প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চাল আমদানিতে শুল্ক আরোপের ঘোষণায় চালের বাজারে দাম আতঙ্ক

জাফর আহমদ: সংসদে বাজেট উপস্থাপনের পর চালের বাজারে দাম আতঙ্ক ছড়িয়ে দিয়েছে চালের আড়ৎদাররা। রাজধানীর চাল বিক্রেতাদের বক্তব্য- সংসদে বাজেট পাশ হয়েছে, চালের দাম বাড়বে। গতকাল রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

রাজধানীর বাজারে দেখা যায়, মোটা চাল ৪৪ থেকে বাজার ভেদে ৪৭ টাকা পর্যন্ত। বিআর-২৮ চালের কেজি ৫০ থেকে বাজার ভেদে ৫৪ টাকা পর্যন্ত। প্রতি কেজি চিকন চাল (মিনিকেট) বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে বাজার ও চালের ধরন ভেদে ৬৪ টাকা পর্যন্ত। গত কয়েকমাস ধরে একই দামে বিক্রি হচ্ছে এ চাল।

বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চালের বর্তমান দাম আর বেশি দিন থাকবে না বলে বাজারে গুজব চড়িয়ে পড়েছে। রাজধানীর রাজাবাজারের ইনতাজ আলী বলেন, এখন চালের দাম ঠিকই আছে, কোন কম-বেশি নেই। কয়েকদিন পর বাড়বে। কেন বাড়বে-এমন প্রশ্নের জবাবে ইনতাজ আলী বলেন, সংসদে চালের দাম বৃদ্ধির কথা পাশ করেছে।

তাছাড়া চালের দাম বাড়বে বলে জানিয়েছেন আড়ৎদাররা। একই কথা জানান মিরপুরের খুচরা চাল বিক্রেতা নুরুল ইসলাম। বাদামতলির পাইকারি চাল বিক্রেতারা আসগর আলী বলেন, এখন তো চালের ঠিকই আছে। আমদানি ব্যয় বাড়লে ব্যবসায়ীরা লোকশান দিয়ে কম দামে চাল বিক্রি করবে?

২০১৭ সালে আগাম বন্যায় হাওর ও উত্তরাঞ্চলের ধান ডুবে যাওয়ার পর বাজারে চালের দাম বেড়ে যায়। পরিস্থিতি সামাল দিতে সরকার চাল আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার করে নেয়। এতে চালের দাম বেড়ে যায়। কিন্তু চালের দাম কমাতে কার্যকর প্রভাব ফেলতে পারেনি।

চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছরের ১০ মাসে চাল আমদানি হয়েছে ৪৫ লাখ মেট্রিক টন। চিকন, মোটা নির্বিশেষে প্রতি কেজি এ চাল আমদানি ব্যয় হচ্ছে ৩৩ টাকা। কিন্তু বাজারে প্রতি কেজি এ চাল গড়ে ৫০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। বন্যার আগে চালের গড় মুল্য ছিল ৪০ টাকা।

কৃষক নেতারা জানায়, ব্যবসায়ীদের হাতে চাল থাকার কারণে কৃষকরা ধান বিক্রি করে টাকা খরচ তুলতে পারছে না। এ সময় বিভিন্ন মহলের দাবির প্রেক্ষিতে চাল আমদানিতে শুল্ক আরোপের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। ফলে চাল আমদানি করে ব্যবসায়ীরা যে অতি মুনাফা করছিল তা কমে যাওয়ার আশঙ্কা তৈরি হওয়ায় চালের দাম বৃদ্ধির গুজব ছড়ানো হদে পারে।

চালের আমদানিকারকদের একটি সুত্র জানায়, চাল আমদানি বাড়লেও তা মূলধারার চাল ব্যবসায়ীরা সব চাল আমদানি করেনি। চাল আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহারের পর মৌসুমি আমদানিকারক ও মজুদদার শ্রেণির আমদানিকারকদের উদ্ভব হয়েছে। চালের দাম বৃদ্ধির গুজবের পেছনে বাজার ব্যবস্থাপনার পাশাপাশি মৌসুমি এ সব ব্যবসায়ীদের ভুমিকা খতিয়ে দেখার দরকার।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ