প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রে এখনও অর্থছাড়ের অনুমোদন মেলেনি

আদম মালেক : পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে চায়না এক্সিম ব্যাংক অর্থায়ন করলে এখনও অর্থছাড়ের অনুমোদন দেয়নি বাংলাদেশ ব্যাংক। অর্থাভাবে স্থবিরতা বিরাজ করছে নির্মাণ কাজে। এতে বিস্ময় প্রকাশ করেছে ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানটি। নির্ধারিত সময়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন নিয়েও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্র জানায়, এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি নির্মাণে গত ৩ মে এক্সিম ব্যাংক ৪৩০ মিলিয়ন ডলারের প্রথম কিস্তি ছাড় দেয়। নিয়ম অনুযায়ী, এক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংকের আর কোনো দায়িত্ব না থাকলেও তাদের অনুমোদন ছাড়া বৈদেশিক ঋণের অর্থ ছাড় করা যায় না। ফলে এই অর্থ ছাড়ের জন্য বাংলাদেশে ব্যাংকের অনুমোদনের প্রয়োজন হয়। প্রায় একমাস হয়ে গেলেও এ পর্যন্ত পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অর্থ ছাড়ের অনুমোদন দেয়নি বাংলাদেশ ব্যাংক।

বিদ্যুৎ বিভাগের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তার অভিযোগ— কোনো কারণ ছাড়াই তারা (বাংলাদেশ ব্যাংক) সময় ব্যয় করছে। তিনি জানান, যে কর্মকর্তার কাছে অর্থ ছাড়ের কাজ তিনি হয়তো দেখা গেছে, ফাইল আটকে রেখেই প্রশিক্ষণে চলে গেছেন। সরকারের অগ্রধিকার প্রকল্পে এভাবে দেরি করাটা যৌক্তিক না হলেও করা হচ্ছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের জিএম (নীতি) খোরশেদ ওহাব বলেন, ‘আমরা অর্থ ছাড় করি না। অনুমোদন দেই।’ এই অনুমোদন প্রক্রিয়াতে দেরি হতেই পারে। কেন দেরি হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি অফিসের বাইরে, না দেখে বলতে পারবো না।’

চীনের এক্সিম ব্যাংকের একটি প্রতিনিধি দল সম্প্রতি ঢাকা সফরে আসে। এখনও বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অর্থ ছাড় হয়নি শুনে তারা বিস্ময় প্রকাশ করেছে। প্রতিনিধি দল উল্টো প্রশ্ন তুলেছে— তাদের দেওয়া ঋণের অর্থ ছাড় করতে এত বেশি সময় নিলে ঋণ পরিশোধের সময় কী করবে বাংলাদেশ।

এক্সিম ব্যাংক পায়রার বিদ্যুৎকেন্দ্রটি নির্মাণে ১৯৮ কোটি ডলার ঋণ সহায়তা দেবে।এই ঋণের অর্থ বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমেই দেশে আসবে। এ জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী ১৭টি হিসাব (অ্যাকাউন্ট) খোলা হয়েছে। এর মধ্যে নয়টি হিসাব হলো ইউএসডি অ্যাকাউন্ট (ফরেন কারেন্সি অ্যাকাউন্ট)।

বিসিপিসিএল সূত্র জানায়, এরইমধ্যে বিদ্যুৎকেন্দ্রটির ৩৮ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। বর্তমানে অবকাঠামো নির্মাণের কাজ চলছে। আগামী জুলাই থেকে কেন্দ্রের যন্ত্রাংশ বাংলাদেশে আসার কথা থাকলেও এখন অর্থের অভাবে কাজের গতি কমে গেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত