প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কৃষ্ণগঙ্গা নদীর পানি বন্টণ ইস্যুতে খুব শীঘ্রই সিদ্ধান্ত জানাবে বিশ্বব্যাংক

লিহান লিমা: কৃষ্ণগঙ্গা নদীর ওপর ভারতের জলবিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণ নিয়ে বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত আশা করছে পাকিস্তান। এক্সপ্রেস ট্রিবিউন জানায়, বিশ্বব্যংকের নির্বাহী পরিচালকরা কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দিবেন।

তবে পাকিস্তান পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, ‘ভারত থেকে বিশ্বব্যাংকে ভুল বোঝানো হচ্ছে। এ জন্যই বিশ্বব্যাংক তার সিদ্ধান্ত নিতে দেরি করেছে বলে তারা আমাদেরকে জানিয়েছে। এর আগে পাকিস্তানের অ্যাটর্নি জেনারেল আশতার ওসাফ আলী ওয়াশিংটনে বিশ্বব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ক্রিস্টালিনা জর্জিভা’র সঙ্গে সোম ও মঙ্গলবার বৈঠক করেন। তবে বৈঠকের পর এটি সম্পর্কে কিছু বলতে অস্বীকৃতি জানান তিনি। সেসময় পাকিস্তানের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা বলেন, ‘তাদের ধৈর্যকে দুর্বলতা হিসেবে দেখা হচ্ছে। ব্যাংকের কিছু কর্মকর্তা পাকিস্তানের অবস্থানকে বিচার না করে ভারতের স্বার্থ দেখছেন।’

শুক্রবার এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, পাকিস্তানের তীব্র আপত্তি সত্তে¡ও ভারতের এমন প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের মধ্যস্ততায় স্বাক্ষরিত ১৯৬০ সালের সিন্ধু নদ পানি বণ্টন চুক্তি লঙ্ঘিত হয়েছে। চুক্তি অনুযায়ী, পূর্বের তিনটি নদী বিপাশা, ইরাবতী ও শতদ্রæর অধিকার থাকবে ভারতের কাছে। অন্যদিকে পশ্চিমের তিনটি নদী সিন্ধু, চেনাব ও ঝিলমের অধিকার থাকবে পাকিস্তানের। কিন্তু ভারত কৃষ্ণগঙ্গা জলবিদ্যুৎ প্রকল্প চেনাব নদীর উপর তৈরি করে। পাকিস্তানের ইংরেজি দৈনিক দ্য ডন জানায়, কাশ্মীরের কৃষ্ণগঙ্গার নির্মিত ৩৩০ মেগাওয়াটের এই জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের বাঁধ পাকিস্তানের জন্য সবচাইতে বড় উদ্বেগের কারণ। এই বাঁধ বিপুল পরিমাণ পানির প্রবাহ আটকে রাখতে সক্ষম।

অবশ্য ভারত বরাবরই আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ নিয়োগের কথা বলে আসছে। সর্বশেষ পাওয়া খবরে জানা যায়, এই ইস্যুতে দেশ দুটিকে সাথে নিয়ে সন্তোষজনক কোন সমঝোতায় পৌঁছতে ব্যর্থ হয়েছে বিশ্বব্যাংক। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

সর্বাধিক পঠিত