প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আইএসআই’র সাবেক প্রধানের পাকিস্তান ত্যাগে নিষেধাজ্ঞা

আব্দুর রাজ্জাক: পাকিস্তানের সেনাবাহিনী এক নজিরবিহীন পদক্ষেপ নিয়ে সেদেশের সেনা গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই’র সাবেক প্রধান লে. জেনারেল (অব.) আসাদ দুররানির দেশত্যাগের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। আফগানিস্তান ও কাশ্মিরে পাক সেনাবাহিনীর কথিত ভূমিকা নিয়ে ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-এর একজন সাবেক প্রধানের সঙ্গে যৌথভাবে বই লেখার পর তার বিরুদ্ধে এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হলো।

জেনারেল দুররানি ১৯৯০ থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত পাকিস্তানের প্রভাবশালী গোয়েন্দা সংস্থা- আইএসআই’র প্রধান ছিলেন। একজন পাক সেনা মুখপাত্র বলেছেন, দুররানি যাতে দেশত্যাগ করতে না পারেন সেজন্য তার নাম ‘এক্সিট কন্ট্রোল লিস্টে’ রাখা হয়েছে।

সম্প্রতি জেনারেল দুররানি ও ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা ‘র’-এর সাবেক প্রধান এ.এস. দৌলতের লেখা একটি বই প্রকাশিত হয়। ‘দ্যা স্পাই ক্রনিকলস: র, আইএসআই অ্যান্ড দ্যা ইলিউশন অব পিস’ নামক বইটি গত সপ্তাহে প্রকাশিত হওয়ার পর ভারত ও পাকিস্তানের বিতর্কের ঝড় বয়ে যায়।

বিশেষ করে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী কঠোর প্রতিক্রিয়া দেখিয়ে জেনারেল দুররানিকে তলব করে এ বই লেখার পেছনে তার ভূমিকা সম্পর্কে ব্যাখ্যা জানতে চায়। পাক সেনাবাহিনী জানায়, এটি লিখে সেনাবাহিনীর ‘কোড অব কন্ডাক্ট’ লঙ্ঘন করেছেন দুররানি।

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরে তৎপর গেরিলাদের পাকিস্তান পৃষ্ঠপোষকতা দেয় বলে নয়াদিল্লি অভিযোগ করে আসছে। এ ছাড়া, আফগানিস্তানে তৎপর তালেবান জঙ্গিসহ অন্যান্য উগ্রবাদী গোষ্ঠীকে পাকিস্তান সহযোগিতা দিচ্ছে বলে অভিযোগ করছে আমেরিকা। দু’টি অভিযোগই অস্বীকার করে থাকে ইসলামাবাদ।

আঞ্চলিক সংঘর্ষে পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর পরোক্ষ অংশগ্রহণ বা ইন্ধন নিয়ে দেশটিতে কথা বলাকে নিষিদ্ধ মনে করা হয়। জন্মলগ্ন থেকে পাকিস্তানের সবচেয়ে শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান হচ্ছে সেনাবাহিনী। পাকিস্তানের ইতিহাসের প্রায় অর্ধেক সময় শাসন করেছে এ বাহিনী। দেশটিতে যেকোনো ধরনের তৎপরতা চালানোর ক্ষেত্রে দায়মুক্তি ভোগ করার ক্ষেত্রেও পাক সেনাবাহিনীর বদনাম রয়েছে। টাইমস অব ইন্ডিয়া

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত