প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টেকনাফে পৃথক অভিযানে ২ লাখ ৬০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার

উরহাদ আমিন,টেকনাফ (কক্সবাজার) :কক্সাজারের টেকনাফে পুলিশ ও বিজিবি পৃথক অভিযান চালিয়ে ২ লাখ ৬০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে।

বৃহস্পতিবার (২৪ মে) ভোররাতে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের হাবিরছড়া এলাকায় এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় কাউকে আটক করা সম্ভম হয়নি।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়ক সংলগ্ন একটি ঝুপড়ি ঘরে মায়ানমার থেকে ট্রলার যোগে এনে একটি ইয়াবার বড় চালান মজুদ রাখা হয়েছে- এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রনজিত কুমার বড়ুয়া ও পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আতিকের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ফোর্স অভিযান চালায়।

এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ইয়াবা কারবারিরা পালিয়ে যায়। পরে ওই ঝুপড়িতে তল্লাশি চালিয়ে মাটির ভিতর থেকে বস্তায় মোড়ানো ২ লাখ ৫০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

এ ব্যাপারে টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রনজিত কুমার বড়ুয়া জানান, একটি ভাঙা ঝুপড়ি ঘর থেকে ২ লাখ পিস ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। ওই ঝুপড়িতে স্থায়ীভাবে কেউ বসবাস করে না।

তিনি আরও জানান, ইয়াবা কারবারিরা এই ঝুপড়ি ঘরটি মজুদের কাজে ব্যবহার করতো। অভিযান পরিচালনার সময় হাবিরছড়ার এলাকার মো. শাকের (২৫) একই এলাকার আবদুল মতলব (৩৭), রাজারছড়ার আবদুর গফুর (৪২) ও তুলাতুলী এলাকার মো. বশর (৪০) পালিয়ে যায়। এ অভিযানের ঘটনায় চারজনকে পলাতক আসামি করে একটি মাদক আইনে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এছাড়া একইদিনে টেকনাফে সাবরাং খুরেরমুখে ৩০ লাখ টাকার মূল্যমানের ১০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে বডার্র গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মো. আছাদুদ- জামান চৌধুরী জানান, টেকনাফ সাবরাং ইউনিয়নের আলী ডেইল এলাকায় ইয়াবা ক্রয়-বিক্রয় হতে পারে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খুরেরমুখ বিওপির অস্থায়ী চেকপোষ্টের হাবিলদার মো. তোফাজ্জল হোসেন এর নেতৃত্বে একটি বিশেষ টহলদল দ্রুত বর্ণিত এলাকায় গমন করে কোন লোকজন না দেখে উক্ত এলাকায় তল্লাশী চালায়। কিছুক্ষণপর জঙ্গলাকীর্ণ একটি স্থানে পলিথিনের ব্যাগে মোড়ানো অবস্থায় একটি প্যাকেট পাওয়া যায়। পরে টহলদল উক্ত প্যাকেটটি খুলে গণনা করে করে ৩০ লাখ টাকা মূল্যমানের ১০ হাজার পিছ ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেটগুলো ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে, যা পরবর্তীতে উর্দ্ধতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত