প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চুয়াডাঙ্গায় বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত

শামসুজ্জোহা পলাশ, চুয়াডাঙ্গা : চুয়াডাঙ্গায় পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে ১২ মামলার আসামি মাদক ব্যবসায়ী তানজিল হোসেন (৪০) নিহত হয়েছে।

বুধবার (৩০ মে) ভোররাতে চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার সাতগাড়ি নতুনপাড়া এলাকাতে এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে একটি শাটারগান, ৪ রাউন্ড গুলি ও এক বস্তা ফেন্সিডিল উদ্ধার হয়েছে বলে দাবি করছে পুলিশ। নিহত তানজিল চুয়াডাঙ্গা শহরতলীর দৌলতদিয়াড় গ্রামের মৃত রমজান আলীর ছেলে।

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদে খবর পায় যে চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার সাতগাড়ী গ্রামের একটি মাঠের মধ্যে মাদক ব্যবসায়ীরা অবস্থান করছে। এ খবর পেয়ে সদর থানার ইন্সপেক্টর (ওসি তদন্ত) আব্দুল খালেক ও ইন্সপেক্টর (ওসি অপারেশন) আমির আব্বাসের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ওই এলাকায় অভিযান শুরু করে।

পুলিশ দাবি করছে, ভোর পৌনে ৩ টার দিকে তারা সাতগাড়ি গ্রামের নতুনপাড়ায় পৌঁছালে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা তাদের ওপর গুলিবর্ষণ শুরু করে। এ সময় পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে শুরু হয় দু’পক্ষের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধ।

সদর থানার ইন্সপেক্টর (ওসি অপারেশন) আমির আব্বাস জানান, বন্দুকযুদ্ধের খবর পেয়ে সদর থানা থেকে পুলিশের আরো একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছিয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলে। প্রায় আধাঘন্টাব্যাপি বন্দুকযুদ্ধ চলার এক পর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পিছু হটে।

পরে স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় ওই এলাকায় তল্লাশী অভিযান চালানো হয়। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে মাদক ব্যবসায়ীদের ফেলে যাওয়া একটি শাটারগান, ৪ রাউন্ড গুলি ও এক বস্তা ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়। সড়কের একটু দুরে জঙ্গলের মধ্যে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তানজিলকে উদ্ধার করে দ্রুত সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। হাসপাতালের নেওয়ার পর জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. আওলিয়ার রহমান তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ইন্সপেক্টর তদন্ত আব্দুল খালেক জানান, নিহত তানজিল চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশের মোস্ট ওয়ানটেড তালিকাভুক্ত। তার নামে সদর থানায় ১২টি মাদক মামলা রয়েছে। বন্দুকযুদ্ধের সময় উপ-পরিদর্শক রবিউল হক ও কনস্টেবল আব্দুস সবুরও আহত হয়েছে বলে তার। নিহত তানজিলের লাশ সদর হাসপাতালে রাখা হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে তার মরদেহ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ