প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘সংবিধান মানেই পবিত্র কিছু নয়’

রবিন আকরাম : সবচেয়ে কৌতুহল জনক হচ্ছে মানবাধিকার পরিপন্থী ক্রসফায়ার আমাদের সংবিধান অনুসারে বেআইনি নয়। আইন মানেই ন্যায় বা ন্যায্যতা নয়, আর সংবিধান মানেই পবিত্র কিছু নয় বলে মনে করেন লেখক ও ব্লগার পিনাকী ভট্টাচার্য।

তিনি তার ফেসবুকে আরো লিখেছেন- সংবিধানে যেখানে মৌলিক অধিকারসমূহের বিবরণ দেয়া হয়েছে সে অধিকারসমূহকে ‘আইনানুযায়ী’ বা ‘আইনের বিধান সাপেক্ষে’ বা ‘জনস্বার্থে প্রচলিত আইনের বিধি নিষেধ সাপেক্ষে’ ইত্যাদি শব্দ ব্যবহার করে মৌলিক মানবাধিকারের ধারণাকেই পঙ্গু করে দেয়া হয়েছে। সংবিধানে বলা হয়েছে- “আইনানুযায়ী ব্যাতীত জীবন ও ব্যক্তি স্বাধীনতা হইতে কোন ব্যক্তিকে বঞ্চিত করা যাইবে না।”

তার অর্থ দাঁড়ায়- আইনের মাধ্যমে ছাড়া কোন ব্যক্তিকে জীবন ও ব্যক্তি স্বাধীনতা হতে বঞ্চিত করা যাবে না, অর্থাৎ আইন নির্ধারিত পদ্ধতিতে তা করা যাবে। এ জন্যই বিচারবহির্ভুত হত্যা বা ‘ক্রসফায়ার’ এর মতো বর্বর ব্যবস্থাটিও সংবিধানসম্মত হয়ে যায়। কারণ দেখানো যায় ‘ক্রসফায়ার’ও আইনসম্মত।

তাহলে কোন আইনে ক্রস ফায়ার আইনগত ভিত্তি পায়?

১৮৯৮ সালের ব্রিটিশ প্রবর্তিত ফৌজদারী কার্যবিধি বা সংবিধান অনুযায়ী, আইন তার ধারা অনুযায়ী বিচারে মৃত্যুদণ্ড বা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হতে পারে এমন অভিযোগে অভিযুক্ত আসামীকে গ্রেফতার করার ক্ষেত্রে ছাড়া পুলিশ কাউকে হত্যা করতে পারবে না। তবে এমন কোন ঘটনা ঘটলে একটি প্রশাসনিক তদন্তে গুলি ছোঁড়ার ঘটনাটিকে আত্মরক্ষা বলে মনে করলেই হত্যাকাণ্ডটি আইনসম্মত হয়ে যায়। সেই জন্য পুলিশের/র‍্যাবের গুলিতে নিহত প্রত্যেককে সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসায়ী ও খুনের মামলার আসামী হতে হয়।

২০০ বছরের কলোনিয়াল আইনের উত্তরাধীকার যেই স্বাধীন রাষ্ট্রকে বহন করতে হয় সেই রাষ্ট্র কি আদৌ স্বাধীন? আপনি এই সংবিধান জারি রেখে ক্রসফায়ার বন্ধ করতে পারবেন না। আমরা গোড়ায় গলদ করে রেখেছি, এখন আগায় পানি ঢেলে লাভ নাই।

আমাদের পুর্বসুরীরা কেমন দিগগজ ছিল দেখেন। এরাই বলে এই সংবিধান নাকি পৃথিবীর অন্যতম সেরা সংবিধান।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত