প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘স্বর্ণনীতি মালা করায় চোরাচালান অনেক কমে যাবে’

মেহেদী হাসান: বৈধভাবে ব্যবসায়িরা স্বর্ণ আমদানি করতে পারার যে স্বর্ণনীতি মালা-২০১৮ করা হয়েছে তা সময় উপযোগী এবং খুবই প্রয়োজনীয়। আশা করা যায় এর ফলে আমাদের একটা ‘গোল্ড ইন্ডাস্ট্রি’ গড়ে উঠবে। স্বর্ণনীতি মালা-২০১৮ নিয়ে আলাপকালে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. আবু আহমেদ আমাদের অর্থনীতিকে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, যে নীতিমালাটা করা হয়েছে সেটা আমাদের দেশের জন্য আরো আগে দরকার ছিল। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত প্রতি বছর স্বর্ণের অলঙ্কার রপ্তানি করে প্রায় ৪০ বিলিয়ন ডলার আয় করে যা আমাদের গার্মেন্ট খাতে আয় থেকে অনেক বেশি। আমাদের দেশ পিছনে পড়ে রয়েছে। আমাদের এখানে চোরাকারবারিরা কাজ করতো, স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা আবার তাদের থেকে কিনতো। বাংলাদেশের নীতি নির্ধারকেরা একটা ভুল ধারণার মধ্যে ছিল। আশা করা যায় এখন আমাদের একটা গোল্ড ইন্ডাস্ট্্ির গড়ে উঠবে। এটা বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে লাইসেন্স নিয়ে করা হবে। তবে স্বর্ণ আমদানিতে ট্যাক্স বেশি ধার্য করা উচিত হবে না। কারণ, এগুলো বিশ্ব বাজারে প্রতিযোগিতামূলক।

তিনি আরও বলেন, এই পদক্ষেপ খুব দ্রুত কার্যকর করা প্রয়োজন বলে মনে করি। আমরা এতোদিন ভুল করেছি। বাংলাদেশ এতোদিন ভুলের মধ্যে ছিল। ১০ বছর আগে যদি এ নীতিমালা করা হতো তাহলে এই বিভাগটা অনেক দূর এগিয়ে যেতে পাড়তো। এই অনুমোদনের ফলে স্মাগলিং (চোরাচালান) অনেক কমে যাবে এবং বাংলাদেশ ব্যাংক স্বচ্ছভাবে এটা নিয়ন্ত্রণ করবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত