প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নির্বাচন করবাে কীনা এ নিয়ে এখন কথা বলব না: মাশরাফি

স্পাের্টস ডেস্ক : সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়ার বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের বক্তব্যের বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া নেই জাতীয় দলের ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মোর্ত্তজার। এই বিষয়ে তিনি এখনই কিছু বলতে চান না।

গত কয়েক বছর ধরেই আওয়ামী লীগের হয়ে মাশরাফির আগামী নির্বাচনে অংশ নেয়ার গুঞ্জন আছে। নিজ এলাকা নড়াইলের একটি আসন থেকে তিনি ভোটে দাঁড়াতে পারেন বলে প্রচার ছিল।

এই গুঞ্জনের মধ্যে মঙ্গলবার পরিকল্পনামন্ত্রী জানিয়ে দেন মাশরাফি ভোটে দাঁড়াচ্ছেন। এই ক্রিকেট তারকাকে ভালো মানুষ উল্লেখ করে তাকে ভোট দেয়ারও আহ্বান জানান তিনি।

এমনকি মাশরাফি যদি বিএনপি থেকেও ভোটে দাঁড়ান তাহলেও যেন সবাই তাকে ভোট দেন, সেই অনুরোধও করেন মন্ত্রী।

বিষয়টি নিয়ে মাশরফি কী ভাবছেন, তা জানতে যোগাযোগ করা হয় তার সঙ্গে। তবে তিনি কথা বলতে নারাজ। টাইগার ক্রিকেট তারকা বলেন, ‘এ বিষয়ে এখন কিছু জিজ্ঞেস করবেন না, এখন এ নিয়ে কথা বলতে চাই না।’

মাশরাফি ভোটে দাঁড়ালে বিএনপি নয়, আওয়ামী লীগ থেকেই দাঁড়াবেন, এটা নিশ্চিত প্রায়। কারণ, তার পরিবার আওয়ামী লীগপন্থী হিসেবেই পরিচিত।

আর মাশরাফিরও কিছু প্রস্তুতি আছে। নড়াইলে নিজ এলাকায় বেশ কিছু সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে জড়িত তিনি। স্থানীয়দের জন্য জনকল্যাণমূলক বেশ কিছু কাজ আছে তার। আওয়ামী লীগ বা সমমনা সংগঠনগুলোর নানা অনুষ্ঠানেও তাকে দেখা গেছে।

পরিকল্পনামন্ত্রী অবশ্য জানেন, মাশরাফি কোন দল থেকে ভোটে দাঁড়াবেন। তবে সেটা প্রকাশ করতে চাননি।

মন্ত্রী অবশ্য কেবল মাশরাফি নয়, বলেছেন সাকিব আল হাসানের কথাও। তবে সেটা নিজে থেকে নয়, বলেছেন গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে।

আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানিয়েছেন, আগামী নির্বাচনে মাশরাফিকে মনোনয়ন দেয়ার সম্ভাবনার বিষয়ে জানেন তারা। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগ্রহী। তবে সাকিবের বিষয়টি জানা নেই তাদের।

চলতি বছরের শেষে ডিসেম্বরে অথবা আগামী জানুয়ারিতে হবে আগামী সংসদ নির্বাচন। আর ২০১৯ সালের ৩০ মে থেকে ১৫ জুলাই ইংল্যান্ডে হবে ক্রিকেট বিশ্বকাপ। এই টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ দলের হয়ে অংশ নেয়ার সম্ভাবনা আছে মাশরাফির।

ভারত এবং পাকিস্তানে বেশ কয়েকজন ক্রিকেটারের নির্বাচনে অংশ নেয়ার উদাহরণ আছে। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অবসর নেয়ার পর রাজনীতিতে জড়িয়েছেন তারা।

পরিকল্পনামন্ত্রী অবশ্য মনে করেন খেলোয়াড় থাকা অবস্থায় নির্বাচনে কোনো সমস্যা থাকার কথা নয়।

বাংলাদেশে জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক নাইমুর রহমান দুর্জয় এবং জাতীয় ফুটবল দলের সদস্য আরিফ খান জয় আওয়ামী লীগের হয়ে যথাক্রমে মানিকগঞ্জ ও নেত্রকোণা থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। দ্বিতীয় জন আবার যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। -ঢাকাটাইমস

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত