প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সালাহর চোখের পানি মুছে দিলেন রোনালদো

স্পোর্টস ডেস্ক: চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের প্রথমার্ধে চোট পেয়ে ভেজা চোখে মাঠ ছাড়লেন লিভারপুলের তারকা ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ সালাহ৷ রিয়ালের ডিফেন্ডার রামোসের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ঘাড়ে চোট পান লিভারপুলের মিশরীয় ফরোয়ার্ড৷ ম্যাচের ৩০ মিনিটের মাথায় মাঠ ছাড়ার আগে কাঁদতে থাকা সালাহর কাছে গিয়ে তাকে সান্তনা দিলেন রিয়ালের সেরা ফুটবলার রোনালদো। খেলায় ১-৩ গোলে রিয়ালের কাছে হেরে যায় লিভারপুল।

ছড়িয়ে পড়েছে ‘মো সালাহ জ্বর’

ক্লাব ফুটবলে পৃথিবীর এক নম্বর টুর্নামেন্ট উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল হলো শনিবার। মোকাবিলা করে ইংলিশ ক্লাব লিভারপুল আর স্প্যানিশ ক্লাব রেয়াল মাদ্রিদ। কিয়েভে অনুষ্ঠেয় এই ম্যাচে বল গড়ানোর জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে সারা পৃথিবীর ফুটবল ভক্তরা।

কিন্তু শুধু এই ম্যাচ নয়, দুদলের তারকাদের নিয়েও উন্মাদনা কম নেই ভক্তদের মধ্যে। রেয়ালের রোনালদো কিংবা লিভারপুলের মোহাম্মদ সালাহর ভক্তরা সবাই নিজের মতো করে স্বপ্ন দেখে এটি রাতটি হবে তাদেরই।

রোনালদোর ভক্ত আছেন সারা দুনিয়া জুড়েই, কিন্তু এ বছর বিশেষ করে নতুন সেনসেশন হয়ে উঠেছেন লিভারপুলের মিসরীয় তারকা মোহাম্মদ সালাহ – যাকে ভক্তেরা নাম দিয়েছেন ‘ফারাও’। এ মওসুমে ৪৪টি গোল করেছেন সালাহ, রোনালদোর চেয়েও বেশি।

বিশেষ করে আফ্রিকায় মো সালাহ জ্বর ছড়িয়ে পড়েছে দাবানলের মতোই। হবে না-ই বা কেন? সাম্প্রতিক কালে এমন ধূমকেতুর মতো উত্থান হয়নি আর কোনো আফ্রিকান ফুটবলারের।

শীর্ষস্থানীয় ফুটবল পন্ডিতরা এখন লিওনেল মেসির সাথেও সালাহর তুলনা করছেন। আফ্রিকান ভক্তদের চোখে সালাহ এখনই মেসির চেয়ে ভালো খেলোয়াড়।

আফ্রিকার অনেক ফুটবল ভক্ত যারা বার্সেলোনা, চেলসি বা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড বা অন্য কোন ক্লাবের সমর্থক – তারাও এখন ভক্ত হয়ে গেছেন সালাহ-র।

টুইটারে লুভো মাহলুলো নামে একজন লিখেছেন – আমি রোনালদোর সমর্থক, কিন্তু সালাহ আফ্রিকার ইতিহাসে সর্বকালের সেরা – আমিও চাই একজন আফ্রিকান গোল্ডেন বল পাক।

বিবিসি এমন দু’একজনের সাথে কথা বলেছে।

আমিনু মাই-উঙ্গুয়া চেলসির সমর্থক। কিন্তু তিনি এখন মনে করেন, মেসি আর রোনাল্ডো মিলিয়ে যা হয় – সালাহ তার চাইতেও ভালো খেলোয়াড়।

“এমনকি চেলসির সাথে লিভারপুলের খেলা হলেও আমি সালাহকে সমর্থন করবো” – বলছেন তিনি।

তার মতো আরো লক্ষ লক্ষ ভক্তের কাছে মোহাম্মদ সালাহ এখন আফ্রিকার গর্ব – এক আশার আলো।
নাংগোইয়ে আইজাক এডউইন হলেন লিভারপুলের চরম শত্রু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সমর্থক । কিন্তু তিনিও চাইছিলেন, মো সালাহর দলই চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতুক।

নাইজেরিয়ার এক ক্রীড়া বিশ্লেষক সালিসু মুসা বলছেন, সালাহ আফ্রিকার প্রতিনিধি – সব আফ্রিকান এখন তার দিকে চেয়ে আছে।

টুইটারে ড্যানি ফ্লেক্সেন বলে একজন লিখেছেন, মোহাম্মদ সালাহ ইসলাম ধর্মের এক ইতিবাচক ইমেজ তুলে ধরেছেন।

তার কথায়, সালাহ নিজে একজন হাই-প্রোফাইল মুসলিম এবং দারুণ রোল-মডেল হিসেবে ইসলাম-বিদ্বেষের মোকাবিলা করছেন – এটা বললে বাড়িয়ে বলা হয় না।

নিজ দেশ মিসরে তো সালাহর নামে রাস্তা আর স্কুলে নামকরণও করা হয়েছে।

কারণ তিনি যে শুধু লিভারপুলকে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে তুলেছেন তাই নয়, মিসরকে নিয়ে গেছেন এবারের বিশ্বকাপ ফুটবলের চূড়ান্ত পর্বে – যা শুরু হচ্ছে আর কয়েক সপ্তাহ পরই।

সালাহর চোখের পানি মোছালেন রোনালদো
নয়া দিগন্ত অনলাইন ২৭ মে ২০১৮, ০৩:৩২

সালাহর চোখের পানি মোছালেন রোনালদো
চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের প্রথমার্ধে চোট পেয়ে ভেজা চোখে মাঠ ছাড়লেন লিভারপুলের তারকা ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ সালাহ৷ রিয়ালের ডিফেন্ডার রামোসের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ঘাড়ে চোট পান লিভারপুলের মিশরীয় ফরোয়ার্ড৷ ম্যাচের ৩০ মিনিটের মাথায় মাঠ ছাড়ার আগে কাঁদতে থাকা সালাহর কাছে গিয়ে তাকে সান্তনা দিলেন রিয়ালের সেরা ফুটবলার রোনালদো। খেলায় ১-৩ গোলে রিয়ালের কাছে হেরে যায় লিভারপুল।

ছড়িয়ে পড়েছে ‘মো সালাহ জ্বর’

ক্লাব ফুটবলে পৃথিবীর এক নম্বর টুর্নামেন্ট উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল হলো শনিবার। মোকাবিলা করে ইংলিশ ক্লাব লিভারপুল আর স্প্যানিশ ক্লাব রেয়াল মাদ্রিদ। কিয়েভে অনুষ্ঠেয় এই ম্যাচে বল গড়ানোর জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে সারা পৃথিবীর ফুটবল ভক্তরা।

কিন্তু শুধু এই ম্যাচ নয়, দুদলের তারকাদের নিয়েও উন্মাদনা কম নেই ভক্তদের মধ্যে। রেয়ালের রোনালদো কিংবা লিভারপুলের মোহাম্মদ সালাহর ভক্তরা সবাই নিজের মতো করে স্বপ্ন দেখে এটি রাতটি হবে তাদেরই।

রোনালদোর ভক্ত আছেন সারা দুনিয়া জুড়েই, কিন্তু এ বছর বিশেষ করে নতুন সেনসেশন হয়ে উঠেছেন লিভারপুলের মিসরীয় তারকা মোহাম্মদ সালাহ – যাকে ভক্তেরা নাম দিয়েছেন ‘ফারাও’। এ মওসুমে ৪৪টি গোল করেছেন সালাহ, রোনালদোর চেয়েও বেশি।

বিশেষ করে আফ্রিকায় মো সালাহ জ্বর ছড়িয়ে পড়েছে দাবানলের মতোই। হবে না-ই বা কেন? সাম্প্রতিক কালে এমন ধূমকেতুর মতো উত্থান হয়নি আর কোনো আফ্রিকান ফুটবলারের।

শীর্ষস্থানীয় ফুটবল পন্ডিতরা এখন লিওনেল মেসির সাথেও সালাহর তুলনা করছেন। আফ্রিকান ভক্তদের চোখে সালাহ এখনই মেসির চেয়ে ভালো খেলোয়াড়।

আফ্রিকার অনেক ফুটবল ভক্ত যারা বার্সেলোনা, চেলসি বা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড বা অন্য কোন ক্লাবের সমর্থক – তারাও এখন ভক্ত হয়ে গেছেন সালাহ-র।

টুইটারে লুভো মাহলুলো নামে একজন লিখেছেন – আমি রোনালদোর সমর্থক, কিন্তু সালাহ আফ্রিকার ইতিহাসে সর্বকালের সেরা – আমিও চাই একজন আফ্রিকান গোল্ডেন বল পাক।

বিবিসি এমন দু’একজনের সাথে কথা বলেছে।

আমিনু মাই-উঙ্গুয়া চেলসির সমর্থক। কিন্তু তিনি এখন মনে করেন, মেসি আর রোনাল্ডো মিলিয়ে যা হয় – সালাহ তার চাইতেও ভালো খেলোয়াড়।

“এমনকি চেলসির সাথে লিভারপুলের খেলা হলেও আমি সালাহকে সমর্থন করবো” – বলছেন তিনি।

তার মতো আরো লক্ষ লক্ষ ভক্তের কাছে মোহাম্মদ সালাহ এখন আফ্রিকার গর্ব – এক আশার আলো।
নাংগোইয়ে আইজাক এডউইন হলেন লিভারপুলের চরম শত্রু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সমর্থক । কিন্তু তিনিও চাইছিলেন, মো সালাহর দলই চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতুক।

নাইজেরিয়ার এক ক্রীড়া বিশ্লেষক সালিসু মুসা বলছেন, সালাহ আফ্রিকার প্রতিনিধি – সব আফ্রিকান এখন তার দিকে চেয়ে আছে।

টুইটারে ড্যানি ফ্লেক্সেন বলে একজন লিখেছেন, মোহাম্মদ সালাহ ইসলাম ধর্মের এক ইতিবাচক ইমেজ তুলে ধরেছেন।

তার কথায়, সালাহ নিজে একজন হাই-প্রোফাইল মুসলিম এবং দারুণ রোল-মডেল হিসেবে ইসলাম-বিদ্বেষের মোকাবিলা করছেন – এটা বললে বাড়িয়ে বলা হয় না।

নিজ দেশ মিসরে তো সালাহর নামে রাস্তা আর স্কুলে নামকরণও করা হয়েছে।

কারণ তিনি যে শুধু লিভারপুলকে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে তুলেছেন তাই নয়, মিসরকে নিয়ে গেছেন এবারের বিশ্বকাপ ফুটবলের চূড়ান্ত পর্বে – যা শুরু হচ্ছে আর কয়েক সপ্তাহ পরই।
নয়াদিগন্ত

সালাহর চোখের পানি মোছালেন রোনালদো
স্পোর্টস ডেস্ক: চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের প্রথমার্ধে চোট পেয়ে ভেজা চোখে মাঠ ছাড়লেন লিভারপুলের তারকা ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ সালাহ৷ রিয়ালের ডিফেন্ডার রামোসের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ঘাড়ে চোট পান লিভারপুলের মিশরীয় ফরোয়ার্ড৷ ম্যাচের ৩০ মিনিটের মাথায় মাঠ ছাড়ার আগে কাঁদতে থাকা সালাহর কাছে গিয়ে তাকে সান্তনা দিলেন রিয়ালের সেরা ফুটবলার রোনালদো। খেলায় ১-৩ গোলে রিয়ালের কাছে হেরে যায় লিভারপুল।

ছড়িয়ে পড়েছে ‘মো সালাহ জ্বর’

ক্লাব ফুটবলে পৃথিবীর এক নম্বর টুর্নামেন্ট উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল হলো শনিবার। মোকাবিলা করে ইংলিশ ক্লাব লিভারপুল আর স্প্যানিশ ক্লাব রেয়াল মাদ্রিদ। কিয়েভে অনুষ্ঠেয় এই ম্যাচে বল গড়ানোর জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে সারা পৃথিবীর ফুটবল ভক্তরা।

কিন্তু শুধু এই ম্যাচ নয়, দুদলের তারকাদের নিয়েও উন্মাদনা কম নেই ভক্তদের মধ্যে। রেয়ালের রোনালদো কিংবা লিভারপুলের মোহাম্মদ সালাহর ভক্তরা সবাই নিজের মতো করে স্বপ্ন দেখে এটি রাতটি হবে তাদেরই।

রোনালদোর ভক্ত আছেন সারা দুনিয়া জুড়েই, কিন্তু এ বছর বিশেষ করে নতুন সেনসেশন হয়ে উঠেছেন লিভারপুলের মিসরীয় তারকা মোহাম্মদ সালাহ – যাকে ভক্তেরা নাম দিয়েছেন ‘ফারাও’। এ মওসুমে ৪৪টি গোল করেছেন সালাহ, রোনালদোর চেয়েও বেশি।

বিশেষ করে আফ্রিকায় মো সালাহ জ্বর ছড়িয়ে পড়েছে দাবানলের মতোই। হবে না-ই বা কেন? সাম্প্রতিক কালে এমন ধূমকেতুর মতো উত্থান হয়নি আর কোনো আফ্রিকান ফুটবলারের।

শীর্ষস্থানীয় ফুটবল পন্ডিতরা এখন লিওনেল মেসির সাথেও সালাহর তুলনা করছেন। আফ্রিকান ভক্তদের চোখে সালাহ এখনই মেসির চেয়ে ভালো খেলোয়াড়।

আফ্রিকার অনেক ফুটবল ভক্ত যারা বার্সেলোনা, চেলসি বা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড বা অন্য কোন ক্লাবের সমর্থক – তারাও এখন ভক্ত হয়ে গেছেন সালাহ-র।

টুইটারে লুভো মাহলুলো নামে একজন লিখেছেন – আমি রোনালদোর সমর্থক, কিন্তু সালাহ আফ্রিকার ইতিহাসে সর্বকালের সেরা – আমিও চাই একজন আফ্রিকান গোল্ডেন বল পাক।

বিবিসি এমন দু’একজনের সাথে কথা বলেছে।

আমিনু মাই-উঙ্গুয়া চেলসির সমর্থক। কিন্তু তিনি এখন মনে করেন, মেসি আর রোনাল্ডো মিলিয়ে যা হয় – সালাহ তার চাইতেও ভালো খেলোয়াড়।

“এমনকি চেলসির সাথে লিভারপুলের খেলা হলেও আমি সালাহকে সমর্থন করবো” – বলছেন তিনি।

তার মতো আরো লক্ষ লক্ষ ভক্তের কাছে মোহাম্মদ সালাহ এখন আফ্রিকার গর্ব – এক আশার আলো।
নাংগোইয়ে আইজাক এডউইন হলেন লিভারপুলের চরম শত্রু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সমর্থক । কিন্তু তিনিও চাইছিলেন, মো সালাহর দলই চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতুক।

নাইজেরিয়ার এক ক্রীড়া বিশ্লেষক সালিসু মুসা বলছেন, সালাহ আফ্রিকার প্রতিনিধি – সব আফ্রিকান এখন তার দিকে চেয়ে আছে।

টুইটারে ড্যানি ফ্লেক্সেন বলে একজন লিখেছেন, মোহাম্মদ সালাহ ইসলাম ধর্মের এক ইতিবাচক ইমেজ তুলে ধরেছেন।

তার কথায়, সালাহ নিজে একজন হাই-প্রোফাইল মুসলিম এবং দারুণ রোল-মডেল হিসেবে ইসলাম-বিদ্বেষের মোকাবিলা করছেন – এটা বললে বাড়িয়ে বলা হয় না।

নিজ দেশ মিসরে তো সালাহর নামে রাস্তা আর স্কুলে নামকরণও করা হয়েছে।

কারণ তিনি যে শুধু লিভারপুলকে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে তুলেছেন তাই নয়, মিসরকে নিয়ে গেছেন এবারের বিশ্বকাপ ফুটবলের চূড়ান্ত পর্বে – যা শুরু হচ্ছে আর কয়েক সপ্তাহ পরই।

সালাহর চোখের পানি মোছালেন রোনালদো
নয়া দিগন্ত অনলাইন ২৭ মে ২০১৮, ০৩:৩২

সালাহর চোখের পানি মোছালেন রোনালদো
চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের প্রথমার্ধে চোট পেয়ে ভেজা চোখে মাঠ ছাড়লেন লিভারপুলের তারকা ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ সালাহ৷ রিয়ালের ডিফেন্ডার রামোসের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ঘাড়ে চোট পান লিভারপুলের মিশরীয় ফরোয়ার্ড৷ ম্যাচের ৩০ মিনিটের মাথায় মাঠ ছাড়ার আগে কাঁদতে থাকা সালাহর কাছে গিয়ে তাকে সান্তনা দিলেন রিয়ালের সেরা ফুটবলার রোনালদো। খেলায় ১-৩ গোলে রিয়ালের কাছে হেরে যায় লিভারপুল।

ছড়িয়ে পড়েছে ‘মো সালাহ জ্বর’

ক্লাব ফুটবলে পৃথিবীর এক নম্বর টুর্নামেন্ট উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল হলো শনিবার। মোকাবিলা করে ইংলিশ ক্লাব লিভারপুল আর স্প্যানিশ ক্লাব রেয়াল মাদ্রিদ। কিয়েভে অনুষ্ঠেয় এই ম্যাচে বল গড়ানোর জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে সারা পৃথিবীর ফুটবল ভক্তরা।

কিন্তু শুধু এই ম্যাচ নয়, দুদলের তারকাদের নিয়েও উন্মাদনা কম নেই ভক্তদের মধ্যে। রেয়ালের রোনালদো কিংবা লিভারপুলের মোহাম্মদ সালাহর ভক্তরা সবাই নিজের মতো করে স্বপ্ন দেখে এটি রাতটি হবে তাদেরই।

রোনালদোর ভক্ত আছেন সারা দুনিয়া জুড়েই, কিন্তু এ বছর বিশেষ করে নতুন সেনসেশন হয়ে উঠেছেন লিভারপুলের মিসরীয় তারকা মোহাম্মদ সালাহ – যাকে ভক্তেরা নাম দিয়েছেন ‘ফারাও’। এ মওসুমে ৪৪টি গোল করেছেন সালাহ, রোনালদোর চেয়েও বেশি।

বিশেষ করে আফ্রিকায় মো সালাহ জ্বর ছড়িয়ে পড়েছে দাবানলের মতোই। হবে না-ই বা কেন? সাম্প্রতিক কালে এমন ধূমকেতুর মতো উত্থান হয়নি আর কোনো আফ্রিকান ফুটবলারের।

শীর্ষস্থানীয় ফুটবল পন্ডিতরা এখন লিওনেল মেসির সাথেও সালাহর তুলনা করছেন। আফ্রিকান ভক্তদের চোখে সালাহ এখনই মেসির চেয়ে ভালো খেলোয়াড়।

আফ্রিকার অনেক ফুটবল ভক্ত যারা বার্সেলোনা, চেলসি বা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড বা অন্য কোন ক্লাবের সমর্থক – তারাও এখন ভক্ত হয়ে গেছেন সালাহ-র।

টুইটারে লুভো মাহলুলো নামে একজন লিখেছেন – আমি রোনালদোর সমর্থক, কিন্তু সালাহ আফ্রিকার ইতিহাসে সর্বকালের সেরা – আমিও চাই একজন আফ্রিকান গোল্ডেন বল পাক।

বিবিসি এমন দু’একজনের সাথে কথা বলেছে।

আমিনু মাই-উঙ্গুয়া চেলসির সমর্থক। কিন্তু তিনি এখন মনে করেন, মেসি আর রোনাল্ডো মিলিয়ে যা হয় – সালাহ তার চাইতেও ভালো খেলোয়াড়।

“এমনকি চেলসির সাথে লিভারপুলের খেলা হলেও আমি সালাহকে সমর্থন করবো” – বলছেন তিনি।

তার মতো আরো লক্ষ লক্ষ ভক্তের কাছে মোহাম্মদ সালাহ এখন আফ্রিকার গর্ব – এক আশার আলো।
নাংগোইয়ে আইজাক এডউইন হলেন লিভারপুলের চরম শত্রু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সমর্থক । কিন্তু তিনিও চাইছিলেন, মো সালাহর দলই চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতুক।

নাইজেরিয়ার এক ক্রীড়া বিশ্লেষক সালিসু মুসা বলছেন, সালাহ আফ্রিকার প্রতিনিধি – সব আফ্রিকান এখন তার দিকে চেয়ে আছে।

টুইটারে ড্যানি ফ্লেক্সেন বলে একজন লিখেছেন, মোহাম্মদ সালাহ ইসলাম ধর্মের এক ইতিবাচক ইমেজ তুলে ধরেছেন।

তার কথায়, সালাহ নিজে একজন হাই-প্রোফাইল মুসলিম এবং দারুণ রোল-মডেল হিসেবে ইসলাম-বিদ্বেষের মোকাবিলা করছেন – এটা বললে বাড়িয়ে বলা হয় না।

নিজ দেশ মিসরে তো সালাহর নামে রাস্তা আর স্কুলে নামকরণও করা হয়েছে।

কারণ তিনি যে শুধু লিভারপুলকে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে তুলেছেন তাই নয়, মিসরকে নিয়ে গেছেন এবারের বিশ্বকাপ ফুটবলের চূড়ান্ত পর্বে – যা শুরু হচ্ছে আর কয়েক সপ্তাহ পরই।
নয়াদিগন্ত

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত