প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘সরকার অননুমোদিত হত্যাকান্ডে সমর্থন করে না’(ভিডিও)

আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নুরজাহান বেগম মুক্তা বলেন, সরকারও এই অননুমোদিত হত্যাকান্ডে সমর্থন করে না। যদি কোন নিরপরাধ লোক মারা যায়। তাহলে সেটা ম্যাজিস্ট্রেট কতৃত্ব তদন্ত হবে। তদন্তে যদি প্রমাণিত হয় কোন নিরপরাধ কাউকে হত্যা করা হয়েছে। তাহলে যে এটা করেছে তার বিরুদ্ধে মার্ডার ক্যাস ফাইল হবে।

নবনীতা চৌধুরীর সঞ্চালনায় ডিবিসি নিউজের নিয়মিত অনুষ্ঠার রাজকাহন ‘মাদক অভিযানে যুব সমাজ রক্ষা পাবে?’ বিষয়ক আলোচনায় তিনি একথা বলেন। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা

অ্যাডভোকেট নুরজাহান বেগম মুক্তা বলেন,আমি জানতাম না কোন মানুষ মরলে অন্য মানুষ খুশি। সেটা দেখছি মাদক বিরোধী অভিযানে ক্রসফায়ারে মাদক ব্যবসায়ী মারা যাওয়া সাধারণ মানুষের মধ্যে একটা খুশির ভাব দেখতে পারছি। সেটা স্যোসাল মিডিয়া থেকে শুরু করে সব জায়গায় দেখা যাচ্ছে। সাধারণ মানুষ এটাকে ভালোভাবেই নিচ্ছে। সরকার এতদিন পরে মাদক নামের মরণব্যাধির বিরুদ্ধে এমন একটি অভিযান শুরু করেছে। যেটা মনে প্রাণে সবাই চেয়েছে এত দিন। যার কারণে আমাদের যুব সমাজ ধ্বংসের দিকে চলে গেছে। আমাদের দেশের ৭০লাখ লোক মাদকাসক্ত লোক। এই ৭০ লাখের মধ্যে জাতিসংঘের মতে,৮৪ভাগ পুরুষ ,১৬ভাগ নারী তারমধ্যে ৮০ তরুণ।

তিনি আরও বলেন,আমাদের দেশে সাড়ে তিন লাখ মাদক ব্যবসায়ী আছেন। এই ব্যবসায়ীরা ৭০ লাখ মাদক আসক্তকে ঘিরে ৬০ কোটি টাকার মাদক বাণিজ্যের পায়তারা চলে। কোন ব্যবস্থা নেওয়া না হলে। আর এভাবে চলতে থাকলে ৭০ লাখ মাদকাসক্ত থেকে ২০২০ সালে বেড়ে গিয়ে এক কোটিতে দাঁড়াবে ।

এক প্রশ্নের জবাবে অ্যাডভোকেট নুরজাহান বেগম মুক্তা বলেন,আইনশৃঙ্খলাবাহিনী মাদক বিরোধী অভিযানে কিন্তু কাউকে মারার জন্য নামে না। কিন্তু যাদেরই ধরতে যায় তাদের সকলই প্রভাবশালী এবং তাদের কাছে অবৈধ অস্ত্রও মাদক থাকে । তারা সকলে তালিকাভুক্ত। যাদের পাঁচটা অভিন্ন রিপোর্টে নাম এসেছে। তাদেরকেই কেবল ধরতে অভিযান চালাচ্ছে আইনশৃঙ্খলাবাহিনী। আইনের আওতায় আনতেই তাদের ধরতে অভিযান। যাতে এটা বন্ধ করা যায়। আইনশৃঙ্খলাবাহিনী কাউকে মারার জন্য অভিযান চালায় না। সরকারও এই অননুমোদিত হত্যাকান্ডে সমর্থন করে না। যদি কোন নিরঅপরাধ লোক মারা যায়। তাহলে সেটা ম্যাজিস্ট্রেট কতৃত্ব তদন্ত হবে। তদন্তে যদি প্রমাণিত হয় যাকে হত্যা করা হয়েছে। তিনি অপরাধী ছিলেন না। তাহলে যে এটা করেছে তার বিরুদ্ধে মার্ডার ক্যাস ফাইল হবে।

ডিবিসি নিউজ রাজকাহন দ্বিতীয় অংশ। ২৮ মে/১৮

ডিবিসি নিউজ রাজকাহন দ্বিতীয় অংশ। ২৮ মে/১৮বিষয়: মাদক অভিযানে যুব সমাজ রক্ষা পাবে?সঞ্চালনা: নবনীতা চৌধুরী অতিথি: আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নুরজাহান বেগম মুক্তা, বিএনপির সহ-আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা এবং গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি। #dbcnews

Gepostet von DBC NEWS am Montag, 28. Mai 2018

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত