প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাজেট নিয়ে বিশ্লেষকেরা বললেন
‘বৈষম্যহীন, জনকল্যাণমুখী বিনিয়োগবান্ধব বাজেট চাই’

আশিক রহমান : আগামী জাতীয় বাজেট যেন বৈষম্যহীন, জনকল্যাণমুখী, বিনিয়োগ ও উন্নয়নমূলক বাজেট হয় সেদিকে নজর দিতে সরকারকে পরামর্শ দিয়েছেন বিশ্লেষকেরা। তাদের মতে, সব খাতকেই গুরুত্ব দিয়ে সুষম উন্নয়নের স্বার্থে বাজেট প্রণয়ন করতে হবে। তবে প্রয়োজন ও গুরুত্বানুসারে বিশেষ বিশেষ কয়েকটি খাতকে চিহ্নিত করে বাজেট বরাদ্দ বেশি দেওয়া উচিত বলে মনে করেন তারা।

জাতীয় বাজেট ভাবনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, আমরা সব সময়ই দাবি জানিয়ে আসছি যে, শিক্ষাখাতে বাজে বাড়ানো দরকার। শুধু বাজেট বাড়ানোই নয়, সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে সর্বোচ্চ বরাদ্দটা শিক্ষা খাতে দেওয়া উচিত। কারণ শিক্ষা খাতের সঙ্গে যুক্ত সকল মন্ত্রণালয় ও দেশের সকল উন্নয়ন। আর সেই শিক্ষা খাতকে যদি বাজেটের দিক থেকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেওয়া না হয় তাহলে শিক্ষায় আমরা ত্রæমান্বয়ে পিছিয়ে পড়ব।

অর্থনীতিবিদ ও জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. শামসুল আলম বলেন, আমি চাই এই সকল শিক্ষক অবসর গ্রহণের পরে যেন সময় মতো তাদের পেনশনের টাকা হাতে পেয়ে বাকি জীবন অন্যের উপর ভরসা না করে ভালোভাবে চলতে পারেন। দারিদ্র নিরসনেরে জন্য হতদরিদ্র ও অসচ্ছল মানুষের জন্য বয়স্কভাতা যেন বাজেটের আওতায় আনা হয়, তাহলে তা অনেক কল্যাণমুখী হবে। সঞ্চয়পত্রে যেন সুদ কমানো না হয়। সঞ্চয়পত্রের সুবিধা যেন ধনী শ্রেণির কেউ না পায়। সাধারণ গ্রামের দরিদ্র নারীদের ক্ষুদ্র কুটির শিল্পের মাধ্যমে স্বাবলম্বী করার উদ্যোগ থাকতে হবে বাজেটে।

এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ আবদুল মজিদ বলেন, বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ, ব্যবসা-বাণিজ্য হলে অর্থনীতি গতিশীল হবে। আর অর্থনীতির গতিশীল হলে রাজস্ব বাড়বে। অর্থনীতির গতিশীল থাকবে না, রাজস্ব বেশি বেশি চাইব এটা তো হবে না। এটা হয়ও না। অর্থনীতিকে বিনিয়োগমুখী করতে হবে। বিনিযোগমুখী হলেই কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। কর্মসংস্থান সৃষ্টি হলেই অর্থনীতিতে লেনদেন ও সবকিছুর আয় বাড়বে। এ ধরনের প্রত্যাশা চাই।

পাওয়ার সেলের গবেষক ও জ্বালানি বিশেষজ্ঞ বি.ডি রহমতউল্লাহ বলেন, বাজেট যেমন সংসারের একটা সুন্দর আয়-ব্যয়ের হিসাব। আমাদের জাতীয় বাজেট আয়-ব্যয়ের সুন্দর হিসাব নয়, সম্পূর্ণ লুটেরাদের বাজেট। মানুষের বাজেট হলো, আয়-ব্যয়ের সুষমবণ্টন। জনকল্যাণ নিশ্চিত হয় এমন বাজেটই আমাদের প্রত্যাশা। গ্যাস, বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দাম যাতে স্থিতিশীল থাকে, দাম বাড়িয়ে মানুষের জীবন নাভিশ্বাস না উঠে সে ধরনের বাজেটই মানুষের চাওয়া। বাজেটে তার প্রতিফলন দেখার অপেক্ষায় মানুষ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত