প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মাঝরাস্তায় গাড়ি রাখা যেন তাদের অধিকার

তুষার আবদুল্লাহ : ঢাকা শহরে জ্যামের কথা বলতে গেলে যেন তার শেষ নেই। রমজানের প্রথম দিকে তেমন কেনাকাটা শুরু করেননি ক্রেতারা। তবে শুক্রবারে অনেকেই মার্কেটমুখী হয়েছিলেন। সক্ষমতা বাড়ায় ব্যক্তিগত ও ভাড়া গাড়ি ব্যবহারকারীর সংখ্যা কম নয়। । তাই প্রতিটি মার্কেট ঘিরে রেখেছিল গাড়ি। মার্কেটের সামনে দুই সারি করে গাড়ি রাখায় সব সড়কেই কম-বেশি বড় যানজট তৈরি হয়েছিল। ট্রাফিক পুলিশ, সার্জেন্ট, ইনস্পেক্টর, সহকারী কমিশনার মিলিয়েও রাস্তা হালকা করতে পারছিলেন না।

অনুরোধ, উপরোধ, ধমক দিয়েও কোনও কোনও গাড়িকে সরানো যাচ্ছিল না। উল্টো বিভিন্ন গাড়ির যাত্রীরা তাদের ওপর চড়াও হচ্ছিলেন। যেন মাঝরাস্তায় গাড়ি রাখা তাদের অধিকার। কিছুদিন ঢাকার বাইরে ছিলাম। ঢাকার বাইরেও এখন ঠিক ঢাকার মতই যানজট হয়। জেলা উপজেলার বিপণী বিতান গুলোতে আলোকসজ্জা করা হয়েছে। আগে জেলা শহর গুলোতে আগের মত নেই, এখন জেলা শহর গুলোতে ব্যক্তিগত গাড়ির সংখ্যা বেড়ে গেছে। শহর গুলোতে অতিরিক্ত বিপণী বিতান হওয়াতে গাড়ি চলাচল বেড়ে গেছে।

নগর ও জেলা পুলিশের পাশাপাশি কমিউনিটি পুলিশও দায়িত্ব পালন করছে,  কিন্তু যানজট সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে। খেয়াল খুশিমত গাড়ি থামিয়ে মানুষ কেনাকাটা করছে। একজন ট্রাফিক পুলিশকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম ছোট শহরেও যানজট? তাদের জবাব ছিল মজারÑ‘ছোট শহরে বড় ভিআইপি আছে ভাই। সরকারি লোক কথা শোনে না’। পাল্টা জানতে চেয়েছিলামÑবেসরকারি লোক শোনে? উত্তর পাইÑকেউ ডরায়। আবার বেসরকারিতেও ভিআইপির অভাব নেই।

পরিচিতি : লেখক ও বার্তা প্রধান, সময় টিভি/মতামত গ্রহণ: মাহবুবুল ইসলাম/সম্পাদনা: মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত