এ সুপারিশ বাস্তবায়ন হলে হালদাকে বিপর্যয় থেকে বাঁচানো সম্ভব।
হালদা নদী রক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী বলেন, হালদায় এই ধরনের বিপর্যয় গত দুই যুগে কারো চোখে পড়েনি। সূত্র: ইত্তেফাক

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত