প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সড়ক দুর্ঘটনায় দোষীদের বিচার হয় না

সাজিয়া আক্তার: প্রতিদিনই বাড়ছে সড়ক দুর্ঘটনা, আহত-নিহত পরিসংখ্যানও উর্ধমুখি। কোনো কিছুতেই যেনো দুর্ঘটনা ঠেকানো যাচ্ছে না। দুর্ঘটনার আসল কারণগুলোর দিকেও কারো নজর নেই। আবার নানা উদ্যোগের পরও চালকদের বেপরোয়া মনোভাব কমানো যাচ্ছে না।

৮ বছরের আনিকার দিন কাটছে হাসপাতালের বিছানায়। কুমিল্লার পুরোরা এলাকা কাকরতলাতে এক দুর্ঘটনায় কোমর থেকে বাম পা পুরোটাই ভেঙে গেছে।

রাজধানীর গোলবাগে দ্রুতগামী এক গাড়ির ধাক্কায় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্নতা কর্মী আহত হন। একই ঘটনায় নিহত হন তার পাশে থাকা সালেহা বেগম।

দেশজোরে প্রতিনিয়ত কাউকে না কাউকে বরণ করে নিতে হচ্ছে মৃত্যু। পরিবারকে বিপর্যয়ের মধ্যে ফেলে রেখে যেতে হচ্ছে না ফেরার দেশে। এরকম উদাহরণ আছে অনেক।

বাংলাদেশ যাত্রী কল্যান সমিতির মহাসচিব মো: মোজাম্মেল হক বলেন, আমাদের দেশে যে দুর্ঘটনা ঘটে তার মধ্যে ৮০ ভাগেই নিষ্পত্তি হয়ে যায়। যেসমস্ত মামলা হয় তার প্রায় ৯৯ শতাংশই খালাস পেয়ে যায়।

সড়ক পরিবহনের অতিরিক্ত সচিব বলেন, চালকদের সাবধান করতে নানা রকম পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

সড়ক পরিবহনের ও সেতু মন্ত্রনালয় অতিরিক্ত সচিব সফিকুল ইসলাম বলেন, বিআরটিএ থেকে বিভিন্ন ভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে ড্রাইভারদের। চলমান ড্রাইভার যারা আছে তাদের রাতারাতি পরিবর্তন করতে পারবো না, এদেরকে নিয়েই আমাদের চলতে হবে। এই ড্রাইভারদের আমরা ২ দিনের ট্রেনিং দিচ্ছি। আমরা আশা করছি এমনটা করলে চালকদের পরিবর্তন হবে।

চালকদের বেপরোয়া গতি এবং পাল্লা দিয়ে গাড়ি চালানো দুর্ঘনার অন্যতম কারণ বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। মহাসড়কের পাশপাশি এই প্রবনতা রাজধানীর ভেতরেও দেখা যাচ্ছে। সূত্র: ডিবিসি টেলিভিশন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত