প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মাশরাফির নির্বাচন নিয়ে নতুন স্বপ্নে বিভোর নড়াইল

ডেস্ক রিপোর্ট : গতিময় বোলিং আর কঠিন সব পরিস্থিতির বিরুদ্ধে বুক চিতিয়ে লড়াইয়ের জন্য মাশরাফি বিন মুর্তজাকে চেনে গোটা দেশ। তবে নিজ জেলা নড়াইলের মানুষের কাছে তার রয়েছে আরও এক পরিচয়, বিপদগ্রস্ত মানুষের বন্ধু। কারও নতুন দোকান করার পুঁজি নেই? আছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। অর্থের অভাবে কারও অস্ত্রোপচার হচ্ছে না? মাশরাফির সাহায্যের হাত পৌঁছে যায় সেখানেও। বিচ্ছিন্নভাবে মাশরাফির মানুষের পাশে দাঁড়ানোর এমন ঘটনা আছে অনেক। সংগঠিতভাবে, অর্থাৎ ‘নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন’-এর মাধ্যমে জনকল্যাণকর কাজ করার ঘটনারও অভাব নেই তার। সেই মাশরাফির আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার গুঞ্জন চাউর হওয়ার পর থেকে নতুন স্বপ্নে বিভোর হয়েছে গোটা নড়াইল। এ জেলার বাসিন্দাদের বিশ্বাস, নির্বাচনে প্রার্থী হলে জয় অবশ্যম্ভাবী মাশরাফির। আর মাশরাফির সংসদ সদস্য হওয়া মানে অবহেলিত নড়াইলের উন্নয়ন।

রাজনীতিতে আসছেন ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মুর্তজা ও সাকিব আল হাসান, এমন এক গুঞ্জন বেশ অনেক দিন ধরেই বাতাসে উড়ছিল। সেই গুঞ্জনে মঙ্গলবার (২৯ মে) দুপুরে ঘি ঢালেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। মাশরাফি বিন মুর্তজা ও সাকিব আল হাসান নির্বাচন করতে পারেন বলে ইঙ্গিত দেন তিনি। আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, ‘তারা যদি নির্বাচনে আসেন, তাহলে তাদের ভোট দেবেন।’ পরিকল্পনামন্ত্রীর এমন ইঙ্গিতের পর মাশরাফিকে নিয়ে নতুন স্বপ্নে ভাসছে নড়াইলের মানুষ।

নড়াইল জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ন-আহ্বায়ক, লক্ষীপাশা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ও নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের যুগ্ন-আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট কাজী বশিরুল হক বলেন, ‘গণমাধ্যমের খবর থেকে মাশরাফি নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন বলে শুনেছি। তবে তার (মাশরাফির) মুখ থেকে এখনও এ ব্যাপারে কোনও কিছু শুনিনি। মাশরাফির সঙ্গে দল-মত নির্বিশেষে সবার ভালো সম্পর্ক। তার সঙ্গে কারও শত্রুতা নেই। ক্লিন ইমেজের মাশরাফি নির্বাচনে অংশ নিয়ে সংসদ সদস্য হলে অবহেলিত নড়াইলকে এগিয়ে নেবেন। নড়াইলের উন্নয়নে তাকে সবাই সহযোগিতা করবে, এমন প্রত্যাশা আমাদের।’

নড়াইল পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর বিশ্বাস বলেন, ‘মাশরাফি নড়াইলের কৃতি সন্তান। আওয়ামী লীগ যদি আগামী নির্বাচনে তাকে নড়াইল থেকে মনোনয়ন দেয়, তাহলে তাকে জয়ী করতে প্রচারণামূলক কাজে কোনও খামতি রাখবো না। জান-প্রাণ দিয়ে তার জন্য কাজ করবো।’

নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক তরিকুল ইসলাম অনিক বলেন, ‘মাশরাফি যদি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পান, তাহলে ফাউন্ডেশন বিষয়টিকে সানন্দে গ্রহণ করবে এবং ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা ও শুভানুধ্যায়ীরা তার পাশে থাকবে। কারণ, তিনি এমপি নির্বাচিত হলে গোটা নড়াইলের সার্বিক উন্নয়ন হবে। আর্ত-মানবতার সেবার জন্য গঠিত নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনেরও গতিশীলতা আরও বৃদ্ধি পাবে।’

নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের গণিত সম্মান শেষবর্ষের ছাত্র পিকুল বিশ্বাস জানান, তরুণ সমাজ ও ক্রিকেটপ্রেমীদের ভালবাসার মানুষ মাশরাফি। তিনি নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন শুনে খুশি হয়েছি। গুঞ্জন সত্যিই হলে তিনিই জয়ী হবেন, আর দিন বদলাবে আমাদের।’

নড়াইল সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মলয় কুন্ডু বলেন, ‘মাশরাফি খুব ভালো একজন মানুষ। তিনি বিভিন্ন সময় গরিব-অসহায় ও সাধারণ মানুষের উপকার করেন। তার মতো সাদামনের মানুষ সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।’

নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশনের প্রধান উপদেষ্টা মাশরাফির বাবা গোলাম মুর্তজা স্বপন বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদি তাকে (মাশরাফি) মনোনয়ন দেন, তাহলে মাশরাফির না বলার সুযোগ নেই।’

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মাশরাফি প্রার্থী হতে পারেন, এই খবরে নানান ইতিবাচক কথা ঘুরছে ফেসবুকের ওয়ালে ওয়ালে। নড়াইলের তরুণদের বিশ্বাস, নির্বাচনে অংশ নিলে মাশরাফির বিজয় অবশ্যম্ভাবী। আর তার নির্বাচিত হওয়া মানে অবহেলিত নড়াইলের উন্নয়ন।

তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতাকর্মী বলছেন, খেলার মাঠ থেকে রাজনীতির মাঠে তার না আসাই ভালো। কারণ, খেলার মাঠ ও রাজনীতির মাঠ সম্পূর্ণ আলাদা। দল-মত নির্বিশেষে তিনি সবার কাছে যে গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে আছেন, নির্বাচনে আসলে সেটা হারাতে পারেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলু মাশরাফির নির্বাচনে অংশগ্রহণের ব্যাপারে কোনও ধরনের মন্তব্য করতে রাজি হননি।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে মাশরাফি বিন মুর্তজার পৃষ্ঠপোষকতায় নড়াইল এক্সপ্রেস ফাউন্ডেশন গঠন করেন। এর পর থেকে সংগঠনটি অসহায় মানুষদের চিকিৎসা, গরিব শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় সহযোগিতা করে আসছে। এ ছাড়া, মাশরাফির এ সংগঠন আইসিটি, খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক কার্যক্রম, পরিবেশ, পর্যটনসহ নড়াইলের সার্বিক উন্নয়নে কাজ করছে। বাংলাটি্রবিউন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত