প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চীনে ট্রাম্প-কন্যার ট্রেডমার্ক অনুমোদনের বৈধতা নিয়ে বিতর্ক

আনন্দ মোস্তফা: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কন্যা ইভাঙ্কা ট্রাম্প চলতি মাসের প্রথম দিকে চীনে পাঁচটি ব্যবসা ট্রেডমার্কের অনুমোদন পেয়েছেন। অনুমোদনের কিছুদিন পরই ট্রাম্প হঠাৎ করেই চীনা টেলিকম প্রতিষ্ঠান জেডটিইর ওপর আরোপ করা প্রযুক্তি বাধা প্রত্যাহার করে নেন বলে সরকারি নথিতে দেখা গেছে।

সিটিজেন্স ফর রেসপনসিবিলিটি অ্যান্ড এথিকস ইন ওয়াশিংটন (সিআরইডব্লিউ) নামক একটি পর্যবেক্ষক সংস্থা ট্রেডমার্ক-সংক্রান্ত চীনা সরকারের নথিগুলো প্রথমবারের মতো প্রকাশ করেছে। এতে দেখা যায়, ট্রাম্প জেডটিইর ওপর বাধা তুলে নেয়ার সপ্তাহখানেক আগে ৭মে ট্রেডমার্কগুলোর অনুমোদন পান ইভাঙ্কা। এ অনুমোদন এবং ট্রাম্পের অন্য ব্যবসাগুলোর সঙ্গে চীনের সম্পর্ক ‘নৈতিকতার প্রশ্ন উঠছে’ বলে মন্তব্য করে সিআরইডব্লিউ।

সিআরইডব্লিউ আরো জানায়, গত বছরের মার্চে ট্রেডমার্কগুলো অনুমোদনের জন্য আবেদন করা হয় এবং এর পরিপ্রেক্ষিতে ইভাঙ্কার কোম্পানিকে গোসলের ম্যাট্রেস, টেক্সটাইল এবং শিশুদের কম্বলের মতো পণ্যের ট্রেডমার্ক অধিকার দেয়া হয়। ইভাঙ্কার মালিকানাধীন ইভাঙ্কা ট্রাম্প মার্কস এলএলসির চীনে এরই মধ্যে এক ডজনের বেশি ট্রেডমার্ক রয়েছে এবং আরো কয়েকটি অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে।

উল্লেখ্য, ইভাঙ্কা পিতার একজন উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করলেও একই সঙ্গে তিনি বিভিন্ন লাভজনক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত। এসব পণ্যের অন্যতম প্রধান সরবরাহকারী হচ্ছে চীন।

ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকর্তারা গত মাসে প্রায় ৮০ হাজার কর্মীসমৃদ্ধ চীনা টেলিকম জায়ান্ট জেডটিইর কাছে গুরুত্বপূর্ণ মার্কিন প্রযুক্তি বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাব করে।

তবে গত ১৩ মে এক টুইটার বার্তায় ট্রাম্প জানান, চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে মিলে তিনি জেডটিইকে ব্যবসায় রাখার এবং চীনা কর্মসংস্থানগুলো বাঁচানোর চেষ্টা করে যাচ্ছেন। চীনের বাণিজ্যচর্চা মার্কিন কর্মসংস্থানগুলো ধ্বংস করছে নিয়মিত এ অভিযোগ করে আসা ট্রাম্পের জেডটিই বিষয়ে অবস্থান বিস্ময়ের জন্ম দিয়েছিল। এএফপি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত