প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

চালকদের অসুস্থ প্রতিযোগিতা এবং পথচারীদের মানসিকতা

ডা. মো. তাজুল ইসলাম: চালকদের অসুস্থ প্রতিযোগিতায় আমাদের অনেক প্রাণ অকালে যায়। এখানে চালকদের দায় অবশ্যই আছে। তাদের বেপরোয়া মনোভাবের কারণে বহু সম্ভাবনাময় জীবন অকালে ঝরছে। তারা দাম্ভিক হয়। কারও কোনো কথা শুনতে চায় না। শোনার মনমানসিকতাও থাকে না। এটা তাদের দোষ অবশ্যই। কিন্তু আমরা যারা পথচারি, তাদের কি কোনো দোষ নেই? আমরা আমাদের দায়িত্বটুকু কি যথাযথভাবে পালন করি? করি না। আমাদের মনমানসিকতায়ও ঝামেলা আছে।
আমরা যারা সচেতন তারা হয়তো খেয়াল করে রাস্তা পার হই, কিন্তু অনেকেই আছেন যারা গ্রামের মানুষ, অশিক্ষিত রাস্তা পারাপারের নিয়ম-কানুন, কৌশল সম্পর্কে তাদের কোনো ধারণা নেই। ফলে এ বিষয়ে সচেতনতা তৈরি করতে হবে। সময়ের চেয়ে জীবনের মূল্য অনেক বেশি, যারা এটা জানেন তারা মানেন। কিন্তু যারা জানেন না তারা বিষয়গুলোতে গুরুত্বও দেন না। চিন্তাও করেন না বিশৃঙ্খলা, এলোপাতাড়িভাবে রাস্তা পারাপারে জীবনে বড় ধরনের বিপদ ঘটতে পারে।

রাস্তা পারাপারের বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করা দরকার। পথচারি পারাপারের জন্য যে ফুটওভারব্রিজগুলো তৈরি করা হয়েছে, তা ব্যবহার করতে হবে। আমি বিশ্বের বহু দেশ ঘুরেছি। দেখেছি তারা কীভাবে ট্রাফিক আইন মেনে চলে। বিদেশে রাস্তার উপড় দিয়ে, দৌড়ে গিয়ে লাফ দিয়ে রাস্তা পারপার করার সিস্টেম নেই।

পার্থক্য কী বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে আমাদের? ওরা আইন মানে, আমরা মানি না। মানার চেষ্টাও করি না। এ ধরনের মনোভাব আমাদের মধ্যে নেই। কেন নেই, কেন এমনটি হচ্ছে? আমাদের মানসিকতা এখানে দায়ী। আমরা সবকিছু খুব তাড়াতাড়ি করতে চাই। রাস্তায়ও তার প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। এ ধরনের মানসিকতা আমাদের পরিহার করতে হবে। নিয়ম-কানুন মেনে চলতে হবে। দুর্ঘটনামুক্ত সুস্থ জীবন প্রত্যাশ করছি আপনাদের।
পরিচিতি : অধ্যাপক, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত