প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঈদের ছুটি, বয়স ও বিশ্বকাপ গাজীপুর নির্বাচনের ৩ প্রধান ইস্যু

মাসুদা ভাট্টি, গাজীপুর: আদালতের নির্দেশে বন্ধ থাকা গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নতুন প্রচারণা আজকে যেনো আনুষ্ঠানিকতায় রূপ নিয়েছিল। দিনভর প্রধান নির্বাচন কমিশনার নুরুল হুদার নেতৃত্বে নির্বাচন কমিশনারবৃন্দ এবং নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সকল মহলের উপস্থিতিতে প্রার্থীদের মতবিনিময় সভায় সাধারণ মানুষের উপস্থিতিও ছিল লক্ষ্য করার মতো। গাজীপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে বঙ্গতাজ মিলনায়তনে জনাকীর্ণ মতবিনিময় অনুষ্ঠানে প্রার্থীদের পক্ষ থেকে মূলতঃ একটি অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য নির্বাচন কমিশন, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ সকলের কাছে অনুরোধ জানানো হয়। অপরদিকে প্রধান নির্বাচন কমিশনার পাল্টা বক্তব্যে বলেন, “নির্বাচন করবেন আপনারা, আমরা নির্বাচন আয়োজক মাত্র। আপনাদের পক্ষ থেকে কোনো অনিয়ম না ঘটানো হলে আমাদের পক্ষ থেকে কোনো রকম অন্যায়, অনিয়মকে কঠোর হাতে দমন করা হবে”। নির্বাচনের মাত্র পাঁচ দিন আগে গাজীপুর শহরে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নেতৃত্বে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট বড়কর্তাদের উপস্থিতি ভোটারদের শঙ্কা কতোটুকু আশ্বস্ত করতে পারলো, এই প্রশ্ন নিয়েই মুখরিত ছিল আজ গাজীপুর শহর।
তিন প্রধান প্রশ্ন

গাজীপুর নির্বাচন জমে উঠতে উঠতে সীমানা নির্ধারণ সংক্রান্ত এক রীটের ফলে মাঝপথে আদালতের নির্দেশে থেমে যায় প্রচারণা। ফলে নতুন করে নির্বাচনী প্রচারণার ক্ষেত্রে প্রার্থীরা যে এখনও জমিয়ে তুলতে পারেননি সেটি আজ দিনভর গাজীপুরের ভোটারদের সঙ্গে আলোচনায় লক্ষ্য করা গেছে। বিশেষ করে এই মুহূর্তে বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্ব কাঁপছে বিশ্বকাপ জ্বরে, সুতরাং ভোট নাকি ফুটবল? এই প্রশ্নের তরুণ ভোটারদের উত্তরে ফুটবলকেই বেছে নিতে দেখা গেছে। অপরদিকে ঈদের আমেজ এখনও কাটিয়ে ওঠেনি দেশবাসী। এখনও ছুটি থেকে ফেরেনি হাজারো শ্রমিক-কর্মচারী, যারা গাজীপুরেই ভোটার হিসেবে নথিভ’ক্ত। ফলে প্রচারণায় তারাও পিছিয়ে থাকছেন। এসব প্রশ্ন মতবিনিময় সভায়ও প্রার্থীদের উল্লেখ করতে দেখা যায়। এমনকি বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী হাসান সরকার নির্বাচনী ব্যয় বেড়ে যাওয়ার বিষয়টিও তুলে ধরেন। সদ্য শেষ হওয়া রোজার মাসব্যাপী ইফতারে তার নির্বাচনী খরচ বেড়ে যাওয়ার ইঙ্গিত দেন তিনি। অন্যদিকে সরকারী দল আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়রপ্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, গাজীপুরবাসী ইতিপূর্বে ‘আন্দাকোন্দা’ ভোট দেখে অভ্যস্ত ছিল, কিন্তু এইবার যেনো তারা যোগ্য প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার সুযোগ পান সেটি যেনো নিশ্চিত করা হয়। বিএনপি প্রার্থীর মূল অভিযোগ প্রশাসনের বিরুদ্ধে আর আওয়ামী লীগ প্রার্থীর অভিযোগের তীর বহিরাগত সন্ত্রাসীদের দিকে। গাজীপুর নির্বাচনে এসব মূল ইস্যু হলেও নির্বাচন যে আড়ম্বড়পূর্ণ আয়োজন হিসেবে আগামি ২৬ তারিখ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে সে ব্যাপারে সকল পক্ষই আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।
বয়স যখন ‘ফ্যাক্টর’

আগামি ২৬ জুন অনুষ্ঠিত গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী মেয়র প্রার্থী বিশেষ করে বড় দ্ইু দলের মেয়র প্রার্থীদের বয়সের ব্যবধান একটি প্রধান আলোচ্য বিষয় হিসেবে ভোটারদের মাঝে লক্ষ্য করা গেছে। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী বয়সের কারণে যুবক ও তরুণ ভোটারদের পছন্দের প্রার্থী নাও হতে পারেন বলে কোনো কোনো ভোটার আশঙ্কা প্রকাশ করেন। অপরদিকে তারা জাহাঙ্গির হোসেনের পক্ষে সমর্থন ব্যক্ত করেন। কিন্তু তারপরও লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি একথা দৃঢ়ভাবেই উচ্চারণ করেন। গাজীপুর শিববাড়ীর মোড় বাজারে মুদি দোকানদার বলেন, গাজীপুরের নির্বাচনে দুই প্রার্থীই যথেষ্ট যোগ্য এবং তারা মানুষের কাছে যাচ্ছেন। এখন মানুষই সিদ্ধান্ত নেবে কাকে তারা প্রার্থী হিসেবে দেখতে চান।
ভোটের হিসেব পাল্টানোর কোনো সম্ভাবনা?

প্রধান নির্বাচন কমিশনারের নেতৃত্বে সকল নির্বাচনী কর্মকর্তাই গাজীপুরবাসীকে প্রতিশ্রুতি দিয়ে এসেছেন একটি সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের। এলাকাবাসী বিভক্ত বেশ কিছু ক্যাটাগরিতে, তার মধ্যে স্থানীয় ও অপর জেলা থেকে এসে বসবাসকারী ভোটার, তৈরি পোশাক শিল্পকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা বিশাল ভোটব্যাংক এবং গাজীপুর শহর সংলগ্ন ওয়ার্ডগুলির বাসিন্দা অন্যতম। ভোটারদের অনেকেই প্রার্থীদের প্রতিশ্রুতি বিষয়ে প্রশ্ন তুলেছেন, বিশেষ করে গত পাঁচ বছরে গাজীপুরে খুব বেশি কাজ হয়নি বলে ভাঙাচোরা রাস্তা মানুষের চলাচলের উপযোগী নয় বলেও মত দেন। গাজীপুর শহরকে প্রবেশ অযোগ্য করে তুলেছে শহরের প্রায় বুক চিরে যাওয়া মহাসড়কগুলি, যা থেকে জনভোগান্তি চরম রূপ নিয়েছে বলে ভোটাররা অভিযোগ করেন। যে প্রার্থী দ্রুততম সময়ে এর সমাধান কল্পে ফ্লাইওভার নির্মাণের ঘোষণা দেবেন তার পক্ষে সমর্থন বাড়ার কথাও উল্লেখ করেন কেউ কেউ। নির্বাচনের ফল বদলে যাওয়ার কারণ হিসেবে এসব সাধারণ সমস্যার কথাই ‘সাধারণ মানুষ’-এর চিন্তার বিষয়। তারা ভোট নিয়ে কোনো কারসাজি সম্পর্কে অবগত নন বলেই জানান।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত