প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডিএমপির উদ্যোগে সুপথে ফিরলেন ওরা ১৩৮ জন!

সুজন কৈরী : পুরান ঢাকার লালবাগে ‘মাদকমুক্ত সমাজের পথে ডিএমপি আছে সবার সাথে’ এই শ্লোগানকে সামনে নিয়ে মাদকবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সমাবেশে ১৩৮ জন মাদক ব্যবসায়ী ও সেবী মাদক ছেড়ে দেয়ার ঘোষণা দিয়ে সুপথে ফেরার অঙ্গীকার করেছেন। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপির) উদ্যোগে এই ১৩৮ জন নারী-পুরুষ মাদকের সংশ্লিষ্টতা ছেড়ে সুস্থ্ ও সুন্দর জীবনে ফিরে এসেছেন। তাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়েছে ডিএমপি।

মঙ্গলবার বিকেলে ডিএমপির লালবাগ বিভাগ আজিমপুর গভর্ণমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজে ‘মাদক ছেড়ে সুপথে ফেরা’ নামক একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া। অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট লেখক ও অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল, ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহে আলম মুরাদসহ ডিএমপি’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডিএমপি কমিশনার মাদক ব্যবসায়ীদের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, ‘মাদকের ভয়াবহ আগ্রাসন রোধে মাদকের বিরুদ্ধে সরকারের অবস্থান ‘জিরো টলারেন্স’। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে দেশব্যাপী মাদক বিরোধী অভিযান চলছে। ডিএমপি আগে থেকেই মাদক বিরোধী অভিযান চালাচ্ছে। মাদকের বিরুদ্ধে আমরা সবসময় সচেষ্ট। প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে সকলকে এগিয়ে আসতে বলেছেন।’

তিনি বলেন, ‘মাদকের আগ্রাসন থেকে বাঁচতে আপনার পরিবারের সদস্যদের প্রতি বিশেষ নজর রাখবেন। মাদক ব্যবসায়ীদের খবর পুলিশকে দিন। জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য আমরা নিয়মিত মাদকের বিরুদ্ধে সভা সমাবেশ করবো। সকল শ্রেণী, পেশার মানুষ একত্র হয়ে মাদকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে হবে। মাদকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার প্রচেষ্টা আমাদের অব্যাহত থাকবে।’

মাদকের বিরুদ্ধে ডিএমপি’র অবস্থান সম্পর্কে কমিশনার বলেন, ‘মাদকের বিরুদ্ধে সরকারের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি ঘোষণার মধ্য দিয়ে আমরা মাদকের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক যুদ্ধ ঘোষণা করেছি। মাদক ব্যবসায়ী যেই হোক তাকে ছাড় দেয়া হবে না। ডিএমপি মাদকের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান চালাচ্ছে। অভিযানে অনেক মাদক ব্যবসায়ীকে আমরা গ্রেফতার করেছি। উদ্ধার করা হয়েছে বিপুল সংখ্যক মাদকদ্রব্য। জনগণের সহায়তা নিয়ে জঙ্গিবাদের মত আমরা সফলভাবে মাদককে নির্মূল করবো।’

অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, পুলিশ শুধু আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত নেই তারা এখন সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে মাদকসেবীদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে।

তিনি আরো বলেন, মাদক শুধু নিজেকেই নয়, গোটা সমাজকে ধ্বংস করে। এ সময় তিনি ডিএমপির মাদকবিরোধী অভিযানের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি মাদকসেবীদের সুপথে ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশকে অনুরোধ করেন।

তিনি আরো বলেন, শুধু পুলিশ দিয়ে মাদক সমস্যার সমাধান করা সম্ভব নয়, এজন্য প্রয়োজন সামাজিক সচেতনতা। এজন্য সমাজের প্রত্যেককে এগিয়ে আসতে হবে। এমন একটি মহতি অনুষ্ঠানের আয়োজন করার জন্য তিনি ডিএমপিকে সাধুবাদ জানান। যারা মাদকে জড়িয়ে যায় তারা কাণ্ডজ্ঞানহীন। এরা সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিতে নানা ধরনের অপরাধ করে থাকে। মাদক ব্যবসায়ীদের সনাক্ত করে তাদের আইনের আওতায় এনে কঠোর ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। তবেই দ্রুত এই সমস্যা দূর করা যাবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত