প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দেশের অভ্যন্তরে অর্থনৈতিক চাপকে কাজে লাগাচ্ছে অসাধু চক্র

রাজেকুজ্জামান রতন : প্রতি বছর বংলাদেশ থেকে ১০ লক্ষের উপরে যুবক যুবতী দেশের বাইরে কর্মসংস্থানের জন্য যায়। এদের মধ্যে মধ্যপ্রাচ্যে যায় বিরাট একটা অংশ । আর অল্প কিছু ইউরোপ, আমেরিকায় যায়। কিছুদিন ধরে আমরা দেখছি, ইতালি, থাইল্যান্ড, জার্মানিতে যাওয়ার জন্য জীবনের ঝুঁকি নিয়ে একদল যুবক দূর্গম পথ পাড়ি দিচ্ছে। এমনকি তারা কখনো কখনো সাইপ্রাস এবং যুদ্ধ বিধ্বস্ত ইরাক সিরিয়া হয়ে পাড়ি দিচ্ছে। এর জন্য অবশ্য ২টা কারণ  আছে, প্রথমত উন্নত জীবনের প্রলোভন দেখানো, দ্বিতীয়ত দেশের অভ্যন্তরে অর্থনৈতিক চাপ। আর এই সুযোগকে কাজে লাগাচ্ছে একদল চক্র।

থাইল্যান্ডের গহীন অরণ্যে আমাদের গণকবরের সন্ধান পওয়া গেছে। মালয়েশিয়াতে ৬ লক্ষ বাংলাদেশির মধ্যে ৩ লক্ষই অবৈধভাবে আছে এবং তারা অত্যন্ত অমানবিক জীবন যাপন করছে। সরকারের পক্ষ থেকে জন সচেতনতামূলক প্রচারণা বৃদ্ধি করা দরকার। যুবক যুবতীদেরকে যারা প্রলোভন দেখাচ্ছে, তাদের কঠোর শাস্তি হওয়া দরকার। সাধারণ মানুষের মধ্যে একটা প্রচারণা নিয়ে আসা উচিৎ। কেননা, তারা যে উন্নত জীবনের জন্য জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যেভাবে পথ পাড়ি দিয়ে বিদেশে যায়, সেই দুর্গম পথে তাদের জীবনও তো হারাতে পারে।

যাদের কারণে সাধারণ জনগণ তাদের সুন্দর জীবনকে অমানবিক ভাবে শেষ করে দিচ্ছে, তাদের শাস্তির আওতায় আনা অত্যন্ত জরুরি। আর এটি করলে, এমন কাজ বন্ধ করা সম্ভব হবে বলে আমি মনে করি। আইনের যে দূর্বলতা আছে, তাকে উদঘাটন করে দূর করা উচিৎ। এর জন্য যে আইন আছে তাই প্রয়োগ হচ্ছে না। এ আইনের প্রয়োগ, নজরদারি বাড়ানো দরকার। পাশাপাশি মানুষের জীবন নিয়ে যারা খেলছে তাদের বিরুদ্ধে জনগণের কাছেও এক ধরনের সচেতনতা বাড়ানো দরকার।

পরিচিতি : কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য, বাসদ/ মতামত গ্রহণ : তাওসিফ মাইমুন/ সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত