প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তমব্রুর রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে ঠেলে দিতে চায় মিয়ানমার

সাজিয়া আক্তার : মিয়ানমার আন্তর্জাতিক মহলের নজর এড়াতে সীমান্তে তমব্রুর শূন্যরেখায় অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের ঠেলে দিতে চায় বাংলাদেশে। সীমান্তে দেশটির গুলিবর্ষণ, ঘন ঘন মাইকিং, অতিরিক্ত সৈন্য সমাবেশসহ নানা তৎপরতায় এমনটি মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। প্রশাসন বলছে শূণ্যরেখা থেকে রোহিঙ্গাদের সরাতে এটা মিয়ানমারে একটা কৌশল।

মিয়ানমারের সব দৃষ্টি এখন বান্দরবনের তমব্রুর সীমান্তের শূণ্যরেখার দিকে। যেখানে বসবাসরত প্রায় সারে ৪ হাজার রোহিঙ্গাকে সরাতে নানাভাবে অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তারা।

গেলো মার্চ থেকে কয়েক দফা রোহিঙ্গাদের সরাতে মাইকিং করে মিয়ানমারের সীমান্ত রক্ষীরা। যা এখনো অব্যাহত রয়েছে। পাশাপাশি গুলিবর্ষণ অস্ত্র উচিয়ে হুমকি ও অতিরিক্তি সৈন্য সমাবেশসহ নানাভাবে ভয়ভীতি দেখানোর তৎপরতাও চলছে সমান তালে। ফলে দেশের এইসব মানুষের মাঝে বেড়েছে আতঙ্ক।

রোহিঙ্গারা বলছেন, মিয়ানমার সেনাবাহিনী মাইকে ঘোষনা দিয়ে আমাদের সরে যেতে বলছে। কিন্তু আমরা দেশের মায়া ত্যাগ করে সরে যাইনি। গুলি করে আমাদের হুমকি দেয় তারা। এর আগে ক্যাম্পে অবস্থানকারীদের বন্দুক ঠেকিয়ে গুলি করার হুমকি দিয়েছেলো।

রোহিঙ্গা সঙ্কট দেখতে আসা আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা বা দেশের প্রতিনিধিরা অনেকেই যাচ্ছেন শূণ্যরেখায়। তাই তাদের দৃষ্টি এরাতে মিয়ানমারের একটা কৌশল বলে মনে করছেন স্থানীয় নেতা।

কক্সবাজার বাঁচাও আন্দোলন সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আয়াছুর রহমান বলেন, শূণ্যরেখা যারা আছে তারা চাচ্ছে তারা শূণ্যরেখায় থেকে সেখান থেকে তাদের নিজ দেশে ফিরে জাবার জন্য। কিন্তু মিয়ানমার কৌশলে সেনাবাহিনীদের দারা হুমকি দিচ্ছে যাতে তারা তাদের দেশে ফেরত না গিয়ে বাংলাদেশেই থাকে।

জেলার এই শীর্ষ কর্মকর্তা জানান শূণ্যরেখা থেকে রোহিঙ্গাদের সরাতে মিয়ানমার অপকৌশল অবলম্বন করছে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, কোনো দেশি এবং বিদেশি সন্ত্রসী সংগঠনের জায়গা বাংলাদেশে নেই। সরকার সেখানে জিরো টলারেন্স অবস্থানে আছে। তাই আমাদের মনে হচ্ছে মিয়ানমারের কৌশল হতে পারে এটা।

মিয়ানমারের এমন আচরণে গণমাধ্যমে কোনো বক্তব্য না দিলেও সীমান্তে নিজেদের অবস্থানের কথা জানিয়েছে বিজিবি।

সূত্র : সময় টেলিভিশন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত