প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রাসাদ হামলায় গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন সৌদি যুবরাজ

লিহান লিমা: গত এক মাস ধরে লোকচক্ষুর আড়ালে ছিলেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। তার অন্তরালে থাকা নিয়ে সৃষ্টি হয়েছিলো নানান গুজব, তিনি আদৌ বেঁচে আছেন কি না তা নিয়েও সন্দেহ জন্ম নিয়েছিল। সম্প্রতি প্রেস টিভি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানা যায়, এক মাস আগে রিয়াদের প্রাসাদে চালানো এক হামলায় গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়েছিলেন াআলোচিত এই যুবরাজ যুবরাজ।

বিশ্বাসযোগ্য সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে ইসলামিক রিভাইভাল পার্টির মহাসচিব মোহাম্মদ আল মিসৌরি লেবাননের আল মায়েদান টিভিকে দেয়া সাক্ষাতকারে বলেন, ‘গত এপ্রিলের হামলায় বিন সালমান আহত হয়েছিলেন। তাকে শরীরে দুইটি গুলি লেগেছিল।

২১ এপ্রিল রিয়াদের প্রাসাদের বাহিরে তুমুল বন্দুকযুদ্ধের খবর জানায় গণমাধ্যম। সৌদি আরবের রাষ্ট্রায়াত্ত সংবাদ মাধ্যম জানায়, একটি খেলনা ড্রোন প্রাসাদের কাছে উড্ডয়ন করেছিল। কিন্তু অনেকে মনে করছেন, এটি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজকে উৎখাতের একটি প্রচেষ্টা ছিল। সৌদি প্রিন্সের পশ্চিমা দেশগুলোতে দীর্ঘ সফরের পর এই ঘটনা ঘটে। এরপর আর যুবরাজের নতুন কোন ছবি বা ভিডিও দেখা যায় নি। সালমানের দীর্ঘদিনের এই অনুপস্থিতি তার ভাগ্য নিয়ে নতুন ভাবনার জন্ম দিয়েছিল।

তবে এক সপ্তাহ আগে সৌদি রাজপরিবার মন্ত্রীপরিষদের সঙ্গে যুবরাজ বৈঠক করছেন এমন ছবি প্রকাশ করে। কিন্তু টুইটার ব্যবহারকারীরা তা বিশ্বাস করতে রাজি নন। তাদের দাবি এটি, যুবরাজের প্যারিস সফরের আগের ছবি। যা তখনই মিডিয়াতে প্রকাশিত হয়েছিল। কিন্তু গত শুক্রবার ফিফার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সালমানের  বৈঠকের পর সন্দেহ দূর হয়।

দ্য অবজারভার জানায়, নানা ইস্যুতে রাজপরিবার অর্ন্তকলহে জড়িয়েছিল। প্রয়াত বাদশাহের দুই সন্তান বিন নায়েফ ও মুতাব বিন আবদুল্লাহ ইয়ামেনে সৌদি হস্তক্ষেপ ও কাতারের ওপর নিষেধাজ্ঞার পক্ষপাতী ছিলেন না। এছাড়া দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের নামে শত শত রাজপুত্রদের আটক ক্ষোভের জন্ম দিয়েছিল। যুবরাজ যদি বেঁচেও থাকল্ওে এই ঘটনা রিয়াদের প্রাসাদের হামলার অন্যতম কারণ। বিশ্লেষকরা বলেন, ‘সালমান ক্ষমতা ও প্রতিপত্তির প্রতি তৃষ্ণার্ত। কিন্ত তিনি অনভিজ্ঞ। এই দুইয়ের মিশ্রণ তাকে ঝুঁকির মুখে ফেলতে পারে।’ প্রেস টিভি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত