প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বলছিলাম সংসদে মাদক সম্রাট রয়েছে, সরকার কোনো ব্যবস্থা নেয়নি : এরশাদ

রফিক আহমেদ : রাজনৈতিক দল গুলোকে সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তোলার আহবান জানিয়ে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, বলছিলাম সংসদে মাদক সম্রাট রয়েছে, কিন্তু সরকার কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। ঘরে আজ ইয়াবা। যুব সমাজ আজ ধ্বংসের পথে।

বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে সম্মেলিত জাতীয় জোটের অন্যতম প্রধান শরীক বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট আয়োজিত আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এরশাদ বলেন, দেশে উন্নয়নের মহাৎসবের নামে দুর্নীতির জোয়ার চলছে। সন্ত্রাস ও মাদকেরর কারণে ধ্বংসের ধারপ্রান্তে দেশ। এর থেকে পরিত্রানের জন্য প্রয়োজন সরকার পরিবর্তণ। এ সরকার পরিবর্তনের জন্য সকল রাজনৈতিক দল, বিশেষ করে ইসলিমীদল গুলোকে সরকার বিরোধী আন্দোলনের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান তিনি।

ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান আল্লামা এমএ মান্নানের সভাপতিত্বে মহাসচিব এম এ মতিনের পরিচালনায় ইফতার মাহফিলে আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দীন বাবলু, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, সুনীল শুভ রায়, মীর আব্দুস সবুর আসুদ, হাজী সাইফুদ্দিন মিলন, রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, জহিরুল আলম রুবেল, ইসহাক ভ‚ইয়া, জোট নেতা আল্লামা আবু সুফিয়ান আবেদীন, আল্লামা হারুন অর রশিদ ও আব্দুল হাকিম প্রমুখ।

সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদ বলেন, একটি জাতিকে ধ্বংস করতে শিক্ষা ব্যবস্থা ও যুব সমাজকে ধ্বংস করলেই যথেষ্ঠ। জিপিএ ৫ প্রাপ্ত ছেলেরা জিপিএ ফাইভের অর্থ বলতে পারে না। শিক্ষা ব্যবস্থা সংস্কার করার কথা একাধিকবার বলেছি, সরকার কর্ণপাত করেনি। তিনি বলেন, সৌদিতে নারী শ্রমিক পাঠানো হচ্ছে। তারা সেখানে গিয়ে ভয়ানক নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। সেখানে পাঠানো দরকার প্রশিক্ষিত কর্মী।

তিনি আরও বলেন, ফিলিস্তিনে পাখির মত মানুষ গুলি করে হত্যা করা হচ্ছে। কারণ আমরা মুসলমান, মানুষ নই। ইসলামী দেশ গুলো এ ব্যপারে একমত হতে পারছে না। দেশেও অনেক ইসলামীদল রয়েছে। তারাও একত্রিত হতে পারছে না। সবাইকে এক হতে হবে, এছাড়া মুক্তিরর পথ নাই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত