প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

হজ যাত্রীদের ট্রলি ব্যাগের নির্দিষ্ট মাপ থাকা উচিত নয়: হাব

তরিকুল ইসলাম সুমন: হজযাত্রীদের জন্য ট্রলি ব্যাগ সরবরাহের দায়িত্ব কেউ না নেওয়ায় সংগ্রহ ও পরিবহণ নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তারা। এ কারণে এসর লাগেজ পরিবহণ কালে হারিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে বলে জানান হজ যাত্রীরা।
গতবছর বেসরকারি হাজিদের হজ এজেন্সিরা ট্রলি ব্যাগ সরবরাহ করেছিল। আর সরকারি হাজিদের সরকারিভাবে ট্রলি ব্যাগ দেওয়া হয়েছিল। এবছরই হাজিদের জন্য বরাবরের প্রথায় পরিবর্তন আনা হয়েছে। ট্রলি ব্যাগের মান ও মূল্য নিয়ে বিতর্ক তৈরি হওয়ায় এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র জানায়, আগে যেভাবে সরকারি ও এজেন্সির মাধ্যমে হজডাত্রীদের ট্রলি ব্যাগ সরবরাহ করা হতো। এর মধ্যে একটা শুঙ্খলা থাকতো। একই মাপ ও ধরণের ব্যাগ হতো । সরকার এ বছর একটি গাইডলাইন দিলেও সেখানে বিশৃঙ্খলা দেখা দেওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। পারপরেও রয়েছে ট্রলি ব্যাগ মিসিংবা হারিয়ে যাওয়া।

এ বিষয়ে ধর্মমন্ত্রনালয়ের যুগ্ম সচিব (হজ)মো. হাফিজ উদ্দিন বলেন, ট্রলি ব্যাগ নিয়ে নানা ধরনের সমালোচনা থাকার কারণে এ বছর হজযাত্রীদের নিজেদেরই এ ব্যাহ বংগ্রহ করে নিতে হবে। যাতে এ ব্যাগ নিয়ে কোনো সমস্যা তৈরি না হয় এ জন্য আমরা ব্যগ প্রস্ততি কারীদের সঙ্গে আমরা কথা বলে একই মাপের ট্রলিব্যাগ সরবরাহ করে থাকেন। তিনি আরো বলেন, একই মাপের ব্যাগ পাওয়া নিয়ে কোনো সমস্যা হবে না আর এ নিয়ে হজযাত্রীদের দুশ্টিন্তা র কনো কারণে নেই।

তিনি আরো বলেন, হজ প্যাকেজ অনুযায়ী হজ যাত্রীদের বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা খচিত ট্রলি ব্যাগ ও কীট ব্যাগ স্ব স্ব দায়িত্বে কিনতে হবে। এক্ষেত্রে ট্রলি হজ যাত্রীর নাম,পাসপোর্ট নম্বর, মোয়াল্লেম নম্বর, হজ এজেন্সির নাম, সৌদি আরবস্থ এসিন্সে প্রতিনিধির নাম লিখতে হবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে

রাজধানীর বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে দেখা গেছে, আগে যে ধরণের ট্রলি ব্যাগ সরবরাহ করা হতো এসবের দাম ছিল ৭শ থেকে ৮টাকার মধ্যে। অথচ নেওয়া হতো ১৫শ থেকে ২হাজার টাকা।

বায়তুল মোকাররম মার্কেটের একাধিক ব্যাগ ব্যবসায়ী এই প্রতিবেদককে জানান, আগে হাজিদের যে মানের ট্রলি ব্যাগ সরবরাহ করা হতো এ ব্যাগ নিয়ে বিমানে উঠার আগেই চাকা, চেইন, হাতল নষ্ট হয়ে যেত। অনেক হাজি এ ধরনের ব্যাগ মাথায় নিয়েও চলাফেরাও করেছেন।

এমনই অভিযোগ করেন বায়তুল মোকাররম ঈশান ট্রাভেল পয়েন্ট এবং বাদশা লেদারের কর্মকর্তারা। ঈশান ট্রাভেল পয়েন্ট কর্মকর্তা গোলাম রাব্বি বলেন, হাজিদের জন্য মোটামুটি ভালো মানের ট্রলি ব্যাগ কিনতে ১৫ থেকে ১৮শ টাকা লাগবে।
মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ২০১৫ সালে ট্রলি ব্যাগের জন্য ১,৭০০ টাকা, ২০১৬ সালে ২০০০টাকা এবং গত বছরও ব্যাগের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে ২৫০০ টাকা।

চলতি বছর ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ হন হজযাত্রী হজে যাওয়ার সুয্গে পাবেন। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭১৯৮ এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২০ হাজার জন।

হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)-এর মহাসচিব এম শাহাদাত হোসাইন (তসলিম) বলেন, হজযাত্রীদের ট্রলিব্যাগ সরবরাহের দায়িত্ব হাব বা এজেন্সি পালন করবে না। ব্যাগের নির্দিষ্ট মাপ থাকা উচিত নয়। প্রয়োজন ওসামর্থ অনুযায়ী হজযাত্রীরা ব্যাগ সংগ্রহ করে নিবেন। আমরা ব্যবসা করার জন্য আসিনি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত