প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সিরিয়া ও ইউক্রেন পরিস্থিতি নিয়ে পম্পেও-ল্যাভরভ ফোনালাপ

বাঁধন : সিরিয়া ও ইউক্রেন পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এবং রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। বুধবার দুই নেতার মধ্যে এ ফোনালাপ অনুষ্ঠিত হয়। রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে এ ফোন কলের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে তুরস্কভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আনাদোলু এজেন্সি।

মাইক পম্পেও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণের পর ল্যাভরভের সঙ্গে এটাই তার প্রথম ফোনালাপ।

রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ফোনালাপে মতপার্থক্য দূরীকরণে একসঙ্গে কাজের প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে একমত হয়েছেন দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী। দুই দেশের সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের জন্য আলোচনার ওপরও জোর দেন দুই নেতা।

এদিকে সিরিয়ার দক্ষিণাঞ্চলীয় উত্তেজনাবর্জিত এলাকায় বৈঠকের বিষয়ে সম্মত হয়েছে রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও জর্ডান। মঙ্গলবার রাশিয়ার উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী মিখাইল বোগডানোভ এ তথ্য জানিয়েছেন।

এর আগে গত সপ্তাহে সিরিয়ার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ‘উত্তেজনাবর্জিত’ এলাকায় সামরিক শক্তির সমাবেশ বৃদ্ধির ঘটনায় উদ্বেগ জানায় যুক্তরাষ্ট্র। সিরিয়াকে সতর্ক করে দিয়ে দেশটি বলেছে, যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন হলে তারা ‘কঠোর এবং সঠিক পদক্ষেপ’ নেবে। রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাবরভ জানান, সিরিয়ার দক্ষিণাঞ্চলে ইসরায়েল ও জর্ডান সীমান্তবর্তী এলাকায় শুধুমাত্র সিরিয়া সরকারি সেনাবাহিনী থাকতে পারবে। এদিন জর্ডানের তরফ থেকে জানানো হয়, দক্ষিণ সিরিয়ার পরিস্থিতি নিয়ে ওয়াশিংটন ও মস্কোর সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে তারা।

জর্ডান জানিয়েছে, গত বছর তাদের মধ্যস্ততায় তৈরি হওয়া এই উত্তেজনাবর্জিত এলাকায় স্থিতাবস্থা বজায় রাখার বিষয়ে সম্মত হয়েছে তিন পক্ষ। এই উত্তেজনাবর্জিত এলাকা তৈরি হওয়ায় সেখানে সহিংসতার ঘটনা কমে এসেছে।

প্রসঙ্গত, সিরিয়ায় সাত বছর ধরে চলা গৃহযুদ্ধে নিহত হয়েছেন সাড়ে তিন লাখেরও বেশি মানুষ। গৃহহীন হয়েছেন আরও লাখ লাখ মানুষ। এই সংঘাতে সিরিয়ার আসাদ সরকারকে সমর্থন দিচ্ছে রাশিয়া ও ইরান। আর আইএস নির্মূলের নামে বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোকে সমর্থন দিয়ে আসছে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা। সূত্র: আনাদোলু এজেন্সি, আরআইএ।

সূত্র : বাংলাট্রিবিউন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত