প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘শেয়ারবাজারে আসলে দুই বছরের কর মওকুফ করা উচিৎ’

ফয়সাল মেহেদী: বাংলাদেশ স্টাডি ট্রাস্ট ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) চেয়ারম্যান ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, কোনো কোম্পানি শেয়ারবাজারে আসলে প্রথম দুই বছর কর মওকুফ করা উচিৎ। যাতে কোম্পানিগুলো শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হতে উৎসাহ পায়। বাংলাদেশ স্টাডি ট্রাস্টের ‘স্বপ্ন পূরণের বাজেট’ প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির রূপরেখা শীর্ষক মূল প্রবন্ধে তিনি এসব কথা বলেন।

আব্দুল মোমেন বলেন, আমাদের দেশের শেয়ারবাজার তুলনামূলকভাবে অত্যান্ত দুর্বল। জাতীয় বাজেটে বা জিডিপিতে এর অবদান খুবই কম অর্থাৎ শতকরা ২১ ভাগ মাত্র। এ অবস্থা থেকে উত্তরণ প্রয়োজন। তিনি বলেন, প্রতিবেশী দেশ ভারতের জিডিপিতে দেশটির শেয়ারবাজারের অবদান ৮৬ ভাগেরও বেশি। আর থাইল্যান্ডে প্রায় ১১৭ ভাগ, যুক্তরাষ্ট্রে ১৪০ ভাগ এবং সুইজার ল্যান্ডে ২২৯ ভাগ।

ড. মোমেন বলেন, বালাদেশের শেয়ারবাজারের গভীরতা এবং তালিকাভুক্ত কোম্পানির সংখ্যা খুবই কম। যার ফলে মেনিপুলেশন বা কারসাজি সহজ। তালিকাভুক্ত কোম্পানির সংখ্যা বাড়ানো উচিৎ। আর শতকরা ১৫ ভাগ আয়কর ছাড় দিলে কিছু কোম্পানি তালিকাভুক্ত হতে পারে।

তিনি বলেন, সরকারি ব্যাবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলো এবং বিদেশী ব্যাবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোকে বাধ্যতামূলকভাবে তালিকাভুক্ত করতে অনেকেই সুপারিশ করেছেন। এবারের বাজেটে শেয়ারবাজারে বহুজাতিক কোম্পানিগুলোকে তালিকাভুক্ত করতে বিশেষ দিক-নির্দেশনা থাকতে হবে। এছাড়া ব্যাংকের সুদের হার ও ঋণ দেবার বাধ্যবাধকতারও সমন্বয় প্রয়োজন।

সিএসই চেয়ারম্যান বলেন, অনেক দেশেই অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য বন্ড ছাড়া হলে সেগুলোকে আয়কর মুক্ত রাখার বিধান রয়েছে। চীনা জোট ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) কৌশলগত বিনিয়োগকারী হওয়ার পর অনেকে গেইন ট্যাক্স মওকুফের প্রস্তাব দিয়েছেন। এটা গ্রহণ করা হলে এই অতিরিক্ত পুঁজি যেন বিদেশে পাচার বা খরচের খাতে ব্যায় না হয়, শুধু শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করা হয়- এমন শর্ত জুড়ে দিতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত